— হযরত ফাতিমা বিনতে অাসাদ (সাঃঅাঃ) —
কে এই ফাতিমা বিনতে অাসাদ (অাঃ) ?
উনি হলেন অাসাদ গ্রোত্রের মহিলা ৷
হযরত অালী (অাঃ) এর সম্মানীয়া মা ৷
অর্থাৎ হযরত ইমরান অাবু তালিব (অাঃ) -এর স্ত্রী ৷
এই সম্মানীয়া মহিলা অামাদের পৃথিবীতে কয়েক জন মহাপুরুষ দান করেছেন ৷
হযরত তালিব (অাঃ) ,
হযরত অালী (অাঃ) ,
হযরত জাফর (অাঃ) ,
ও হযরত অাকিল (অাঃ) ৷
এঁরা সকলেই দ্বীন ইসলামের প্রানপুরুষ ৷
জ্ঞান বিচক্ষণতা ও ন্যায়-ইনসাফের প্রতীক ৷
যোগ্য মায়ের যোগ্য সন্তান ৷
ফাতিমা বিনতে অাসাদ (অাঃ) –
মহিয়সী এই মহিলা হযরত মুহাম্মদ (সঃ) – জন্মদাত্রী না হলেও ছিলেন পালনকর্তী ৷
এতিম কিশোর মুহাম্মদ (সঃ) কে মা ফাতিমা বিনতে অাসাদ (আঃ) গভীর মমতায় ও পরম স্নেহে সারা জীবন লালন-পালন করেছেন ৷
অভাব অনটনের মধ্যে নিজেরা না খেয়ে মুহাম্মদ (সঃ) – এর পালনের দায়িত্বে কোনদিন বিন্দু মাত্র ত্রুটি করেন নি ৷
নিজের জন্ম দেওয়া সন্তানদের লালন-পালনের থেকেও মুহাম্মদ (সাঃ) এর লালন-পালনের অগ্রবর্তী ছিলেন ৷
শ্বশুর ও স্বামীর মুখে ….মুহাম্মদ (সাঃ) এর নবী হওয়ার বার্তা শুনে তাঁকে অারও দ্বায়িত্বশীল দেখা গেছে ৷
কিশোর থেকে যুবক হয়ে ওঠা হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) কোনদিন মনে করেন নি যে , উনি চাচী ৷
হযরত ফাতিমা বিনতে অাসাদ (সাঃআঃ) হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) কে এমন ভাবে পালন করেছেন যেন নিজেরই আপন পুত্র ৷
এই মহিলার সৌভাগ্য যে , পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ট নবীকে তিনি কোলেপিঠে করে আপন মমতা ও স্নেহে মানুষ করেছেন ৷
অথচ এই রকম একজন মহিলার কোন ইতিহাস বা কোন বর্ননা অামাদের নিকট নেই ৷
যেমন অাছে মা হালিমার ৷
অথচ মা হালিমার তত্বাবধানে মুহাম্মদে (সাঃ) এর লালনের সময় মাত্র দু-বছর পেয়েছিলেন ৷
অার মা ফাতিমা বিনতে অাসাদ হযরত মুহাম্মদ (সঃ) কে পালনের সময়কাল প্রায় ১০-১৫ বছর ৷
অথচ এই মহিলার কোন অালোচনা নেই ৷
এই মহিলার কোন ইতিহাস নেই ।
এই মহিলার নামটি পর্যন্ত অধিকাংশ মুসলমান জানেই না ।
মা হালিমার নাম মুসলমানগন যতটা জানে ঠিক ততটাই জানে না সম্মানীয়া মা ফাতিমা বিনতে অাসাদ (সাঃআঃ) এর ইতিহাস ৷
কৌতুহল বা প্রশ্নটা হচ্ছে —
কেন এই অবহেলা ?
এই বিষয়ে অামি গবেষনা করে দেখেছি …কয়েকটি মূল কারন অাছে ৷
১) উনি ইমাম অালী (আঃ) এর মা বলে ৷
২) মুসলমানদের নিকট প্র্রচলিত যত ইতিহাস অাছে তার বেশির ভাগ রচনা ও বাজারজাতকরন ও বিপনন করেছে এই বনু উমাইয়ারা ও তাদের ভাড়া করা হাদিস লেখকরা ৷
অার এরা হযরত অালী (আঃ) কে সর্বাধিক ঘৃনা ও শত্রু জ্ঞান করত ৷
৩) মা ফাতিমা বিনতে অাসাদ (আঃ) ছিলেন – হযরত ইমরান (অাঃ) – এর সম্মানীয়া স্ত্রী ৷
জ্বী হ্যা , পাঠক ,
এই সেই ইমরান যাঁর নামে মহান আল্লাহ পবিত্র কোরআনে সুরা – আলে ইমরান নাজিল করেছেন ।
জ্বী হ্যা , পাঠক ,
এই সেই ইমরান – যে ইমরানের ঔরসজাত বংশধর থেকে মহান আল্লাহ ” ইমামত ” ধারার পবিত্র বার জন ইমাম (আঃ) গনকে নির্বাচিত করেছেন ।
এই সেই ইমরান যিনি হযরত অাবু তালিব (আঃ) নামে অধিক পরিচিত ৷
যেহেতু অাবু তালিবকে বেশীর ভাগ মুসলমানরা কাফের বলে গালি (জুলুম) দেয় , সেহেতু তাঁর স্ত্রীকেও অবহেলা করা হয়েছে ৷
অামাদের দায়িত্ব –
যারা নিজেকে ঈমানদার মুমিন বলে দাবী করেন , তাদের উচিত কোরঅানের সুরা
‘ ইমরান ‘ হযরত অাবু তালিব (আঃ) এর সঙ্গে জড়িত সকলকে গোপন করা ইতিহাসের অধ্যায় থেকে সর্বসম্মুক্ষে তুলে আনা ।
যেহেতু অতীতের মত বর্তমানে একই লড়াই বিদ্যমান –
ইমরান তথা অাবু তালিবের বংশ
বনাম
অাবু সুফিয়ানের বংশ ৷
যে আবু সুফিয়ান ইতিপূর্বে ইসলামের প্রথম শহীদ হযরত হামযা (রাঃ) এর পবিত্র কবরে লাথি মেরেছে –
সেই আবু সুফিয়ানের বংশ আজ জান্নাতুল বাকীকে ধ্বংস করে দিয়েছে ।
যে অাবু সুফিয়ানের বংশ অাজ ইতিমধ্যে ওহাবীয়াত নামে পবিত্র ক্বাবা গৃহ দখল করে অাছে ৷
SKL