কুমাইল ইবনে জিয়াদ নাখাঈ ছিলেন আমিরুল মোমিনীন হযরত আলী ইবনে আবু তালিব (আ.) এর একজন ঘনিষ্ঠ সহচর। এই অসাধারণ দোয়াটি প্রথম উচ্চারিত হয়েছিল হযরত আলী (আ.) এর সমধুর অথচ যন্ত্রণাকাতর কণ্ঠে। আল্লামা মজলিসী (রহঃ) এর বর্ণনা অনুসারে বসরার মসজিদের যে মজলিসে হযরত আলী (আ.) তাঁর ভাষণে ১৫ই শাবান রাতের তাৎপর্য সম্পর্কে বলছিলেন , সে মজলিসে উপস্থিত ছিলেন কুমাইল। হযরত আলী (আ.) বলেছিলেন , "যে ব্যক্তি এই রাত জেগে এবাদত করবে এবং নবী খিজিরের দোয়া পড়বে নিঃসন্দেহে ঐ ব্যক্তির দোয়া কবুল হবে।"

মজলিস শেষে কুমাইল হযরত আলীর ঘরে এসে তাঁকে হযরত খিজিরের দোয়া শিখিয়ে দিতে অনুরোধ করেন। হযরত আলী (আ.) কুমাইলকে বসিয়ে দোয়াটি আবৃত্তি করেন এবং সেটা লিখে মুখস্থ করে রাখার নির্দেশ দেন।

তারপর হযরত আলী কুমাইলকে পরামর্শ দিলেন , প্রতি শুক্রবারের শুরুতে (অর্থাৎ আগের রাতে) একবার করে কিংবা অন্ততঃ বছরে একবার এই দোয়াটি পড়তে যাতে করে "আল্লাহ তাআ’ লা শত্রুর অনিষ্ট হতে এবং মুনাফিকদের ষড়যন্ত্র হতে রক্ষা করেন।" তিনি আরও বলেন , হে কুমাইল! তোমার সাহচর্য এবং উপলব্ধির সম্মানে আমি এই দোয়াটি তোমার হেফাজতে উৎসর্গ করলাম।"

بِسْمِ اللهِ الرَّحْمٰنِ الرَّحِیْمِ

اَللّٰھُمَّ اِنِّیْ اَسْئَلُكَ بِرَحْمَتِكَ الَّتِیْ وَسِعَتْ كُلَّ شَیْئٍ وَ بِقُوَّتِكَ الَّتِیْ قَھَرْتَ بِھَا كُلَّ شَیْئٍ وَ خَضَعَ لَھَا كُلُّ شَیْئٍ وَّ ذَلَّ لَھَا كُلُّ شَیْئٍ وَ بِجَبَرُوْتِكَ الَّتِیْ غَلَبْتَ بِھَا كُلَّ شَیْئٍ وَّ بِعِزَّتِكَ الَّتِیْ لَا یَقُوْمُ لَھَا شَیْئٌ وَّ بِعَظَمَتِكَ الَّتِیْ مَلَاَتْ كُلَّ شَیْءٍ وَّ بِسُلْطَانِكَ الَّذِیْ عَلٰی كُلَّ شَیْءٍ وَّ بِوَجْھِكَ الْبَاقِیْ بَعْدَ فَنَاۤءِ كُلَّ شَیْءٍ وَّ بِاَسْمَاۤئِكَ الَّتِیْ مَلَاَتْ اَرْكَانَ كُلِّ شَیْءٍ وَّ بِعِلْمِكَ الَّذِیْ اَحَاطَ بِكُلِّ شَیْءٍ وَّ بِنُوْرِ وَجْھِكَ الَّذِیْ اَضَاۤءَلَہٗ كُلُّ شَیْءٍ یَا نُوْرُ یَا قُدُّوْسُ یَا اَوَّلَ الْاَوَّلِیْنَ وَ یَا اۤخِرَ الْاۤخِرِیْنَ اَللّٰھُمَّ اغْفِرْ لِیَ الذُّنُوْبَ الَّتِیْ تَھْتِكُ الْعِصَمَ اَللّٰھُمَّ اغْفِرْلِیَ الذُّنُوْبَ الَّتِیْ تُنْزِلُ النِّقَمَ اَللّٰھُمَّ اغْفِرْ لِیَ الذُّنُوْبَ الَّتِیْ تُغَیِّرُ النِّعَمَ اَللّٰھُمَّ اغْفِرْ لِیَ الذُّنُوْبَ الَّتِیْ تَحْبِسُ الدُّعَاۤءَاَللّٰھُمَّ اغْفِرْ لِیَ الذُّنُوْبَ الَّتِیْ تَقْطَعُ الرَّجَاۤءَاَللّٰھُمَّ اغْفِرْ لِیَ الذُّنُوْبَ

الَّتِیْ تُنْزِلُ الْبَلَاۤءَاَللّٰھُمَّ اغْفِرْ لِیْ كُلَّ ذَنْبٍ اَذْنَبْتُہٗ وَ كُلُّ خَطِۤیْئَۃٍ اَخْطَاْتھَا اَللّٰھُمَّ اِنِّیْ اَتَقَرَّبُ اِلَیْكَ بِذِكْرِكَ وَ اَسْتَشْفِعُ بِكَ اِلٰی نَفْسِكَ وَ اَسْئَلُكَ بِجُوْدِكَ اَنْ تُدْنِیَنِیْ مِنْ قُرْبِكَ وَ اَنْ تُوْزِعَنِیْ شُكْرَكَ وَ اَنْ تُلْھِمَنِیْ ذِكْرَكَ اَللّٰھُمَّ اِنِّیْ اَسْئَلُكَ سُؤَالَ خَاضِعٍ مُتَذَلِّلٍ خَاشِعٍ اَنْ تُسَامِحَنِیْ وَ تَرْحَمَنِیْ وَ تَجْعَلَنِیْ بِقِسْمِكَ رَاضِیًا قَانِعًا وَ فِیْ جَمِیْعِ الْاَحْوَالِ مُتَوَاضِعًا اَللّٰھُمَّ وَ اَسْئَلُكَ سُؤَالَ مَنِ اشْتَدَّتْ فَاقَتُہٗ وَ اَنْزَلَ بِكَ عِنْدَ الشَّدَاۤئِدِ حَاجَتَہٗ وَ عَظُمَ فِیْمَا عِنْدَكَ رَغْبَتُہٗ اَللّٰھُمَّ عَظُمَ سُلْطَانُكَ وَ عَلٰی مَكَانُكَ وَ خَفِیَ مَكْرُكَ وَ ظَھَرَ اَمْرُكَ وَ غَلَبَ قَھْرُكَ وَ جَرَتْ قُدْرَتُكَ وَ لَا یُمْكِنُ الْفِرَارُ مِنْ حُكُوْمَتِكَ اَللّٰھُمَّ لَا اَجِدُ لِذُنُوْبِیْ غَافِرًا وَ لَا لِقَبَاۤئِحِیْ سَاتِرًا وَّ لَا لِشَیْئٍ مِّنْ عَمَلِیَ

الْقَبِیْحِ بِالْحَسَنِ مُبَدِّلًا غَیْرَكَ لَا اِلٰہَ اِلَّا اَنْتَ سُبْحَانَكَ وَ بِحَمْدِكَ ظَلَمْتُ نَفْسِیْ وَ تَجَرَّاْتُ بِجَھْلِیْ وَ سَكَنْتُ اِلٰی قَدِیْمِ ذِكْرِكَ لِیْ وَمَنِّكَ عَلَیَّ اَللّٰھُمَّ مَوْلَایَ كَمْ مِنْ قَبِیْحٍ سَتَرْتَہٗ وَ كَمْ مِنْ فَادِحٍ مِنَ الْبَلَاۤءِ اَقَلْتَہٗ وَكَمْ مِنْ عِثَارٍ وَقَیْتَہٗ وَ كَمْ مِّنْ مَّكْرُوْہٍ دَفَعْتَہٗ وَ كَمْ مِنْ ثَنَاۤءٍ جَمِیْلٍ لَسْتُ اَھْلًا لَہٗ نَشَرْتَہٗ اَللّٰھُمَّ عَظُمَ بَلَاۤئـِیْ وَ اَفْرَطَ بِیْ سُوْۤء حَالِیْ وَ قَصُرَتْ بِیْ اَعْمَالِیْ وَ قَعَدَتْ بِیْ اَغْلَالِیْ وَ حَبَسَنِیْ عَنْ نَفْعِیْ بُعْدُ اَمَلِیْ وَ خَدَعَتْنِیْ الدُّنْیَا بِغُرُوْرِھَا وَ نَفْسِیْ بِجِنَایَتِھَا وَ مِطَالِیْ یَا سَیِّدِیْ فَاَسْئَلُكَ بِعِزَّتِكَ اَنْ لَّا یَحْجُبَ عَنْكَ دُعَاۤئـِیْ سُوْۤءُ عَمَلِیْ وَ فِعَالِیْ وَ لَا تَفْضَحْنِیْ بِخَفِیِّ مَا اطَّلَعْتَ عَلَیْہِ مِنْ سِرِّیْ وَ لَا تُعَاجِلْنِیْ بِالْعُقُوْبَۃِ عَلٰی مَا عَمِلْتُہٗ فِیْ خَلَوَاتِیْ مِنْ سُوْۤءِ فِعْلِیْ وَ اِسَاۤئَتِیْ وَ دَوَامِ

تَفْرِیْطِیْ وَ جَھَالَتِیْ وَ كَثْرَۃِ شَھْوَاتِیْ وَ غَفْلَتِیْ وَ كُنِ اللّٰھُمَّ بِعِزَّتِكَ لِیْ فِیْ كُلِّ الْاَحْوَالِ رَؤُوْفًا وَ عَلَیَّ فِیْ جَمِیْعِ الْاُمُوْرِ عَطُوْفًا اِلٰھِیْ وَ رَبِّیْ مَنْ لِیْ غَیْرُكَ اَسْئَلُہٗ كَشْفَ ضُرِّیْ وَ النَّظَرَ فِیْ اَمْرِیْ اِلٰھِیْ وَ مَوْلَایَ اَجْرَیْتَ عَلَیَّ حُكْمًانِ اتَّبَعْتُ فِیْہِ ھَوٰی نَفْسِیْ وَ لَمْ اَحْتَرِسْ فِیْہِ مِنْ تَزْیِیْنِ عَدُوِّیْ فَغَرَّنِیْ بِمَا اَھْوٰی وَ اَسْعَدَہٗ عَلٰی ذٰلِكَ الْقَضَاۤءُ فَتَجَاوَزْتُ بِمَا جَرٰی عَلَیَّ مِنْ ذٰلِكَ بَعْضَ حُدُوْدِكَ وَ خَالَفْتُ بَعْضَ اَوَامِرِكَ فَلَكَ الْحَمْدُ عَلَیَّ فِیْ جَمِیْعِ ذٰلِكَ وَ لَا حُجَّۃَ لِیْ فِیْمَا جَرٰی عَلَیَّ فِیْہِ قَضَاۤؤُكَ وَاَلْزَمَنِیْ حُكْمُكَ وَ بَلَاۤؤُكَ وَ قَدْ اَتَیْتُكَ یَا اِلٰھِیْ بَعْدَ

تَقْصِیْرِیْ وَ اِسْرَافِیْ عَلٰی نَفْسِیْ مُعْتَذِرًا نَادِمًا مُنْكَسِرًا مُسْتَقِیْلًا مُسْتَغْفِرًا مُنِیْبًا مُقِرًّا مُذْعِنًا مُعْتَرِفًا لَا اَجِدُ مَفَرًّا مِمَّا كَانَ مِنِّیْ وَ لَا مَفْزَعًا اَتَوَجَّہُ اِلَیْہِ فِیْ اَمْرِیْ غَیْرَ قَبُوْلِكَ عُذْرِیْ وَ اِدْخَالِكَ اِیَّایَ فِیْ سَعَۃِ رَحْمَتِكَ اَللّٰھُمَّ فَاقْبَلْ عُذْرِیْ وَارْحَمْ شِدَّۃَ ضُرِّیْ وَ فُكَّنِیْ مِنْ شَدِّ وَثَاقِیْ یَا رَبِّ ارْحَمْ ضَعْفَ بَدَنِیْ وَ رِقَّۃَ جِلْدِیْ وَ دِقَّۃَ عَظْمِیْ یَا مَنْ بَدَءَخَلْقِیْ وَ ذِكْرِیْ وَ تَرْبِیَتِیْ وَ بِرِّیْ وَ تَغْذِیَتِیْ ھَبْنِیْ لِاِبْتِدَاۤءِ كَرَمِكَ وَ سَالِفِ بِرِّكَ بِیْ یَا اِلٰھِیْ وَ سَیِّدِیْ وَ رَبِّیْ اَ تُرَاكَ مُعَذِّبِیْ بِنَارِكَ بَعْدَ تَوْحِیْدِكَ وَ بَعْدَ مَا انْطَوٰی عَلَیْہِ قَلْبِیْ مِنْ مَعْرِفَتِكَ وَ لَھِجَ بِہٖ لِسَانِیْ مِنْ ذِكْرِكَ وَاعْتَقَدَہٗ ضَمِیْرِیْ مِنْ حُبِّكَ وَ بَعْدَ صِدْقِ اعْتِرَافِیْ وَ دُعَاۤئِـیْ خَاضِعًا لِرُبُوْبِیَّتِكَ ھَیْھَاتَ اَنْتَ اَكْرَمُ مِنْ اَنْ تُضَیِّعَ مَنْ رَبَّیْتَہٗ اَوْ

تُعْبِدَ مَنْ اَدْنَیْتَہٗ اَو ْتُشَرِّدَ مَنْ اٰوَیْتَہٗ اَوْ تُسَلِّمَ اِلَی الْبَلۤاۤءِ مَنْ كَفَیْتَہٗ وَ رَحِمْتَہٗ وَ لَیْتَ شِعْرِیْ یَا سَیِّدِیْ وَ اِلٰھِیْ وَ مَوْلَایَ اَتُسَلِّطُ النَّارَ عَلٰی وُجُوْہٍ خَرَّتْ لِعَظَمَتِكَ سَاجِدَۃً وَ عَلٰی اَلْسُنٍ نَطَقَتْ بِتَوْحِیْدِكَ صَادِقَۃً وَ بِشُكْرِكَ مَادِحَۃً وَ عَلٰی قُلُوْبٍ اِعْتَرَفَتْ بِاِلٰھِیَّتِكَ مُحَقِّقَۃً وَ عَلٰی ضَمَاۤئِرَ حَوَتْ مِنَ الْعِلْمِ بِكَ حَتّٰی صَارَتْ خَاشِعَۃً وَ عَلٰی جَوَارِحَ سَعَتْ اِلٰی اَوْطَانِ تَعَبُّدِكَ

طَاۤئِعَۃً وَ اَشَارَتْ بِاسْتِغْفَارِكَ مُذْعِنَۃً مَا ھٰكَذَا الظَّنُّ بِكَ وَ لَا اُخْبِرْنَا بِفَضْلِكَ عَنْكَ یَا كَرِیْمُ یَا رَبِّ وَ اَنْتَ تَعْلَمُ ضَعْفِیْ عَنْ قَلِیْلٍ مِّنْ بَلَاۤءِ الدُّنْیَا وَ عُقُوْبَاتِھَا وَ مَا یَجْرِیْ فِیْھَا مِنَ الْمَكَارِہِ عَلٰی اَھْلِھَا عَلٰی اَنَّ ذٰلِكَ بَلَاۤءٌ وَّ مَكْرُوْہٌ قَلِیْلٌ مَكْثُہٗ یَسِیْرٌ بَقَاۤئُہٗ قَصِیْرٌ مُدَّتُہٗ فَكَیْفَ احْتِمَالِیْ لِبَلَاۤءِ الْاٰخِرَۃِ وَ جَلِیْلِ وُقُوْعِ الْمَكَارِہِ فِیْھَا وَ ھُوَ بَلَاۤءٌ تَطُوْلُ مُدَّتُہٗ وَ یَدُوْمُ مَقَامُہٗ وَ لَا یُخَفَّفُ عَنْ اَھْلِہٖ لِاَنَّہٗ لَا یَكُوْنُ اِلَّا عَنْ غَضَبِكَ وَ انْتِقَامِكَ وَ سَخَطِكَ وَ ھٰذَا مَا لَا تَقُوْمُ لَہُ السَّمٰوَاتُ وَ الْاَرْضُ یَا سَیِّدِیْ فَكَیْفَ لِیْ وَ اَنَا عَبْدُكَ الضَّعِیْفُ الذَّلِیْلُ الْحَقِیْرُ الْمِسْكِیْنُ الْمُسْتَكِیْنُ یَا اِلٰھِیْ وَ رَبِّیْ وَ سَیِّدِیْ وَ مَوْلَایَ لِاَیِّ الْاُمُوْرِ اِلَیْكَ اَشْكُوْ وَ لِمَا مِنْھَا اَضِجُّ وَ اَبْكِیْ لِاَلِیْمِ الْعَذَابِ وَ شِدَّتِہٖ اَمْ لِطُوْلِ الْبَلَاۤءِ وَ مُدَّتِہٖ فَلَئِنْ صَیَّرْتَنِیْ لِلْعُقُوْبَاتِ مَعَ اَعْدَاۤئِكَ وَ جَمَعْتَ بَیْنِیْ وَ بَیْنَ اَھْلِ بَلَاۤئِكَ وَ فَرَّقْتَ بَیْنِیْ وَ بَیْنَ اَحِبَّاۤئِكَ وَ اَوْلِیَاۤئِكَ فَھَبْنِیْ یَا اِلٰھِیْ وَ سَیِّدِیْ وَ مَوْلَایَ

وَ رَبِّیْ صَبَرْتُ عَلٰی عَذَابِكَ فَكَیْفَ اَصْبِرُ عَلٰی فِرَاقِكَ وَ ھَبْنِیْ صَبَرْتُ عَلٰی حَرِّ نَارِكَ فَكَیْفَ اَصْبِرُ عَنِ النَّظَرِ اِلٰی كَرَامَتِكَ اَمْ كَیْفَ اَسْكُنُ فِیْ النَّارِ وَ رَجَاۤئـِیْ عَفْوُكَ فَبِعِزَّتِكَ یَا سَیِّدِیْ وَ مَوْلَایَ اُقْسِمُ صَادِقًا لَئِنْ تَرَكْتَنِیْ نَاطِقًا لَاَضِجَّنَّ اِلَیْكَ بَیْنَ اَھْلِھَا ضَجِیْجَ الْاٰمِلِیْنَ وَ لَاَصْرُخَنَّ اِلَیْكَ صُرَاخَ الْمُسْتَصْرِخِیْنَ وَ لَاَبْكِیَنَّ عَلَیْكَ بُكَاۤءَالْفَاقِدِیْنَ وَ لَاُنَادِیَنَّكَ اَیْنَ كُنْتَ یَا وَلِیَّ الْمُؤْمِنِیْنَ یَا غَایَۃَ اٰمَالِ الْعَارِفِیْنَ یَا غِیَاثَ الْمُسْتَغِیْثِیْنَ یَا حَبِیْبَ قُلُوْبِ الصَّادِقِیْنَ وَ یَا اِلٰہَ الْعَالَمِیْنَ اَفَتُرَاكَ سُبْحَانَكَ یَا اِلٰھِیْ وَ بِحَمْدِكَ تَسْمَعُ فِیْھَا صَوْتَ عَبْدٍ مُّسْلِمٍ سُجِنَ فِیْھَا بِمُخَالَفَتِہٖ وَ ذَاقَ طَعْمَ عَذَابِھَا بِمَعْصِیَتِہٖ وَ حُبِسَ بَیْنَ اَطْبَاقِھَا بِجُرْمِہٖ وَ جَرِیْرَتِہٖ وَ ھُوَ یَضِجُّ اِلَیْكَ ضَجِیْجَ مُؤَمِّلٍ لِرَحْمَتِكَ وَ یُنَادِیْكَ بِلِسَانِ اَھْلِ تَوْحِیْدِكَ وَ یَتَوَسَّلُ اِلَیْكَ بِرُبُوْبِیَّتِكَ یَا مَوْلَایَ فَكَیْفَ یَبْقٰی فِی الْعَذَابِ وَ ھُوَ یَرْجُوْ مَا سَلَفَ مِنْ حِلْمِكَ اَمْ كَیْفَ تُؤْلِمُہُ النَّارُ وَ ھُوَ یَاْمُلُ فَضْلَكَ وَ رَحْمَتَكَ اَمْ كَیْفَ یُحْرِقُہٗ

لَھِیْبُھَا وَ اَنْتَ تَسْمَعُ صَوْتَہٗ وَ تَرٰی مَكَانَہٗ اَمْ كَیْفَ یَشْتَمِلُ عَلَیْہِ زَفِیْرُھَا وَ اَنْتَ تَعْلَمُ ضَعْفَہٗ اَمْ كَیْفَ یَتَقَلْقَلُ بَیْنَ اَطْبَاقِھَا وَ اَنْتَ تَعْلَمُ صِدْقَہٗ اَمْ كَیْفَ تَزْجُرُہٗ زَبَانِیَّتُھَا وَ ھُوَ یُنَادِیْكَ یَا رَبَّہُ اَمْ كَیْفَ یَرْجُوْ فَضْلَكَ فِیْ عِتْقِہٖ مِنْھَا فَتَتْرُكْہٗ فِیْھَا ھَیْھَاتَ مَا ذٰلِكَ الظَّنُّ بِكَ وَ لَا الْمَعْرُوْفُ مِنْ فَضْلِكَ وَ لَا مُشْبِہٌ لِمَا عَامَلْتَ بِہِ الْمُوَحِّدِیْنَ مِنْ بِرِّكَ وَ اِحْسَانِكَ فَبِالْیَقِیْنِ اَقْطَعُ لَوْلَا مَا حَكَمْتَ بِہٖ مِنْ تَعْذِیْبِ جَاحِدِیْكَ وَ قَضَیْتَ بِہٖ مِنْ اِخْلَادِ مُعَانِدِیْكَ لَجَعَلْتَ النَّارَ كُلَّھَا بَرْدًا وَّ سَلَامًا وَّ مَا كَانَ لِاَحَدٍ فِیْھَا مَقَرًّا وَّ لَا مُقَامًا لٰكِنَّكَ تَقَدَّسَتْ اَسْمَاۤؤُكَ اَقْسَمْتَ اَنْ تَمْلَاَھَا مِنَ الْكٰفِرِیْنَ مِنَ الْجِنَّۃِ وَ النَّاسِ اَجْمَعِیْنَ وَ اَنْ تُخَلِّدَ فِیْھَا الْمُعَانِدِیْنَ وَ اَنْتَ جَلَّ ثَنَاۤؤُكَ قُلْتَ مُبْتَدِءًا وَ تَطَوَّلْتَ بِالْاِنْعَامِ مُتَكَرِّمًا اَفَمَنْ كَانَ مُؤْمِنًا كَمَنْ كَانَ فَاسِقًا لَا یَسْتَوُوْنَ اِلٰھِیْ وَ سَیِّدِیْ فَاَسْئَلُكَ بِالْقُدْرَۃِ الَّتِیْ قَدَّرْتَھَا وَ بِالْقَضِیَّۃِ الَّتِیْ حَتَمْتَھَا وَ حَكَمْتَھَا وَ غَلَبْتَ مَنْ عَلَیْہِ اَجْرَیْتَھَا اَنْ

تَھَبَ لِیْ فِیْ ھٰذِہِ اللَّیْلَۃِ وَ فِیْ ھٰذِہِ السَّاعَۃِ كُلَّ جُرْمٍ اَجْرَمْتُہٗ وَ كُلَّ ذَنْبٍ اَذْنَبْتُہٗ وَ كُلَّ قَبِیْحٍ اَسْرَرْتُہٗ وَ كُلَّ جَھْلٍ عَمِلْتُہٗ كَتَمْتُہٗ اَوْ اَعْلَنْتُہٗ اَخْفَیْتُہٗ اَوْ اَظْھَرْتُہٗ وَ كُلَّ سَیِّئَۃٍ اَمَرْتَ بِاِثْبَاتِھَا الْكِرَامَ الْكَاتِبِیْنَ الَّذِیْنَ وَكَّلْتَھُمْ بِحِفْظِ مَا یَكُوْنُ مِنِّیْ وَ جَعَلْتَھُمْ شُھُوْدًا عَلَیَّ مَعَ جَوَارِحِیْ وَ كُنْتَ اَنْتَ الرَّقِیْبَ عَلَیَّ مِنْ وَّرَاۤئِھِمْ وَالشَّاھِدَ لِمَا خَفِیَ عَنْھُمْ وَ بِرَحْمَتِكَ اَخْفَیْتَہٗ وَ بِفَضْلِكَ سَتَرْتَہٗ وَ اَنْ تُوَفِّرَ حَظِّیْ مِنْ كُلِّ خَیْرٍ اَنْزَلْتَہٗ اَوْ اِحْسَانٍ فَضَّلْتَہٗ اَوْ بِرٍّ نَشَرْتَہٗ اَوْ رِزْقٍ بَسَطْتَہٗ اَوْ ذَنْبٍ تَغْفِرُہٗ اَوْخَطَاۤءٍ تَسْتُرُہٗ یَا رَبِّ یَا رَبِّ یَا رَبِّ یَا اِلٰھِیْ وَ سَیِّدِیْ وَ مَوْلَایَ وَمَالِكَ رِقِّیْ یَا مَنْ بِیَدِہٖ نَاصِیَتِیْ یَا عَلِیْمًا بِضُرِّیْ وَ مَسْكَنَتِیْ یَا خَبِیْرًا بِفَقْرِیْ وَ فَاقَتِیْ یَا رَبِّ یَا رَبِّ یَا رَبِّ اَسْئَلُكَ بِحَقِّكَ وَ قُدْسِكَ وَ

اَعْظَمِ صِفَاتِكَ وَ اَسْمَاۤئِكَ اَنْ تَجْعَلَ اَوْقَاتِیْ مِنَ اللَّیْلِ وَ النَّھَارِ بِذِكْرِكَ مَعْمُوْرَۃً وَ بِخِدْمَتِكَ مَوْصُوْلَۃً وَ اَعْمَالِیْ عِنْدَكَ مَقْبُوْلَۃً حَتّٰی تَكُوْنَ اَعْمَالِیْ وَ اَوْرَادِیْ كُلّھَا وِرْدًا وَّاحِدًا وَ حَالِیْ فِیْ خِدْمَتِكَ سَرْمَدًا یَا سَیِّدِیْ یَا مَنْ عَلَیْہِ مُعَوَّلِیْ یَا مَنْ اِلَیْہِ شَكَوْتُ اَحْوَالِیْ یَا رَبِّ یَا رَبِّ یَا رَبِّ قَوِّ عَلٰی خِدْمَتِكَ جَوَارِحِیْ وَ اشْدُدْ عَلَی الْعَزِیْمَۃِ جَوَانِحِیْ وَ ھَبْ لِیَ الْجِدَّ فِیْ خَشْیَتِكَ وَالدَّوٰمَ فِی الْاِتِّصَالِ بِخِدْمَتِكَ حَتّٰی اَسْرَحَ اِلَیْكَ فِیْ مَیَادِیْنِ السَّابِقِیْنَ وَ اُسْرِعَ اِلَیْكَ فِی الْبَارِزِیْنَ وَاشْتَاقَ اِلٰی قُرْبِكَ فِی الْمُشْتَاقِیْنَ وَ اَدْنُوَ مِنْكَ دُنُوَّ

الْمُخْلِصِیْنَ وَ اَخَافَكَ مَخَافَۃَ الْمُوْقِنِیْنَ وَ اجْتَمِعَ فِیْ جَوَارِكَ مَعَ الْمُؤْمِنِیْنَ اَللّٰھُمَّ وَ مَنْ اَرَادَ نِیْ بِسُوْۤءٍ فَاَرِدْہُ وَ مَنْ كَادَنِیْ فَكِدْہُ وَاجْعَلْنِیْ مِنْ اَحْسَنِ عَبِیْدِكَ نَصِیْبًا عِنْدَكَ وَ اَقْرَبِھِمْ مَنْزِلَۃً مِّنْكَ وَ اَخَصِّھِمْ زُلْفَۃً لَدَیْكَ فَاِنَّہٗ لَا یُنَالُ ذٰلِكَ اِلَّا بِفَضْلِكَ وَ جُدْ لِیْ بِجُوْدِكَ وَ اعْطِفْ عَلَیَّ بِمَجْدِكَ وَاحْفَظْنِیْ بِرَحْمَتِكَ وَاجْعَلْ لِسَانِیْ بِذِكْرِكَ لَھِجًا وَ قَلْبِیْ بِحُبِّكَ مُتَیَّمًا وَ مُنَّ عَلَیَّ بِحُسْنِ اِجَابَتِكَ وَ اَقِلْنِیْ عَثْرَتِیْ وَاغْفِرْ زَلَّتِیْ فَاِنَّكَ قَضَیْتَ عَلٰی عِبَادِكَ بِعِبَادَتِكَ وَ اَمَرْتَھُمْ بِدُعَاۤئِكَ وَ ضَمِنْتَ لَھُمُ الْاِجَابَۃَ فَاِلَیْكَ یَارَبِّ نَصَبْتُ وَجْھِیْ وَ اِلَیْكَ

یَا رَبِّ مَدَدْتُ یَدِیْ فَبِعِزَّتِكَ اسْتَجِبْ لِیْ دُعَاۤئـِیْ وَ بَلِّغْنِیْ مُنَایَ وَ لَا تَقْطَعْ مِنْ فَضْلِكَ رَجَاۤئـِیْ وَاكْفِنِیْ شَرَّ الْجِنِّ وَ الْاِنْسِ مِنْ اَعْدَاۤئـِیْ یَا سَرِیْعَ الرِّضَا اِغْفِرْ لِمَنْ لَا یَمْلِكُ اِلَّا الدُّعَاۤءَفَاِنَّكَ فَعَّالٌ لِمَا تَشَاۤءُ یَا مَنِ اسْمُہٗ دَوَاۤءٌ وَّ ذِكْرُہٗ شِفَاۤءٌ وَ طَاعَتُہٗ غِنًی اِرْحَمْ مَنْ رَاْسُ مَالِہِ الرَّجَاۤءُ وَ سِلَاحُہُ الْبُكَاۤءُ یَا سَابِغَ النِّعَمِ یَا دَافِعَ النِّقَمِ یَا نُوْرَ الْمُسْتَوْحِشِیْنَ فِی الظُّلَمِ یَا عَالِمًا لَا یُعَلَّمُ صَلِّ عَلٰی مُحَمَّدٍ وَّ اٰلِ مُحَمَّدٍ وَافْعَلْ بِیْ مَا اَنْتَ اَھْلُہٗ وَ صَلَّی اﷲُ عَلٰی رَسُوْلِہٖ وَالْاَئِمَّۃِ الْمَیَامِیْنَ مِنْ اٰلِہٖ وَ سَلَّمَ تَسْلِیْمًا كَثِیْرًا۔

কুমাইল ইবনে জিয়াদ নাখাঈ ছিলেন আমিরুল মোমিনীন হযরত আলী ইবনে আবু তালিব (আ.) এর একজন ঘনিষ্ঠ সহচর। এই অসাধারণ দোয়াটি প্রথম উচ্চারিত হয়েছিল হযরত আলী (আ.) এর সমধুর অথচ যন্ত্রণাকাতর কণ্ঠে। আল্লামা মজলিসী (রহঃ) এর বর্ণনা অনুসারে বসরার মসজিদের যে মজলিসে হযরত আলী (আ.) তাঁর ভাষণে ১৫ই শাবান রাতের তাৎপর্য সম্পর্কে বলছিলেন , সে মজলিসে উপস্থিত ছিলেন কুমাইল। হযরত আলী (আ.) বলেছিলেন , "যে ব্যক্তি এই রাত জেগে এবাদত করবে এবং নবী খিজিরের দোয়া পড়বে নিঃসন্দেহে ঐ ব্যক্তির দোয়া কবুল হবে।"

মজলিস শেষে কুমাইল হযরত আলীর ঘরে এসে তাঁকে হযরত খিজিরের দোয়া শিখিয়ে দিতে অনুরোধ করেন। হযরত আলী (আ.) কুমাইলকে বসিয়ে দোয়াটি আবৃত্তি করেন এবং সেটা লিখে মুখস্থ করে রাখার নির্দেশ দেন।

তারপর হযরত আলী কুমাইলকে পরামর্শ দিলেন , প্রতি শুক্রবারের শুরুতে (অর্থাৎ আগের রাতে) একবার করে কিংবা অন্ততঃ বছরে একবার এই দোয়াটি পড়তে যাতে করে "আল্লাহ তাআ’ লা শত্রুর অনিষ্ট হতে এবং মুনাফিকদের ষড়যন্ত্র হতে রক্ষা করেন।" তিনি আরও বলেন , হে কুমাইল! তোমার সাহচর্য এবং উপলব্ধির সম্মানে আমি এই দোয়াটি তোমার হেফাজতে উৎসর্গ করলাম।"

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম

আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা বিরাহমাতিকাল লাতি ওয়াসিয়াত কুল্লা শাইয়। ওয়া বিকুওওয়াতি কাল্লাতি কাহারতা বিহা কুল্লা শাইয়। ওয়া খয্বা’য়া লাহা কুল্লু শাইয়, ওয়া যাল্লা লাহা কুল্লু শাইয়। ওয়া বি যাবারুতিকাল লাতি গলাবতা বিহা কুল্লু শাইয়। ওয়াবি ইজ্জাতি কাল্লাতি লা ইয়াকুমু লাহা শাইয়। ওয়া বি আযামাতি কাল্লাতি মালায়াত কুল্লা শাইয়। ওয়া বি সুলতানিকাল্লাযি আলা কুল্লা শাইয়। ওয়া বি ওয়াজহিকাল বাকি বায়দা ফানাই কুল্লে শাইয়। ওয়া বি আসমাইকাল লাতি মালায়াত আরকানা কুল্লে শাইয়। ওয়া বি ইলমিকাল লাযি আহাতা বিকুল্লে শাইয়। ওয়া বি নুরি ওয়াযহিকাল লাযি আযায়ালাহু কুল্লো শাইয় ইয়া নুরু-ইয়া কুদ্দুস। ইয়া আওয়ালাল আওয়ালিন,ওয়া ইয়া আখেরাল আখেরিন। আল্লাহুম্মাগ ফিরলি ইয়ায যুনুবাল লাতি তাহতিকুল ইসাম। আল্লাহুম্মাগ ফিরলি ইয়ায যুনুবাল লাতি তুনযিলুন নিকাম।

আল্লাহুম্মাগ ফিরলি ইয়ায যুনুবাল লাতি তুগাইয়েরুন নিআম। আল্লাহুম্মাগ ফিরলি ইয়ায যুনুবাল লাতি তাহবিসুদ দুয়া। আল্লাহুম্মাগ ফিরলি ইয়ায যুনুবাল লাতি তুনযিলুল বালা। আল্লাহুম্মাগ ফিরলি কুল্লা যানবিন আযনাবতুহু। ওয়া কুল্লা খতিয়াতিন আখতাতুহা। আল্লাহুম্মা ইন্নি আতাকাররাবু ইলাইকা বিযিকরিক। ওয়া আসতাশফেঊ‌‌ বিকা ইলা নাফসিকা। ওয়া আস‌আলুকা বিজুদিকা আনতুদনিয়ানি মিন কুরবিক। ওয়া আন তুযেআনি শুকরাকা,ওয়া আন তুলহিমানি যিকরাক। আল্লাহুম্মা ইন্নি আস‌আলুকা সুয়ালা খযিয়িন মুতাযাল্লিলিন খশিইন। আন তুসামিহানি ওয়া তারহামানি,ওয়া তায‌আলানি বেকিসমিকা রযিয়ান কনিয়ান,ওয়া ফি যামিয়িল আহ‌ওয়ালিল মুতাওয়াযিয়া। আল্লাহুম্মা ওয়া আস‌আলুকা সূয়ালা মানিশ তাদ্দাত ফাকতুহ। ওয়া আনযালা বিকা ইনদাশ শাদাইদি হাযাতাহ। ওয়া আযুমা ফিমা ইনদাকা রাগবাতুহ। আল্লাহুম্মা আযুমা সুলতানুকা,ওয়া আলা মাকানুকা ওয়া খাফিয়া মাকরুক। ওয়া যহারা আমরুকা ওয়া গলাবা কহরুকা ওয়া জারাত কুদরাতুক।

ওয়ালা ইউমকিনুল ফিরারু মিন হুকুমাতিক। আল্লাহুম্মা লা আযিদু লেযুনুবি গফেরান ওয়া লি কাবায়িহি সাতেরা। ওয়ালা লি শাইয়িন মিন আমালিয়াল কাবিহি বিল হাসানি মুবাদ্দিলান গাইরাক। লা ইলাহা ইল্লা আনতা সুবহানাকা ওয়া বি হামদিক। যালামতু নাফসী। ওয়া তাজাররাআতু বি জাহলী ওয়া সাকানতু ইলা ক্বাদীমি যিকরিকা লি ওয়া মান্নিকা আলাই। আল্লাহুম্মা মাওলায়া কাম মিন ক্বাবিহিন সাতারতাহ। ওয়া কাম মিন ফাদিহিন মিনাল বালায়ি আক্বালতাহ। ওয়া কাম মিন ইসারীন ওয়াক্বায়তাহ ওয়া কাম মিন মাকরুহীন দাফাতাহ। ওয়া কাম মিন সানায়িন জামিলিন লাসতু আহলাল লাহু নাসারতাহ। আল্লাহুম্মা আযুমা বালায়ি ওয়া আফরাতা বি সুয়ু হালী ওয়া কাসুরাত বি আমালী। ওয়া কাআদাত বি আগ্বলালী ওয়া হাবাসানী আন নাফয়ী বুঅদু আমালী। ওয়া খদায়াতনিদ দুনিয়া বে গূরুরিহা। ওয়া নাফসি বিজিনাইয়াতিহা ওয়া মিতালি। ইয়া সাইয়্যিদী ফাআস‌আলুকা বিইযযাতিক।

আন লা ইয়াহজুবা আনকা দুয়ায়ি,সূঊ ঊ আমালি ওয়া ফিয়ালি। ওয়ালা তাফযাহনি বিখাফিই্য়ি মাত্তালায়তা আলাইহি মিন সিররী। ওয়ালা তুয়াজিলনি বিল‌উকুবাতি আলা মা আমিলতুহু ফি খালাওয়াতি মিন সূউয়ি ফিয়লি। ওয়া ইসাআতী ওয়া দাওয়ামি তাফরিতি ওয়া জাহালাতি। ওয়া কাসরাতি শাহাওয়াতি ওয়া গাফলাতি। ওয়া কুনিল্লাহুম্মা বিইয্যাতিকা লি ফি কুল্লিল আহ‌ওয়ালি রাউফা। ওয়া আলাইয়া ফি জামিয়িল উমুরি আতুফা। ইলাহি ওয়া রাব্বি মানলি গাইরুক। আসআলুহু কাশফা যুররী ওয়ান নাযারা ফি আমরী। ইলাহী ওয়া মাউলায়া আজরাইতা আলাইয়া হুকমানিত তাবাঅতু ফিহি হাওয়া নাফসী। ওয়া লাম আহতারিস ফিহি মিন তাযয়িনী আদুওওয়ি। ফা গ্বাররানী বিমা আহওয়া ওয়া আসআদাহু আলা যালিকাল কাযাউ। ফাতাজাওয়াযতু বিমা জারা আলাইয়া মিন যালিকা বায়দ্বা হুদুদিক। ওয়া খালাক্বতু বাঅদ্বা আওয়ামিরিক। ফালাকাল হামদু আলাইয়্যা ফি জামিয়ি যালিক। ওয়া লা হুজ্জাতা লি ফিমা জারা আলাইয়্যা ফিহি কাদ্বাউক। ওয়াল যামানী হুকমুকা ওয়া বালাউক।

ওয়া ক্বাদ আতাইতুকা ইয়া ইলাহী বাঅদা তাক্বসীরি। ওয়া ইসরাফি আলা নাফসী। মোঅতাযিরান নাদীমা মুনকাসীরান মুতাক্বিলা মুসতাগ্বফিরাম মুনিবা। মুকেররাম মুযএনাম মুঅতারিফা। লা আযিদু মাফারাম মিম্মা কানা মিন্নি ওয়ালা মাফযায়ান আতাওয়াজ্জাহু ইলাইহি ফি আমরি,গাইরা কুবুলিকা উযরি। ওয়া ইদখলিকা ঈইয়াইয়া ফি সা’য়াতি রহমামাতিক। আল্লাহুম্মা ফাক্ববাল ঊযরি,ওয়ার হাম শিদ্দাতা যুররী ওয়া ফুক্কানি মিন শাদ্দি ওয়া সাক্বি। ইয়া রব্বিরহাম যাঅফা বাদানী ওয়া রিক্কাতা জিলদি,ওয়া দিক্কাতা আযমি। ইয়া মান বাদা’য়া খালক্বি ওয়া যিকরি ওয়া তারবিয়াতি ওয়া বিররী ওয়া তাগযিয়াতি। হাবনি লিবতিদায়ি কারামিকা ওয়া সালিফি বিররিকা বি। ইয়া ইলাহী ওয়া সাইয়্যিদি ওয়া রাব্বী। আতুরাকা মুআযয্যিবি বিনারিকা বা’য়াদা তাওহিদিক। ওয়া বাঅদা মান তাওয়া আলাইহি ক্বালবী মিন মাঅরিফাতিক। ওয়া লাহিজা বিহি লিসানি মিন যিকরিক। ওয়া’তাকাদাহু যামিরি মিন হুব্বিক।

ওয়া বাঅদা সিদক্বি’য় তিরাফি। ওয়া দুয়ায়ী খাদ্বিয়ান লিরুবুবিয়াতিক। হাইহাত আনতা আকরামু মিন আন তুযাইয়েয়া মান রব্বাইতাহ। আও তুবা’য়’ইদা মান আদ নায়তাহ। আও তুশাররিদা মান আ ওয়াইতাহ। আও তুসাল্লিমা ইলাল বালায়ি মান কাফায়তাহূ ওয়া রাহিম তাহ। ওয়া লায়তা শি’য়রী। ইয়া সাইয়্যিদী ওয়া ইলাহী ওয়া মাওলাই। আতু সাল্লিতুন না-রা আলা উজূহিন খররাত লি আয মাতিকা সাজিদাহ। ওয়া আলা আল সুনিন নাতাকাত বিতাওহীদিকা সাদিক্বাহ। ওয়া বিশুকরিকা মাদিহা, ওয়া আলা কূলূবিন ইতারাফাত বিইলাহিয়াতিকা মুহাক্কিক্বাহ। ওয়া আলা দ্বামা-য়িরা হাওয়াত মিনাল ইলমিবিকা হাত্তা সারাত খশিয়াহ। ওয়া আলা জাওয়া- রিহা সা’য়াত ইলা আওত্বানি তা’য়াব্বুদিকা ত্বয়ি’য়াহ। ওয়া আশারাত বিস্তিগফা-রিকা মুযয়্যিনাহ। মা হাকায যান্নুবিক। ওয়ালা উখ বিরনা বিফাদ্বলিকা আনকা ইয়া কারীম। ইয়া রাব্বী ওয়া আস্তা তা’য়লামু দ্বা’য়ফী ‘আন ক্বালীলিম মিম বালায়িদ দুন-ইয়া ওয়া উকূ-বাতিহা। ওয়ামা ইয়াজরী ফীহা মিনাল মাকারিহি ‘আলা আহলিহা।

আলা আন্না যালিকা বালায়ু ওয়া মাকরূহুন, কালিলূম মাকসুহু, ইয়াসীরুম বাকায়ুহ,ক্বসিরুম মুদ্দাতুহ। ফা-কায়ফাহ তিমালী লিবালায়িল আখিরাহ, ওয়া জালীলি,উকু-ঈল মাকা-রিহি ফীহা। ওয়া হুওয়া বালায়ুন তাতূলু মুদ্দাতুহূ ওয়া ইয়াদূমু মাক্বামুহ। ওয়ালা ইয়ূ-খাফফাফু ‘আন আহলিহলি। লিআন্নাহূ লাইয়াকূনু ইল্লা ‘আন গাদাবিক। ওয়ান্তি-ক্বামিকা ওয়া সাখাত্বিক। ওয়া হাযা মা লা তাকূমু লাহুস সামাওয়াতু ওয়াল আরদ্ব। ইয়া সায়্যিদী ফাকায়ফা লী ওয়া আনা আব্দুকাদ দা’য়ীফুয যালীলু, হাকিরুল মিসকিনুল মুস্তাকীন। ইয়া ইলাহী ওয়া রব্বী ওয়া সায়্যিদী ওয়া মাওলাইয়। লি আইয়িল উমুরী ইলাইকা আশকু। ওয়া লিমা মিনহা আযিজজু ওয়া আবকি। লিআলিমিল আযাবি ওয়া সিদ্দতিহ আম লি তুলিল বালায়ী ওয়া মুদ্দাতিহ। ফালাইন সাইয়ারতানী লিল উকুবাতি মাআ আদা’য়্যিক। ওয়া জামা’তা বায়নী ওয়া বায়না আহলি বালায়িক। ওয়া ফাররাকতা বায়নী ওয়া বায়না আ-হিব্বাইকা ওয়া আউলিয়া-ইক। ফাহাবনী ইয়া ইলাহী ওয়া সায়্যিদী ওয়া মাওলাইয়া ওয়া রাব্বী।

সাবারতু আলা আযাবিক।ফাকায়ফা আসবিরু আলা ফিরাকিক। ওয়া হাবনী সাবারতূ আলা হাররি না-রিক। ফাকায়ফা আস-বিরু আনিন নাজারি ইলা কারা মাতিক। আম কায়ফা আস-কুনু ফীন নার।ওয়া রাজায়ী আফয়ুক। ফাবি ইযযাতিকা ইয়া সায়্যিদী ওয়া মাওলাইয়। উকসিমু সদিকান।লাইন তারাক তানী নাতিক্বা। লাআযিজজান্না ইলায়কা বায়না আহলিহা দাজীজাল আমিলীন। ওয়ালা আসরু খান্না ইলায়কা সুরা’খাল মাসতাস রিখিন। ওয়ালা আবকি ইয়ান্না আলায়কা বুকা আল ফাকিদীন। ওয়ালা উনাদি ইয়ান্নাকা আয়না কুন্তা ইয়া ওয়ালিয়াল মু’মিনীন। ইয়া গাইয়াতা আমালিল আরিফিন। ইয়া গিইয়াসাল মুসতাগীসীন। ইয়া হাবীবা কুলূবিস সাদিকীন। ওয়া ইয়া ইলাহাল আলামীন। আফাতুরাকা সুবহানাকা ইয়া ইলাহী ওয়া বিহামদিক। তাসমাঊ ফীহা সাওতা আবদিন মুসলিমিন সুজিনা ফীহা বি মুখালাফাতিহ। ওয়া যাকা তা’মা আযাবিহা বিমাসিইয়াতিহ। ওয়া হুবিসা বায়না আতবাকিহা বিজুরমিহি ওয়া জারীরাতিহ। ওয়াহু ওয়া ইয়াদিজ্জু ইলায়কা দাজিজা মুআম্মিলিন লিরাহমাতিক। ওয়া ইয়ুনাদীকা বিলিসানি আহলি তাওহীদিক। ওয়া ইয়াতা ওয়াস সালু ইলাইকা বিরুবুবিয়্যাতিক। ইয়া মাওলাইয়া ফাকায়ফা ইবক ফিল আযাব।ওয়া হুওয়া ইয়ারজু মা সালাফা মিন হিলমিক। আম কায়ফা তূলিমুহুন নার।

ওয়া হুওয়া ইয়া’মুলু ফাদ্বলাকা ওয়া রাহমাতাক।আম কায়ফা ইয়ুহরি কায়ফা ইয়ুহরি-কুহু লাহীবুহা ওয়া আনতা তাস্মাঊ সওতাহ। ওয়া তারা মাকানাহ।আম কায়ফা ইয়াশতামিলু আলায়হি যাফীরুহা। ওয়া আনতা তা’লামু দা’ফাহ। আম কায়ফা ইয়াতা কালকালু বায়না আতবাক্বিহা। ওয়া আনতা তা’লামু সিদকাহ। আম কায়ফা তাযজুরুহূ যাবানিইয়াতুহা। ওয়া হুওয়া দীকা ইয়া রব্বাহ। আম কায়ফা ইয়ারজূ ফাদ্বলাকা ফী ইত ক্বিহী মিনহা ফাতাতরূকুহূ ফীহা। হায় হাত মা যালিকাজ যাননুবিক। ওয়া লাল মা’রূফু মিন ফাদ্বলিক। ওয়ালা মুশবিহু লিমা আমালত বিহিল মুওয়াহহিদীনা মিম বির্রিকা ওয়া ইহসানিক। ফাবিল ইয়াকীনি আক্বতাউ লাওলা মা হাকামতা বিহী মিন তা’যীবি জাহিদীক। ওয়া কদায়তা বিহী মিন ইখলাদ মুয়া’নিদীক। লাজা’আলতান নারা কুল লাহা বারদাও ওয়া সালামা। ওয়া মাকানা লিআহাদিন ফীহা মাক্বাররাও ওয়ালা মুক্বামা। লাকিন্নাকা তাক্বাদ্দাসাত আসমায়ুক আক্বসামতা আন তামলাআহা মিনাল কাফিরীনা মিনাল জিন্নাতি ওয়ান নাসি আজমা’য়ীন। আন তুখাল্লিদা ফীহাল মু’য়ানিদীন। ওয়া আন্তা জাল্লা সানায়ুকা কুলতা মুবতাদিয়। ওয়া তাত্বাও-ওয়ালতা বিলইন’য়ামী মুতাকাররিমা।

আফামান কানা মুমিনানকামান কানা ফাসিক্বাল লা ইয়াসতাউন। ইলাহী, ওয়া সাইয়্যিদী। ফা আসআলুকা বিল কুদরাতিললাতি ক্বদ্দারতাহা। ওয়া বিল ক্বাদ্বিয়্যাতিল লাতী হাতাম তাহা ওয়া হাকাম তাহ। ওয়া গ্বালাবতা মান আলাইহী আজরাইতাহা। আন তাহাবা লি ফি হাযিহিল লায়লাহ। ওয়া ফি হাযিহিস সায়াহ। কুল্লা জুরমিন আজরামতুহু ওয়া কুল্লা যাম্বিন আযনাবতুহু। ওয়া কুল্লা ক্বাবিহিন আসরারতুহু ওয়া কুল্লা জাহলিন আমিলতুহ। কাতামতুহু আও আয়লানতুহু আখফায়তুহু আও আযহারতুহু। ওয়া কুল্লা সাইয়্যিআতিন আমারতা বিইসবাতিহাল কিরামাল কাতিবিন। আল্লাযিনা ওয়াক কালতাহুম বিহিফজি মা ইয়াকুনু মিন্নী ওয়া জাআলতাহুম শুহুদান আলায়্যা মায়া জাওয়ারিহি। ওয়া কুন্তা আন্তার রাক্বিবা আলায়্যা মিন ওয়ারায়িহিম। ওয়াশ শাহীদা লিমা খাফিয়া আনহুম। ওয়া বিরাহমাতিকা আখফায়তাহ ওয়া বিফাদ্বলিকা সাতারতাহ। ওয়া আন তুওয়াফফিরা হাযযি মিন কুল্লি খায়রিন আনযালতাহ। আউ ইহসানীন ফাদ্দালতাহ। আউ বিররিন নাশারতাহ। আউ রিযক্বিন বাসাতত্বাহ। আও যাম্বিন তাগফিরুহ। আও খাত্বায়িন তাসতুরুহ। ইয়া রাব্বী, ইয়া রাব্বী, ইয়া রাব্ব। ইয়া ইলাহী, ওয়া সাইয়্যিদী, ওয়া মাউলায়া ওয়া মালিকা রিক্বক্বি।

ইয়া মান বিইয়াদিহী নাসিয়াতী। ইয়া আলিমান বিদুররী ওয়া মাসকানাতী ইয়া খাবিরান বিফাক্বরী ওয়া ফাক্বিতী। ইয়া রাব্বী, ইয়া রাব্বী, ইয়া রাব্ব। আসআলুকা বিহাক্বক্বিকা ওয়া কুদসিকা ওয়া আজামী সিফাতিকা ওয়া আসমায়িক। আন তাজয়া’লা আওক্বাতী মিনাল লাইলী ওয়ান নাহারী বিযিকরিকা মামু’রাহ। ওয়া বিখিদমাতিকা মাওসুলাহ। ওয়া আমালী ইন্দাকা মাক্ববুলাহ। হাত্তা তাকুনা আমালী ওয়া আওরাদী কুল্লুহা বিরদান ওয়াহিদা। ওয়া হালি ফি খিদমাতিকা সারমাদা। ইয়া সাইয়্যিদী, ইয়া মান আলায়হী মুআও’ওয়ালি ইয়া মান ইলাইহী শাকাওতু আহওয়ালী। ইয়া রাব্বী, ইয়া রাব্বী, ইয়া রাব্ব। কাওয়ি আলা খিদমাতিকা জাওয়ারিহি ওয়াশদুদ আলাল আযিমাতি জাওয়ানিহি। ওয়া হাবলি ইয়াল জিদ্দা ফি খাশিয়াতিক। ওয়াদ্দাওয়ামা ফিল ইত্তিসালি বিখিদমাতিক। হাত্তা আসরাহা ইলায়কা ফী মায়াদী-নিস সাবিক্বিন। ওয়া উসরিয়া ইলায়কা ফিল বারযিন। ওয়া আশতাক্বা ইলা কুরবিকা ফিল মুশতাক্বিন। ওয়া আদনুওয়া মিনকা দুনুওয়াল মুখলিসীন। ওয়া আখাফাকা মুখাফাতাল মুক্বিনীন। ওয়া আজতামীয়া ফি জিওয়ারিকা মায়াল মুমিনিন। আল্লাহুম্মা ওয়া মান আরাদানী বিসূয়িন ফাআরিদহ। ওয়ামান কাদানী ফিক্বিদহ।

ওয়াজ আলনী মিন আহসানী আবীদিকা নাসীবান ইন্দাক। ওয়া আক্বরাবিহিম মানযিলাতাম মিনকা ওয়া আখাসসিহিম যুলফাতান লাদায়ক। ফা ইন্নাহু লা ইয়ুনালু যালিকা ইল্লা বিফাদ্বলিক। ওয়া জুদলী বিজুদিক ওয়াত্বিফ আলায়্যা বিমাজদিক। ওয়াহফাজনী বিরাহমাতিক ওয়াজআল লিসানী বিযিকরিকা লাহিজা। ওয়া ক্বালবী বিহুব্বিকা মুত্যায়ামা ওয়া মুন্না আলায়্যা বিহুসনী ইজাবাতিক। ওয়া আক্বিলনী আসরাতী ওয়াগ্বফির যাললাতী। ফা ইন্নাকা ক্বাদায়তা আলা ইবাদিকা বি ইবাদাতিক। ওয়া আমারতাহুম বিদুআইকি ওয়া দ্বামিনতা লাহুম ইজাবাহ। ফা ইলাইকা ইয়া রাব্বী নাসাবতু ওয়াজহী ওয়া ইলাইকা ইয়া রাব্বী মাদাত্তু ইয়াদী। ফাবি ইযযাতিকাস তাজিবলি দুআয়ী ওয়া বাললিগ্বনী মুনাইয় ওয়ালা তাক্বতা মিন ফাদ্বলিকা রাজাঈ। ওয়াফফিনি শাররাল জিন্নী ওয়াল ইনসী মিন আদাঈ। ইয়া সারীআর রাদ্বা। ইগ্বফিরলি লিমাল লা ইয়ামলিকু ইলাদ দোয়া। ফাইন্নাকা ফাআলুল লিমা তাশা। ইয়া মানিসমুহু দাওয়া। ওয়া যিকরুহু শিফা। ওয়া ত্বায়াতুহু গ্বিনায় ইরহাম মাররাসু মালিহির রাজা ওয়া সিলাহুহুল বুকা। ইয়া সাবিগ্বান নিয়াম ইয়া দাফিয়ান নিক্বাম। ইয়া নুরাল মুসতাও হিসীনা ফিয যুলাম। ইয়া আলিমাল লা ইয়ু আল্লাম সাল্লি আলা মুহাম্মাদিও ওয়া আলি মুহাম্মাদ। ওয়াফআল বিমা আনতা আহলুহ। ওয়া সাল্লাল্লাহু আলা রসুলিকা। ওয়াল আয়িম্মাতিল মাইয়ামিনাল মিন আলিহী ওয়া সাল্লামা তাসলিমান কাসীরা।

হে আল্লাহ আমি তোমার কাছে আকুতি জানাই তোমার‘ রহমত’ -এর উসিলায় যা সমস্ত কিছুকে পরিবৃত করে রেখেছে আর তোমার পরাক্রমের উসিলায় যা দিয়ে তুমি সমস্ত কিছুকে পদানত করো এবং যার কাছে সমস্ত বস্তুনিচয় আনত হয় ও আনুগত্য প্রদর্শন করে এবং তোমার প্রতাপের উসিলায় যা দিয়ে তুমি সমস্ত কিছুকে বিজিত করেছো

এবং তোমার মহামর্যাদার উসিলায় যার সম্মুখে কোন কিছুই দাঁড়াতে পারে না এবং তোমার অপার মহিমার উসিলায় যা সমস্ত কিছুর উপর প্রাধান্য বিস্তার করে আছে এবং তোমার শাসনের উসিলায় যা সমস্ত কিছুর উপর কর্তৃত্বশীল এবং তোমার আপন সত্তার উসিলায় যা সমস্ত কিছু ধ্বংস হয়ে যাবার পরও স্থায়ী থাকবে

এবং তোমার নামসমূহের উসিলায় যা সমস্ত কিছুর উপর তোমার ক্ষমতা প্রকাশ করে এবং তোমার মহাজ্ঞানের উসিলায় যা সৃষ্টিজগতকে পরিবৃত করে রেখেছে এবং তোমার পবিত্র সত্তার নুরের উসিলায় যা সমস্ত কিছুকে আলোকিত করেছে হে নুর ! হে পবিত্রময় ! হে তুমি যে অনাদিকাল হতে বিরাজমান। হে তুমি যিনি সবকিছুর পরিসমাপ্তি

হে আল্লাহ ! আমার ঐ সমস্ত পাপ ক্ষমা করে দাও যা ( গোনাহ থেকে ) সংযমের বাঁধ ভেঙ্গে দেয় হে আল্লাহ ! আমার ঐ সমস্ত পাপ ক্ষমা করে দাও যা দুর্যোগ ডেকে আনে হে আল্লাহ ! আমার ঐ সমস্ত পাপ ক্ষমা করে দাও যা তোমার নেয়ামতসমূহকে ( গজবে ) পরিবর্তন করে দেয় হে আল্লাহ ! আমার ঐ সমস্ত পাপ ক্ষমা করে দাও যা দো য়া কবুল হওয়ার পথে প্রতিবন্ধক হয়ে দাঁড়ায়

হে আল্লাহ ! আমার ঐ সমস্ত পাপ ক্ষমা করে দাও যা বিপদ ( বা কষ্ট ) ডেকে আনে হে আল্লাহ ! আমি যত গোনাহ করেছি সব ক্ষমা করে দাও এবং ভুল বশত : করা সকল ত্রুটি ক্ষমা করে দাও হে আল্লাহ ! আমি তোমাকে স্মরণের ( জিকর ) মাধ্যমে তোমার নৈকট্য লাভের সাধনা করি আমি তোমাকেই তোমার কাছে শাফায়াতের জন্য উপস্থিত কর

এবং আমি তোমার অনুগ্রহ নিয়ে তোমার কাছেই প্রার্থনা করছি আমাকে তোমার নৈকট্যেরও নিকটবর্তী করে নাও এবং তোমাকে কিভাবে কৃতজ্ঞতা জানাবো আমাকে শিখিয়ে দাও এবং তোমার প্রতি মনোযোগ ও স্মরণকে আমার অন্তরে উদ্ভাসিত করো হে আল্লাহ ! আমি তোমার কাছে নিবেদন জানাই পূর্ণ আনুগত্যে , বিনয়াবনত চিত্তে ও ভীত - বিহ্বল অন্তরে যেন আমার প্রতি তুমি ক্ষমাশীল ও দয়ার্দ্র হও এবং তোমার দেয়া বরাদ্দে খুশী ও পরিতৃপ্ত রাখো এবং আমাকে যে কোন পরিস্থিতিতে বিনম্র ও বিনয়ী রাখো

হে আল্লাহ ! আমি তোমার কাছে প্রার্থনা জানাই এমন এক ব্যক্তির মতো যে চরম সংকটে নিপতিত হয়েছে এবং একমাত্র তোমার দরবারে তার যন্ত্রণা নিবারণের জন্য ভিক্ষা চাচ্ছে এবং তোমার কাছে যে অনন্তকালীন নেয়ামত আছে তা তার আশাকে বহুগুণ বর্ধিত করেছে হে আল্লাহ ! বিশাল তোমার সাম্রাজ্য এবং মহিমান্বিত তোমার মর্যাদা এবং তোমার পরিকল্পনা দৃশ্যাতীত অস্তিত্বজগতে তোমার ক্ষমতা স্পষ্ট , তোমার শক্তি সবকিছুর উপর বিজয়ী , তোমার কর্তৃত্ব সর্বব্যাপী

এবং অসম্ভব তোমার সাম্রাজ্য থেকে পলায়ন হে আল্লাহ ! তুমি ছাড়া আমার পাপ ক্ষমা করার কিংবা আমার ঘৃণ্য কাজগুলো গোপন করে রাখার আর কেউ নেই এবং আমার মন্দ কর্মগুলোকে সদ্গুণে রূপান্তরিত করার জন্যেও তুমি ছাড়া আমার আর কেউ নেই তুমি ছাড়া আর কোন উপাস্য নেই তুমি অতিশয় পবিত্র এবং সমস্ত প্রশংসা তোমারই আমি আমার নিজের উপর জুলুম করেছি এবং আমার এ ধৃষ্টতা জন্মেছে আমার অজ্ঞতার কারণে (পাপ করতে গিয়ে) আমি নির্ভর করেছিলাম আমার প্রতি তোমার অতীত দয়া এবং তোমার অনুগ্রহের উপর

হে আল্লাহ ! আমার কত জঘন্য পাপকে তুমি গোপন করেছো এবং আমার কত কঠিন বিপদকে তুমি সহনীয় করে দিয়েছো এবং কত বিচ্যুতি হতে আমাকে তুমি রক্ষা করেছো , কত নোংরা কাজ হতে আমাকে দুরে রেখেছো এবং আমার অসংখ্য সুন্দর প্রশংসা তুমি চতুর্দিকে ছড়িয়েছো যার উপযুক্ত আমি ছিলাম না। হে আল্লাহ! আমার যাতনা হয়েছে অসহনীয় এবং দুর্দশা অপরিমেয় , অপরাধ প্রবণতা তীব্র অথচ সৎকর্ম নগণ্য

এবং [পার্থিব আসক্তির] শিকল আমাকে ধরাশায়ী করে রেখেছে। আর মিথ্যে আশার মরীচিকা আমাকে আমার কল্যাণ থেকে দুরে রেখেছে এবং দুনিয়া তার মোহন মায়ায় আমাকে আবিষ্ট করেছে এবং আমার আপন সত্তা পরিণত হয়েছে বিশ্বাসঘাতকতা ও ছলনাপ্রবণতার শিকারে , হে আমার প্রভু! তোমার মহত্ত্বের নামে আমি কাতর মিনতি জানাই আমার পাপ ও অপকর্মগুলো যেন আমার দোয়াকে তোমার দুয়ারে পৌঁছুতে বাধাগ্রস্ত না করে এবং তুমি কিছুতেই তোমার জানা আমার গোপন বিষয়গুলো প্রকাশ করে দিয়ে আমাকে অপমানিত করো না

এবং সেসব গোপন অপকর্মের কারণে আমার শাস্তি ত্বরান্বিত করো না আমার ঐসব অপরাধ , পাপাচার , মহা অন্যায় ও অজ্ঞাতবশত: কর্মসমূহ অতিরিক্ত লালসা ও গাফিলতির কারণে হে আল্লাহ! আমি তোমার মহত্ত্বের উসিলায় তোমার কাছে নিবেদন জানাই সর্বাবস্থায় আমার প্রতি করুণাময় হতে এবং প্রতিটি বিষয়ে আমার প্রতি সদয় দৃষ্টি দিতে হে আমার প্রভু! হে আমার প্রতিপালক! তুমি ছাড়া কি আর কেউ আছে যার কাছে আমি বিপদ মুক্তির আবেদন করতে কিংবা আমার সমস্যা অনুধাবনের প্রার্থনা জানাতে পারি?

হে আমার উপাস্য! হে আমার অভিভাবক! তুমি আমার (জীবনে চলার) জন্য বিধান নির্ধারণ করেছো কিন্তু তার পরিবর্তে আমি আমার হীন কামনার দাসত্ব করেছি এবং আমি শত্রুর প্ররোচনার বিরুদ্ধে সতর্ক থাকিনি সে আমাকে নিরর্থক আশার মায়াজালে বেঁধে নিয়েছে যা আমাকে টেনে নিয়েছে অধঃপাতে এবং নিয়তি তাকে সহায়তা দিয়েছে এ কর্মে এইভাবে আমি তোমার দেয়া ঐ বিধানসমূহের কিছু কিছু বিষয়ে সীমালংঘন করেছি এবং তোমার কিছু কিছু আদেশ অমান্য করেছি; অতএব ঐ সমস্ত বিষয়ে আমার বিরুদ্ধে তোমার (যথার্থ) অভিযোগ রয়েছে এবং আমার প্রতি তোমার রায়ের বিরুদ্ধে কোন অজুহাত আমার নেই

তাই আমি (যথার্থভাবেই) তোমার বিচারের যোগ্য হয়েছি এবং শাস্তির উপযুক্ততা অর্জন করেছি এখন আমি অপরাধে অপরাধী হওয়ার পর তোমার দরবারে এসেছি, হে আমার প্রভু! আমি আমার উপর জুলুম করেছি ক্ষমাপ্রার্থী ও অনুতপ্ত হয়ে ভগ্ন হৃদয়ে নত হয়ে তোমার কাছে ক্ষমা ভিক্ষা করছি তোমার কাছে প্রত্যাবর্তন করছি নতশিরে অপরাধ স্বীকার করে কেননা আমার কৃতকর্মের প্রতিফল ভোগ হতে মুক্তির কোন উপায় আমি দেখছি না । না কোন আশ্রয়স্থল দেখছি যেখানে আশ্রয় নেবো। একমাত্র তুমি যদি আমাকে ক্ষমা না করো এবং তোমার অনন্ত করুণার রাজ্যে প্রবেশের অনুমতি ব্যতিরেকে আমার কোন পথও নেই

হে আল্লাহ! আমার তওবা কবুল করো এবং আমার তীব্র যাতনার উপর দয়ার্দ্র হও এবং আমাকে আমার (পাপকাজের) ভারী শৃঙ্খল থেকে মুক্ত করো হে পালনকর্তা! আমার দুর্বল শরীরের উপর দয়ার্দ্র হও এবং আমার কোমল ত্বক ও ভঙ্গুর হাড়গুলোর উপর করুণা করো যে তুমি আমাকে সৃষ্টি করেছো , আমাকে ব্যক্তিত্ব দিয়েছো এবং আমার সুষ্ঠ প্রতিপালন নিশ্চিত করেছো এবং আমাকে জীবিকা দিয়েছো দয়া করে আমার উপর তোমার সেই পরিমাণ রহমত ও বরকত বর্ষণ পুনরারম্ভ করো , যে পরিমাণ ছিলো আমার জীবনের সূচনালগ্নে হে আমার ইলাহ্! হে আমার মালিক! হে আমার প্রভু! তুমি কি প্রজ্জ্বলিত অগ্নিতে আমাকে দগ্ধ হয়ে শাস্তি পেতে দেখবে যদিও আমি তোমার একত্বে বিশ্বাস স্থাপন করেছি? যদিও আমার অন্তর পরিপূর্ণ তোমার (পবিত্র) জ্ঞানে এবং আমার জিহ্বা বারংবার তোমাকে যিকির করেছে তোমার ভালবাসায় আমার অন্তর হয়েছে প্রেমার্ত? এবং যখন আমি তোমার কর্তৃত্বের কাছে একান্ত হৃদয়ে ভুল স্বীকার করেছি এবং বিনয়ের সাথে আকুল হৃদয়ে তোমাকে প্রতিপালক স্বীকার করেছি

না , যাকে তুমি নিজেই লালন-পালন করেছো তাকে ধ্বংস করা থেকে তুমি অনেক মহান কিংবা যাকে তুমি নিজেই রক্ষণাবেক্ষণ করেছো তাকে তোমার থেকে দুরে তাড়িয়ে দেয়া থেকে তুমি অনেক মহান কিংবা যাকে তুমি আদর-যত্ম করেছো এবং যার প্রতি তুমি দয়ার্দ্র থেকেছো , তাকে যন্ত্রণার মাঝে ত্যাগ করে ফেলে রাখার মতো তুমি নও হে আমার মালিক! আমার ইলাহ্! আমার প্রভু! আমার জানতে ইচ্ছে করে তুমি কি ঐসব মুখকে অগ্নিতে প্রজ্জ্বলিত করবে যেসব মুখ তোমার মহত্ত্বের সম্মুখে সিজদাবনত হয়েছে কিংবা ঐসব জিহ্বাকে যেগুলো একনিষ্ঠভাবে তোমার একত্ব ঘোষণা করেছে এবং সব সময় তোমার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেছে অথবা ঐ সব হৃদয়কে দগ্ধ-বিদগ্ধ করবে যেগুলো দৃঢ়তার সঙ্গে তোমার প্রভুত্বকে মেনে নিয়েছে কিংবা ঐ অন্তরসমূহ আগুনে ফেলবে, যেগুলো জ্ঞান ও পরিচিতির কারণে তোমার প্রতি অনুগত হয়েছে

কিংবা ঐসব অঙ্গ-প্রত্যঙ্গকে প্রজ্জ্বলিত করবে যেগুলো তোমার ইবাদতের স্থানগুলোয় স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে আনুগত্যের জন্য যেতো এবং তোমার প্রতি আস্থা রেখে তোমার ক্ষমা ভিক্ষার কঠোর প্রয়াস চালিয়েছে? এ তোমার কাছ থেকে কিছুতেই আশা করা যায় না কেননা তোমার থেকে এমন কোন বৈশিষ্ট্য আমরা দেখিনি হে দয়াবান হে প্রতিপালক! তুমি তো জানো যে এ দুর্বলের জন্য এই দুনিয়ার সামান্য কষ্ট ও শাস্তিই কত অসহনীয় আর সেখানে যা ঘটবে কি ভয়ানক অবস্থা হবে তার অধিবাসীদের উপর যদিও পৃথিবীর কষ্ট ও আযাব স্বল্পস্থায়ী সামান্য ও দ্রুত নিঃশেষ হয়ে যায় তাহলে আমি কেমন করে পরকালের কষ্ট আর সেখানকার শাস্তি সইবো যে শাস্তির মেয়াদ দীর্ঘ, যেখানে অনন্তকাল অবস্থান করতে হবে যার অধিবাসীদের থেকে শাস্তি কমানো হবে না কেননা এ শাস্তি একমাত্র তোমার ক্রোধ ও কঠোর ন্যায়বিচারের পরিণতি যা আসমান ও জমিন সহ্য করতে অক্ষম ?

হে প্রভু! তবে আমার কি হবে, আমি যে তোমার দুর্বল হীন বান্দা ক্ষুদ্র , নগণ্য ও ম্রিয়মান দাসানুদাস? হে আমার উপাস্য! আমার মালিক! আমার প্রভু! আমার পালনকর্তা! কোন্ বিষয়ে আমি তোমার কাছে অভিযোগ জানাবো আর কোনটা নিয়ে আমি অশ্রু ঝরাবো, আর বিলাপ করবো শাস্তির যাতনা ও তার তীব্রতার জন্য নাকি শাস্তির মেয়াদের দীর্ঘতার জন্যে? অতএব যদি তুমি আমাকে তোমার শত্রুদের সাথে শাস্তি দিতে নিয়ে যাও এবং তোমার আযাবভোগকারী লোকদের সাথে আমাকেও একত্র করো আর তোমার প্রেমিক ও অলী-আওলীয়াদের কাছ থেকে আমাকে পৃথক করে নাও তাহলে হে আমার উপাস্য! হে আমার মালিক! হে আমার অভিভাবক! হে প্রতিপালক! আমি তোমার এ শাস্তি সয়ে নেবো , কিন্তু তোমার থেকে এ বিচ্ছিন্নতা আমি কীভাবে সহ্য করবো? কিংবা ধরা যাক আমি তোমার আগুনের প্রজ্জ্বলন সইতে পারলাম কিন্তু কেমন করে আমি তোমার ক্ষমা ও দয়ার বঞ্চনা সইব? কেমন করে আমি আগুনের মাঝে বসবাস করবো যখন তোমার ক্ষমার উপর ভরসা করে আমি আশায় বুক বেঁধেছি ?

হে আমার প্রভু! আমার অভিভাবক! তোমার মহামর্যাদার শপথ আমি বিশ্বস্ত অন্তরের শপথ করে বলছি , তুমি যদি দোজখের আগুনের মধ্যেও আমার বাক্শক্তি রক্ষা কর তাহলেও আমি সেখান থেকে একজন দৃঢ় আশাবাদীর মতো আশা নিয়েই তোমার কাছে কাতর আকুতি জানাতে থাকবো আমি তোমার কাছে একজন সহায়হীনের মতোই সাহায্য প্রার্থনা করবো একজন নিঃস্ব ব্যক্তির মতোই আমি তোমার কাছে আকুল হয়ে কাঁদবো আর তোমাকে ডাক ছেড়ে বলবো হে মু’মিনদের অভিভাবক তুমি কোথায় হে সাধকদের সাধনার চুড়ান্ত লক্ষ্য, হে সাহায্য প্রার্থীদের সাহায্যকারী হে সত্যপথিকদের প্রাণপ্রিয় প্রেমিক, হে জগতসমূহের প্রভু, কোথায় তুমি? হে খোদা! তুমি সমস্তকিছু থেকে অতিশয় পবিত্র আর সকল প্রশংসা একমাত্র তোমারই, তুমি কি একবারও ফিরে দেখবে না যে, একজন আত্মসমর্পণকারী দাস তার অবাধ্যতার কারণে দোযখের আগুনে বন্দী এবং অন্যায় আচরণের কারণে এর শাস্তি ভোগ করছে আর পাপ ও অপরাধের কারণে সে জাহান্নামের বিভিন্ন স্তরের মধ্যে বন্দী হয়ে আছে তোমার দয়ার উপর দৃঢ় আস্থা নিয়ে তোমার প্রতি সুতীব্র আবেদন জানাচ্ছে তোমার তাওহীদে দৃঢ় বিশ্বাসী ব্যক্তির মতো তোমাকে ডাকছে এবং তোমার প্রভুত্বের প্রতি ভরসা করে তোমার প্রতি চেয়ে আছে, হে আমার অধিকর্তা!

তোমার অতীত ক্ষমা , অনুকম্পা ও রহমতের উপর পূর্ণ ভরসা রাখার পরও কেমন করে সেই বান্দা কঠিন আযাবের মাঝে নিমজ্জিত থাকবে? কিংবা কেমন করে দোযখের আগুন তাকে কষ্ট দিবে যখন সে তোমার মহত্ব ও দয়ার প্রতি বুক বেঁধে আছে? কিংবা কেমন করে দোযখের আগুনের লেলিহান শিখায় সে প্রজ্বলিত হবে অথচ তুমি তার আর্তনাদ শুনতে পাবে? এবং আগুনের মধ্যে তাকে দেখতে পাবে তাহলে কিভাবে আগুনের শিখা তাকে গ্রাস করে নিবে? অথচ তুমি তো জানো সে কি ভীষণ দুর্বল তাহলে কিভাবে সে দোযখের স্তরগুলোর চাপে নিষ্পিষ্ট হতে থাকবে? তুমি তো তার নিষ্ঠার কথা জানো তাহলে কেমন করে দোযখের প্রহরীরা তাকে কষ্ট দেবে? অথচ সে কেবলই ডাকছে‘ ইয়া রব্ব’!‘ ইয়া রব্ব’!

কেমন করে তুমি তাকে ফেলে রাখবে (দোযখের মাঝে) যখন তার দৃঢ় বিশ্বাস যে , তোমার অপার করুণা তাকে এখান থেকে মুক্ত করবে? হায়! এমনটা তোমার কাছে কখনো আশা করা যায় না তোমার করুণার রূপও এমনটা নয় কিংবা তোমার একত্বে বিশ্বাসীদের প্রতি তুমি যে করুণা ও অনুগ্রহ প্রদর্শন করো তার সাথেও এর কোন মিল নেই অতএব আমি নিশ্চিত হয়ে ঘোষণা করছি যে , যদি তুমি অবিশ্বাসীদের জন্য শাস্তি নির্ধারণ না করতে এবং তোমার শত্রুদের আবাস হিসাবে দোযখকে নির্ধারিত না করতে তাহলে তুমি দোযখকে শীতল ও প্রশান্তিময় করে তুলতে এবং কোন মানুষকেই দোযখে থাকতে ও বসবাস করতে হতো না; অথচ পবিত্র তোমার নামসমূহ তুমি শপথ করেছো যে অবিশ্বাসীদের দিয়ে দোযখ পূর্ণ করবে জ্বিন ও মানুষের মধ্যে যারা অবিশ্বাসী এবং একে তোমার বিরুদ্ধবাদীদের চিরস্থায়ী নিবাসে পরিণত করবে

আর মহিমান্বিত তোমার গুণাবলী তুমি নিজেই সূচনালগ্নে তোমার অপার অনুগ্রহে তুমি ঘোষণা করেছো, সমগ্র সৃষ্টিকে তুমি নেয়ামত ও করুণা দিয়েছো একজন মুমিন আর একজন দুর্নীতিপরায়ণ মানুষ কি সমান? তারা সমান হতে পারে না হে আমার প্রভু ও অভিভাবক! তোমার কাছে আমি প্রার্থনা করছি তোমার ঐ শক্তির নামে যা সমগ্রবিশ্বের ভাগ্য নির্ধারণ করে এবং তোমার চুড়ান্ত ও কার্যকরী শক্তির নামে এবং যা দ্বারা তুমি সবকিছুর উপর সেই সিদ্ধান্ত কার্যকর কর দয়া করে আমাকে এই রাতের এই প্রহরে ক্ষমা করে দাও আমি যেসব অপরাধে অপরাধী এবং যেসব পাপে পাপী হয়েছি সেই সমস্ত ঘৃণ্য কাজের জন্য যা আমি গোগন রেখেছি , সেই সমস্ত প্রকাশ্য ও অপ্রকাশ্য অপকর্মের জন্য যা আমি করেছি অন্ধকারে কিংবা দিবালোকে এবং যা স্বীকার কিংবা অস্বীকার করেছি এবং সেই সকল মন্দ কাজের জন্য যা লিপিবদ্ধ হয়েছে সম্মানিত লিপিকারদের দ্বারা যাদের তুমি আদেশ করেছো যাদের তুমি দায়িত্ব দিয়েছো আমার সমস্ত ক্রিয়া-কর্ম লিপিবদ্ধ করতে এবং তাদেরকে তুমি নিয়োগ করেছো আমার শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের মতো আমার কার্যকলাপের সাক্ষী হতে এবং ঐসকল ফেরেশতাদের উর্ধ্বে তুমি নিজেই আমার কার্যকলাপের মহাপর্যবেক্ষক এবং তোমার অশেষ করুণায় তুমি যেসব মন্দ কর্ম ওদের কাছে গোপন রাখো তার সবই তো তোমার কাছে পরিষ্কার এবং তোমার মহত্বের দ্বারা পরিবৃত করেছো [আমার অপরাধগুলো] এবং আমাকে একটি বিরাট অংশ দান করো

তোমার দেওয়া প্রতিটি কল্যাণ হতে এবং প্রতিটি সুমহান অনুগ্রহ এবং যেসব কল্যাণ তুমি প্রকাশ ঘটিয়েছো ও প্রতিটি জীবিকা যা তুমি বৃদ্ধি করেছো এবং যেসব অপরাধ তুমি ক্ষমা করবে ও ত্রুটিসমূহ তুমি গোপন করে রাখবে “ ইয়া রব্ব”!“ ইয়া রব্ব”!“ ইয়া রব্ব”! হে উপাস্য প্রভু! হে মনিব! হে মাওলা! হে আমার মুক্তির মালিক হে যিনি আমার ভাগ্য নিয়ন্ত্রক হে যিনি আমার যাতনা ও নিঃস্বতা সম্পর্কে পরিজ্ঞাত , যিনি আমার দুঃস্থতা ও অনাহার সম্পর্কে পূর্ণ সচেতন “ ইয়া রব্ব”!“ ইয়া রব্ব”!“ ইয়া রব্ব”! তোমার মহামর্যাদা ও বিশুদ্ধ সত্তা এবং পরিপূর্ণ নিখুঁত গুণাবলী ও নাম সমূহের উসিলায় আমি তোমার কাছে মিনতি করছি আমার সমস্ত প্রহর , দিবা ও রাত্রি যেন তোমাকে স্মরণের মধ্য দিয়ে অতিবাহিত হয় এবং একাধারে যেন তোমার উপাসনায় থাকতে পারি এবং আমার সকল কর্মকে তোমার গ্রহণযোগ্য করে তোলো যেন আমার আচরণ ও কথোপকথন সবই একই লক্ষ্যে বিশুদ্ধভাবে তোমার জন্যই সম্পাদিত হয় এবং আমার সমগ্রজীবন যেন ব্যয়িত হয় তোমার আনুগত্য চর্চায় হে আমার মালিক! যার উপর আমার সমস্ত ভরসা, যার কাছে আমি আমার সমস্ত দুর্দশার কথা খুলে বলি “ইয়া রব্ব”! “ইয়া রব্ব”! “ইয়া রব্ব”!

তোমার দাসত্বের জন্য আমার দেহকে শক্তিশালী করে তোলো এবং লক্ষ্যের প্রতি আমার মনোবলকে দৃঢ় রাখো; আর আমার মধ্যে প্রদান কর খোদাভীতি এবং সর্বক্ষণ তোমার খেদমতের তীব্র আকাঙ্খা যেন আমি তোমাকে আনুগত্যের ক্ষেত্রে পূর্ববর্তীদের চেয়ে অগ্রগামী হয়ে তোমার পানে অগ্রসর হতে পারি এবং তোমার দিকে ধাবমান সকল দ্রুতগামীর চেয়ে দ্রুততর তোমার কাছে পৌঁছাতে পারি আর যারা একাগ্রনিষ্ঠায় তোমার নৈকট্য লাভ করেছে তাদের মতোই যেন আমি নিজেকে তোমার নৈকট্য লাভের সাধনায় নিয়োজিত করতে পারি এবং বিশুদ্ধ ব্যক্তিদের মতোই যেন আমি তোমার নৈকট্যপ্রাপ্ত হতে পারি এবং বিশ্বস্ত মনের অধিকারীগণ যেভাবে তোমাকে ভয় করে আমিও যেন সেভাবে ভয়ে চলতে পারি এবং আমি যেন মুমিনদের সাথে তোমার অপার করুণার ছায়াতলে থাকতে পারি হে আল্লাহ! যে আমার অনিষ্ট চায় তুমি তারই অনিষ্ট কর! আর যে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে তাকেই ষড়যন্ত্রের শিকারে পরিণত কর! এবং আমাকে তোমার শ্রেষ্ঠ দাসদের সঙ্গে স্থান দান কর যা তোমার অনুগ্রহ ছাড়া অর্জন সম্ভব নয় এবং আমাকে দান কর তোমার সর্বনিকটতম দাসদের ও একান্ত বিশেষ বান্দাদের অবস্থান নিশ্চয় তোমার অনুগ্রহ ও করুণা ব্যতীত এস্থান লাভ করা কারো পক্ষে সম্ভব নয় তোমার অনুগ্রহ থেকে আমাকে [ক্ষমা] দান কর এবং তোমার নিঃশর্ত করুণা থেকে আমাকে বঞ্চিত করো না এবং তোমার অপার করুণায় আমাকে [দুনিয়া ও আখেরাতে] রক্ষা কর এবং আমার জিহ্বাকে সর্বক্ষণ তোমার গুণকীর্তনে পরিচালিত করো এবং আমার অন্তর যেন তোমার প্রেমে কাতর ও অস্থির হয়ে ওঠে করুণা কর আমার প্রতি একটি দয়ার্দ্র প্রত্যুত্তোর দিয়ে আমার পদস্খলনগুলো মুছে দাও এবং আমার ত্রুটিগুলো মার্জনা করে দাও! কেননা তুমিই তো তোমার বান্দাদের জন্য দয়া করে নির্ধারণ করেছো উপাসনাকে আদেশ করেছো প্রার্থনা জানাতে এবং নিশ্চয়তা দিয়েছো এসবের জবাব দানের তাই তোমার পানেই হে প্রতিপালক আমি মুখ ফিরিয়েছি এবং তোমার দিকে ভিক্ষার হাত উঠিয়েছি হে প্রতিপালক অতএব তোমার মহামর্যাদার উসিলায় আমার দোয়া কবুল কর এবং আমার আকাঙ্খা পূর্ণ কর। কিছুতেই আমাকে হতাশ করো না এবং তুমি আমায় রক্ষা কর জ্বীন ও মানুষের মধ্যে যারা আমার শত্রু তাদের অনিষ্ট হতে হে [প্রভু ] যে তুমি দ্রুত সন্তুষ্ট হও! তাকে তুমি ক্ষমা কর দোয়া ছাড়া যার অন্য কোন সম্বল নেই কেননা তোমার যা ইচ্ছা তুমি তো তাই করতে পার। হে [প্রভু ] যার নামে দূর্গতির মুক্তি যার স্মরণেই সমস্ত কষ্টের প্রতিকার এবং যার আনুগত্যেই সম্পদ রহম করো তার উপর যার মূলধন শুধু আশা আর অবলম্বন শুধুই কান্না হে সমস্ত নেয়ামতের পূর্ণতাদানকারী ও সমস্ত দুর্যোগের ত্রাণকর্তা হে অন্ধকারে পথভ্রান্ত একাকীদের দিশা আলোক! হে সর্বজ্ঞ! যাকে কখনো শিখানো হয়নি! মুহাম্মদ ও তাঁর বংশধরদের উপর শান্তি বর্ষণ করো এবং আমার প্রতি তা-ই করো যা করা তোমাকে মানায় শান্তি বর্ষিত হোক তাঁর রাসূলের উপর এবং তাঁর বংশধরদের মধ্য হতে পবিত্র ইমামদের উপর এবং তাঁদের দান করো অপার ও অসীম প্রশান্তি