ন্যায় পথে চলার লোকের স্বল্পতার জন্য ভীত না হওয়ার উপদেশ
হে জনমান্ডলী, ন্যায় পথের অনুসারীর সসংখ্যাল্পতায় তোমরা বিস্মিত হয়ো না। কারণ (এ দুনিয়াতে) মানুষ। শুধু সেই টেবিলের পাশে ভিড় জমায় যাতে অনেক কিছুর মধ্যে ভক্ষণীয় জিনিস অল্প কিন্তু ক্ষুধা চির অতৃপ্ত।
হে জনমান্ডলী, নিশ্চয়ই, যে বিষয় মানুষকে একত্রিত করে তা হলো ভালো অথবা খারাপের জন্য তাদের ঐকমত্য অথবা অনৈকমত্য। ছামুদ’ জাতির এক ব্যক্তি উস্ত্রীহত্যা করেছিল; কিন্তু আল্লাহ তাদের সকলকে শান্তি দিয়েছিলেন। কারণ তারা সকলেই লোকটির গৰ্হিত কাজের প্রতি মৌন সম্মতি প্ৰদৰ্শন করেছিল। তাই মহিমান্বিত আল্লাহ বলেন, “তারপর তারা ওটার পায়ের শিরা কেটে দিয়েছিল এবং পরিণামে তারা অনুতপ্ত হলো” (কুরআন— ২৬ ঃ ১৫৭)। এরপর তাদের ভূমি তলিয়ে গিয়ে কমে গিয়েছিল। যেমন করে লাঙ্গলের ফলা আকৰ্ষিত ভূমিকে ভেদ
করে। হে জনমণ্ডলী, যে ব্যক্তি হেদায়েতের সুস্পষ্ট পথে চলে সে পানির ঝরনার ধারে পৌছতে পারে এবং যে তা পরিত্যাগ করে সে পানিবিহীন মরুভূমিতে ঘুরে বেড়ায়।
১। প্রাচীন আরবে খৃষ্টপূর্ব ৭ম হতে ৪র্থ শতাব্দীর মধ্যে ছামুদ নামক একটা গােত্র বা গোত্রসমষ্টি বাস করতো। হিজাজ ও সিরিয়ার মধ্যবতীর্ণ আল-কুরা উপত্যকায় এ জাতি বসবাস করতো। সালিহ নামক একজন নবিকে আল্লাহ তাদের হেদায়েতের জন্য প্রেরণ করেছিলেন। আল্লাহ বলেনঃ ছামুদ জাতির কাছে তাদের ভ্রাতা সালিহ-কে পাঠিয়েছিলাম । তিনি বলেছিলেন, “হে আমার কওম, তোমরা আল্লাহর ইবাদত কর । তিনি ব্যতীত তোমাদের অন্য কোন ইলাহ নেই । তোমাদের জন্য তোমাদের রবের কাছ থেকে স্পষ্ট নিদর্শন এসেছে । আল্লাহর এ উল্পী তোমাদের জন্য একটা নিদর্শন । একে আল্লাহর জমিতে চরে খেতে দাও, একে কোন ক্লেশ৷
দিও না, দিলে মমর্ভুত শাস্তি তোমাদের ওপর আপতিত হবে । এবং স্মরণ করা, আদি জাতির পর তিনি তোমাদেরকে তাদের স্থলাভিষিক্ত করেছেন । তিনি তোমাদেরকে
পৃথিবীতে এমনভাবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন যে, তোমরা সমতল ভূমিতে প্রাসাদ ও পাহাড় কেটে বাসগৃহ নিৰ্মাণ করছে । সুতরাং আল্লাহর অনুগ্রহ স্মরণ করা এবং পৃথিবীতে ফেতনা সৃষ্টি করো না । তার সম্প্রদায়ের দাম্ভিক প্রধানেরা ইমানদারগণকে দুর্বল মনে করে বললো, “তোমরা কি জানো যে, সালিহ্ আল্লাহ কর্তৃক প্রেরিত? তারা বললো, তার প্রতি যে বাণী প্রেরিত হয়েছে আমরা তাতে বিশ্বাসী /* দাম্ভিকেরা বললো, তোমরা যা বিশ্বাস কর আমরা তা প্ৰত্যাখ্যান করি।” । এরপর তারা সেই উল্লী বধ করে এবং আল্লাহর আদেশ অমান্য করে। এবং বলে, “হে সালিহ! তুমি রাসুল হলে আমাদেরকে যে ভয় দেখিয়েছে তা আনয়ন কর ।” এরপর তারা ভূমিকম্প দ্বারা আক্রান্ত হলো, ফলে তাদের প্রভাত হলো নিজগৃহে মুখ থুবড়ে পড়া অবস্থায় । তারপর তিনি তাদের কাছ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়ে বললেন, “আমি তো আমার রবের বাণী তোমাদের কাছে পৌছে দিয়েছিলাম, কিন্তু তোমরা তো হিতাকাঙ্খীদেরকে পছন্দ করনা’ (কুরআন – ৭.৪৭৩-৭৯) ছামুদ সম্প্রদায় সতর্ককারীকে মিথ্যাবাদী বলেছিল । তারা বলেছিলো আমরা কি আমাদের মধ্য থেকেই এক ব্যক্তিকে অনুসরণ করবো? তা হলে তো আমরা বিপথগামী ও উন্মাদ বলে গণ্য হবো / আমাদের মধ্যে কি তার প্রতি প্ৰত্যাদেশ হয়েছে? না , সে তো একজন মিথ্যাবাদী ও দাম্ভিক” । আগামীকাল তারা জানবে, কে মিথ্যাবাদী ও দাম্ভিক / আমি তাদের পরীক্ষার জন্য পাঠিয়েছি। এক ট্ৰাষ্ট্রী; অতএব, তুমি তাদের আচরণ লক্ষ্য কর এবং ধৈর্যশীল। হও । এবং তাদেরকে জানিয়ে দাও যে, তাদের মধ্যে পানি বন্টন নির্ধারিত এবং পানির অংশের জন্য প্রত্যেকে উপস্থিত হবে পালাক্রমে । এরপর তারা তাদের এক সঙ্গীকে আহ্বান করলো, সে ট্ৰঞ্জীটিকে হত্যা করলো। কী কঠোর ছিল আমার শাস্তি ও সতর্কবাণী । আমি তাদের ওপর আঘাত হেনেছিলাম এক মহানাদ দ্বারা; ফলে তারা হয়ে গেল খোয়াড়নির্মাণকারীর বিখন্ডিত শুষ্ক শাখা-প্ৰশাখার মতো। (৫৪৪২৩-৩১) /