সালাওয়াত

সালওয়াতের অর্থঃ অভিধানে সালওয়াত-এর অর্থ দোয়া”কে বলা হল। আর নামাজে দোয়া সংযুক্ত এই কারণে নামাজকে সালাত বলা হয়।

উম্মায়ে এরফান ও আরেফগণ বলেছে, সালওয়াত আল্লাহ পক্ষ থেকে প্রেরিত একটি আদেশ, এই আদেশে ৫টি জিনিষ নিহিত রয়েছে।

(১) কিরামঃ কিছুসংখ্যক ওলমা হরফ (এলমে আবযাদ) বলে সালওয়াত হল ইসমে আযম। সালওয়াতের

ص কে সামাদ (আল্লাহুম সামাদ) থেকে নেওয়া হল। যা আল্লাহর পবিত্র নাম থেকে রয়েছে।

لলাম কে লতিফ থেকে নেয়া হল। লতিফ হল আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের একটি পবিত্র নাম।

ةতা কে হাদি থেকে নেওয়া হল। আর সেটাও আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের পবিত্র নাম।

অনেক আলেমগণ বলে সালওয়াতে অর্থ হল তাসলিম (আত্মসমর্পণ) হওয়া। সেই বান্দার নিকটে আত্মসমর্পণ করা করে দাও যাতে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন জগৎতের জন্য হাদিওসি খলিফা অর্থ প্রদর্শক ও আলোক বর্তিকা ইত্যাদি বানিয়েছেন।

তার অর্থ মুহাম্মদ ও আলে মুহাম্মদ তারা হলেন পথ-প্রদর্শক হাদি ওলিও খলিফা ও আলোক বর্তিকা।

মুহাম্মাদের অর্থ হল যার বেশি প্রশংসা করা হয়। আর সত্যিকারে মোহাম্মদ ও আলে মুহাম্মাদের প্রশংসা করা উচিত।

এর জন্য বলা মুহাম্মাদ ও আলে মুহাম্মাদে (সাঃ) ওপরে বেশী করে দরুদ পড়া। তাদের প্রশংসা সব সময় সর্বজায়গায়। সর্বক্ষণ করা।

সালাওয়াত — আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের পক্ষ থেকে মানুষের জন্য উত্তম উপহার।

সালওয়াত – বেহেস্তের উপহার

সালাওয়াত – রুহকে আলোকিত করে দেয়।

সালাওয়াত – এমন সুগন্ধি মুখমণ্ডল সুগন্ধি করে দেয়।

সালাওয়াত – পুল সিরাতের নূর।

সালাওয়াত – মানুষের শাফায়াতের কারণ

সালাওয়াত – আল্লাহর জিকর

সালাওয়াত – নামাজের পরিপূর্ণতার কারণ।

সালাওয়াত – দোয়ার পরিপূর্ণ ও দোয়া কবুল হওয়ার কারণ।

সালাওয়াত – আল্লাহর নিকট বর্তী হওয়ার কারণ।

সালাওয়াত – স্বপ্নে রাসূলে পাক (সাঃ)-এর জিয়ারাত হওয়ার কারণ।

সালাওয়াত – দোযখের আগুন থেকে রক্ষা পাওয়ার ঢাল।

সালাওয়াত – বেহেস্তে প্রবেশ করার সার্টিফিকেট।

সালাওয়াত – আলামে বারযাখ ও কিয়ামতের দিনে মানুষের সঙ্গী।

সালাওয়াত – সালাওয়াত ত্রিভূবনে মানুষের জামানতকারী।

সালাওয়াত – আল্লাহর পক্ষ থেকে রহমত ও বরকত। ফেরেস্তাদের পক্ষ থেকে গুনাহ থেকে পবিত্র আর মানুষদের পক্ষ থেকে দোয়াও প্রার্থনা।

সালাওয়াত – কিয়ামতের দিনের উত্তম আমাল।

সালাওয়াত – সেই ভারী জিনিষ যা কিয়ামতের দিন আমাল নামার দাড়ি-পাল্লাতে রাখা হবে।