রজব মাসের ফজিলত ও আমল সমূহ

রজব মাসের ফযিলত

হজরত মুসা ইবনে জাফর (আ.) হতে বর্ণিত হয়েছে, যে ব্যক্তি পবিত্র রজব মাসে একদিন রোজা রাখে,সে ব্যাক্তি এক বছর জাহান্নামের আগুন থেকে রক্ষা পায় এবং যে ব্যক্তি তিনদিন রোজা রাখে তার উপর বেহেশত ওয়াজিব হয়ে যায়।

তিনি আরো বলেছেন : রজব বেহেশতের একটি ঝর্ণাধারার নাম; যার (পানি) দুধের চেয়েও সাদা এবং মধুর চেয়ে মিষ্টি। যে ব্যক্তি এ মাসে একদিন রোজা রাখে সে অবশ্যই এ ঝর্ণাধারা হতে পানি পান করবে।

ইমাম সাদিক্ব (আ.) হতে বর্ণিত হয়েছে যে, মহানবী (স.) বলেছেন: ‘রজব মাস আমার উম্মতের এস্তেগফার তথা ক্ষমা প্রার্থনার মাস। অতএব, এ মাসে অত্যাধিক ক্ষমা প্রার্থনা কর, কেননা মহান আল্লাহ্ ক্ষমাশীল ও অত্যন্ত দয়ালু। রজব মাসকে (أصل) বলা হয়, কারণ এ মাসে আমার উম্মতের উপর আল্লাহ তায়ালার  অত্যাধিক রহমত বর্ষিত হয়, অতএব, (أَسْتَغْفِرُ اللهَ وَ أَسْأَلُهُ التَّوْبَةَ) এ যিকরটি অত্যাধিক পাঠ কর।

জনাব সালেম হতে ইবনে বাবেভেই (রহ.) বর্ণনা করেছেন: রজব মাস শেষ হতে কয়েকদিন অবশিষ্ট ছিল, আমি ইমাম সাদিক্ব (আ.) এর সাথে সাক্ষাত করার জন্য যায়। তিনি আমাকে জিজ্ঞেস করলেন: তুমি কি এ মাসে রোজা রেখেছ? আমি বললাম: না হে রাসুলের সন্তান! তিনি বললেন: তোমার এত সওয়াব হাতছাড়া হয়েছে যে, যার পরিমাণ মহান আল্লাহ তায়ালা  ছাড়া আর কেউই জানে না। নিশ্চয়ই এটা মহান আল্লাহ তায়ালার মাস। মহান আল্লাহ একে অন্যান্য মাসের তুলনায় বেশী প্রাধান্য দিয়েছেন, এ মাসের মর্যাদাকে অত্যাধিক বৃদ্ধি করেছেন এবং এ মাসে রোজাদারদের সম্মানিত করাকে নিজের জন্য আবশ্যক করেছেন।

অতঃপর আমি বললাম: হে রাসূল (সা.) এর সন্তান! আমি যদি এ মাসের অবশিষ্ট দিনগুলিতে রোজা রাখি তবে কি ঐ সওয়াবের অধিকারী হতে পারবো? তিনি বললেন: হে সালেম! যে ব্যক্তি এ মাসের শেষ দিনগুলিতে একদিন রোজা রাখে মহান আল্লাহ্ তাকে মৃত্যুপূর্ব যন্ত্রণা, মৃত্যুর পর ভয় এবং কবরের আযাব হতে নিরাপত্তা প্রদান করেন। আর যে ব্যক্তি এ মাসের শেষের দিনগুলির দুদিন রোজা রাখে সে পুলসিরাত সহজেই অতিক্রম করবে। যে ব্যক্তি এ মাসের শেষ দিনগুলির তিনদিন রোজা রাখবে সে কেয়ামত দিবসের বৃহৎ ভয়, সেদিনের তীব্র আতংক হতে নিরাপদ থাকবে… জেনে রাখো, রজব মাসের রোজার জন্য প্রচুর ফজিলত বর্ণিত হয়েছে। এমনও বর্ণিত হয়েছে যে, কেউ যদি এ মাসে রোজা রাখতে সক্ষম না হয় তবে নিন্মোক্ত তসবিহ যেন পাঠ করে, এর মাধ্যমে সে রোজার সওয়াব লাভ করে।

سُبحانَ اللهِ الجَلیل سُبحانَ مَن لا یَنبَغیِ التَسبیحُ اِلّا لَهُ سُبحانَ الاَعَزِّ الاَکرَمِ سُبحانَ مَن لَبِسَ العِزَّ وَ هُوَ لَهُ اَهلٌ سُبحانَ الاِلهِ الجَلیل سُبحانَ الاِلهِ الجَلیل سُبحانَ مَن لا یَنبَغیِ التَسبیحُ اِلّا لَهُ سُبحانَ مَن لا یَنبَغیِ التَسبیحُ اِلّا لَهُ سُبحانَ الاَعَزِّ الاَکرَمِ سُبحانَ مَن لَبِسَ العِزَّ وَ هُوَ لَهُ اَهلٌ.

রজব মাসের বিভিন্ন তসবিহ ও তাহলিল

1.       মহানবী (স.) হতে বর্ণিত হয়েছে, যে ব্যক্তি পবিত্র রজব মাসে ১০০ বার পাঠ করবে

أَسْتَغْفِرُ اللَّهَ الَّذِى لا إِلَهَ إِلا هُوَ وَحْدَهُ لا شَرِیكَ لَهُ وَ أَتُوبُ إِلَیْهِ

যে ব্যাক্তি উক্ত এস্তেগফারটি পাঠ করবে এবং সাদক্বা প্রদান করবে তার উপর মহান আল্লাহ তায়ালার  রহমত ও মাগফিরাত (বর্ষিত হবে), আর যে ব্যক্তি উক্ত এস্তেগফারটি ৪০০ বার পড়বে তাকে আল্লাহ তায়ালা ১০০ শহীদের সমপরিমাণ সওয়াব প্রদান করবেন।

2.      নবী (স.) হতে বর্ণিত হয়েছে : যে ব্যক্তি রজব মাসে এক হাজার বার (لا إله إلا الله) বলবে, মহান আল্লাহ তায়ালা তাকে ১ লক্ষ সওয়াব প্রদান করবেন এবং তার জন্য বেহেশতে ১ শত শহর নির্মাণ করে দিবেন।

3.      সৈয়দ ইবনে তাউস (রহ.) তার গ্রন্থে মহানবী (স.) হতে বর্ণিত একটি রেওয়ায়েত এভাবে উল্লেখ করেছেন যে, রজব মাসে সুরা ইখলাস পাঠের বিষয়ে রাসুল (সা.) ব্যাপক ফজিলতের কথা উল্লেখ করেছেন যে, এ মাসে ১০ হাজার বার বা ১ হাজার বার বা ১০০ বার সুরা ইখলাস তেলাওয়াত করা (অতি উত্তম)। এছাড়া আরো বর্ণিত হয়েছে, যে ব্যক্তি রজব মাসের শুক্রবার দিন ১০০ বার সুরা ইখলাস তেলাওয়াত করবে, কেয়ামতের দিন একটি নূর তাকে বেহেশতের দিকে পথ প্রদর্শন করবে।

4.      সৈয়দ ইবনে তাউস (রহ.)মহানবী (সা.) হতে বর্ণনা করেছেন: কোন ব্যক্তি যদি রজব মাসের শুক্রবারে যোহর ও আসরের নামাজের মধ্যবর্তী সময়ে (দুই রাকাত করে) ৪ রাকাত নামায আদায় করে এবং প্রতি রাকাতে সুরা ফাতিহার পর ৭ বার আয়াতুল কুরসী ও ৫ বার সুরা ইখলাস পাঠ করে, অতঃপর ১০ বার নিন্মোক্ত এস্তেগফার পাঠ করে:

أَسْتَغْفِرُ اللهَ الَّذِى لا إِلَهَ إِلا هُوَ وَ أَسْأَلُهُ التَّوْبَةَ

তাহলে যেদিন হতে এ নামায পড়েছে, সে দিন হতে তার মৃত্যুর দিন অবধি মহান আল্লাহ প্রতিদিন ১ হাজার নেকি প্রদান করবেন, যে সকল আয়াত সে তেলাওয়াত করেছে তার প্রতিটি আয়াতের পরিবর্তে বেহেশতে একটি করে লাল রুবি পাথরের শহর, প্রতিটি অক্ষরের জন্য বেহেশতে একটি করে সাদা পাথরের প্রাসাদ নির্মাণ করবেন, হুরুল আইনের সাথে তার বিবাহ দিবেন এবং তার উপর সন্তুষ্ট থাকবেন।

5.      পবিত্র রজব মাসের প্রতিদিন এ দোয়া পাঠ করা উত্তম, ইমাম জয়নুল আবেদীন (আ.)ও নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করতেন :

یَا مَنْ یَمْلِكُ حَوَائِجَ السَّائِلِینَ وَ یَعْلَمُ ضَمِیرَ الصَّامِتِینَ لِكُلِّ مَسْأَلَةٍ مِنْكَ سَمْعٌ حَاضِرٌ وَ جَوَابٌ عَتِیدٌ اللَّهُمَّ وَ مَوَاعِیدُكَ الصَّادِقَةُ وَ أَیَادِیكَ الْفَاضِلَةُ وَ رَحْمَتُكَ الْوَاسِعَةُ فَأَسْأَلُكَ أَنْ تُصَلِّىَ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِ مُحَمَّدٍ وَ أَنْ تَقضِىَ حَوَائِجِى لِلدُّنْیَا وَ الْآخِرَةِ إِنَّكَ عَلَى كُلِّ شَىْ‏ءٍ قَدِیرٌ.

6.      ইমাম জাফর সাদিক্ব (আ.) হতে নিন্মোক্ত দোয়াটি বর্ণিত হয়েছে :

خَابَ الْوَافِدُونَ عَلَى غَیْرِكَ وَ خَسِرَ الْمُتَعَرِّضُونَ إِلا لَكَ وَ ضَاعَ الْمُلِمُّونَ إِلا بِكَ وَ أَجْدَبَ الْمُنْتَجِعُونَ إِلا مَنِ انْتَجَعَ فَضْلَكَ بَابُكَ مَفْتُوحٌ لِلرَّاغِبِینَ وَ خَیْرُكَ مَبْذُولٌ لِلطَّالِبِینَ وَ فَضْلُكَ مُبَاحٌ لِلسَّائِلِینَ وَ نَیْلُكَ مُتَاحٌ لِلْآمِلِینَ وَ رِزْقُكَ مَبْسُوطٌ لِمَنْ عَصَاكَ وَ حِلْمُكَ مُعْتَرِضٌ لِمَنْ نَاوَاكَ عَادَتُكَ الْإِحْسَانُ إِلَى الْمُسِیئِینَ وَ سَبِیلُكَ الْإِبْقَاءُ عَلَى الْمُعْتَدِینَ اللَّهُمَّ فَاهْدِنِى هُدَى الْمُهْتَدِینَ وَ ارْزُقْنِى اجْتِهَادَ الْمُجْتَهِدِینَ وَلا تَجْعَلْنِى مِنَ الْغَافِلِینَ الْمُبْعَدِینَ وَ اغْفِرْ لِى یَوْمَ الدِّینِ .

7.      ইমাম জাফর সাদিক্ব (আ.) হতে এ দোয়াটিও বর্ণিত হয়েছে :

اللَّهُمَّ إِنِّى أَسْأَلُكَ صَبْرَ الشَّاكِرِینَ لَكَ وَ عَمَلَ الْخَائِفِینَ مِنْكَ وَ یَقِینَ الْعَابِدِینَ لَكَ اللَّهُمَّ أَنْتَ الْعَلِىُّ الْعَظِیمُ وَ أَنَا عَبْدُكَ الْبَائِسُ الْفَقِیرُ أَنْتَ الْغَنِىُّ الْحَمِیدُ وَ أَنَا الْعَبْدُ الذَّلِیلُ اللَّهُمَّ صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِهِ وَ امْنُنْ بِغِنَاكَ عَلَى فَقْرِى وَ بِحِلْمِكَ عَلَى جَهْلِى وَ بِقُوَّتِكَ عَلَى ضَعْفِى یَا قَوِىُّ یَا عَزِیزُ اللَّهُمَّ صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِهِ الْأَوْصِیَاءِ الْمَرْضِیِّینَ وَ اكْفِنِى مَا أَهَمَّنِى مِنْ أَمْرِ الدُّنْیَا وَ الْآخِرَةِ یَا أَرْحَمَ الرَّاحِمِینَ.

8.      হাদীসে বর্ণিত হয়েছে, যে ব্যক্তি রজব মাসের সকালে ও রাতে ৭০ বার ‘আস্তাগফিরুল্লাহ্ ওয়া আতুবু ইলাইহি’ বলে এবং যিকর শেষ হওয়ার পর হাত উঁচু করে বলে: হে আল্লাহ্ আমাকে ক্ষমা করে দাও এবং আমার তওবা গ্রহণ করে নাও তাহলে যদি সে রজব মাসে মারা যায় তবে মহান আল্লাহ তার উপর সন্তুষ্ট থাকবেন এবং পবিত্র রজব মাসের বরকতে (জাহান্নামের) আগুন তাকে স্পর্শ করবে না।

9.      এ মাসে সর্বমোট এক হাজার বার ‘আস্তাগফিরুল্লাহা যুল জালালি ওয়াল ইকরামি মিন জামিয়ীয যুনুবি ওয়াল আসনাম’ পাঠ করা অতীব গুরুত্বপূর্ণ পরম করুণাময় মহান আল্লাহ্ গুনাহসমূহকে ক্ষমা করে দেন।

10.  এ মাসে তিনদিন; বৃহস্পতিবার, শুক্রবার ও শনিবার রোজা রাখা। হাদীসে বর্ণিত হয়েছে, যে ব্যক্তি হারাম মাসসমূহের যে কোন একটিতে এ তিন দিন রোজা রাখে, মহান আল্লাহ তাকে ৯০০ বছরের ইবাদতের সমপরিমাণ সওয়াব দান করেন।

11.   মহানবী (স.) হতে বর্ণিত হয়েছে, যে ব্যক্তি রজব মাসের রাতসমূহের একটিতে (দুই রাকাত করে) ১০ রাকাত এ পদ্ধতিতে নামায আদায় করে: প্রতি রাকাতে সুরা ফাতিহার পর ১ বার সুরা কাফিরুন এবং ৩ বার সুরা ইখলাস পাঠ করে। মহান আল্লাহ তায়ালা তার গুনাহসমূহকে ক্ষমা করে দেন।

রজব মাসের সাধারণ আমল সমূহ

1.       মহানবী (স.) হতে বর্ণিত হয়েছে,যে ব্যক্তি পবিত্র রজব মাসে ১০০ বার

أَسْتَغْفِرُ اللَّهَ الَّذِى لا إِلَهَ إِلا هُوَ وَحْدَهُ لا شَرِیكَ لَهُ وَ أَتُوبُ إِلَیْهِ.

উল্লেখিত এস্তেগফারটি পাঠ করবে এবং সাদক্বা প্রদানের পরে দোয়া করবে (দোয়া শেষে সাদক্বা প্রদান করবে)। তার উপর মহান আল্লাহ তায়ালার  বিশেষ রহমত ও মাগফিরাত বর্ষিত হবে, আর যে ব্যক্তি ৪০০ বার উল্লেখিত এস্তেগফারটি পাঠ করবে আল্লাহ তায়ালা তাকে ১০০ শহীদের সমপরিমাণ সওয়াব দান করবেন।

2.      আল্লাহ তায়ালার  নবী (স.) হতে বর্ণিত হয়েছে : যে ব্যক্তি রজব মাসে এক হাজার বার (لا إله إلا الله) [লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ্] পাঠ করবে, মহান আল্লাহ্ তাকে ১ লক্ষ নেকি দান করবেন এবং তার জন্য বেহেশতে ১০০টি শহর নির্মাণ করবেন।

3.      সৈয়দ ইবনে তাউস (রহ.) তার গ্রন্থে মহানবী (স.) হতে বর্ণিত একটি হাদীস এভাবে উল্লেখ করেছেন যে,(রজব মাসে) সুরা ইখলাস পাঠের বিষয়ে তিনি (স.) ব্যাপক ফজিলতের কথা উল্লেখ করেছেন।  এ মাসে ১০ হাজার বার অথবা ১ হাজার বার অথবা  ১০০ বার সুরা ইখলাস তেলাওয়াত করা (অতি উত্তম)। এছাড়া আরো বর্ণিত হয়েছে, যে ব্যক্তি রজব মাসের শুক্রবার দিন ১০০ বার সুরা ইখলাস পাঠ করবে, কেয়ামতের দিন একটি নুর তাকে বেহেশতের দিকে নিয়ে যাবে।

4.      সৈয়দ ইবনে তাউস (রহ.)মহানবী (স.) হতে বর্ণনা করেছেন : কোন ব্যক্তি যদি রজব মাসে শুক্রবারে যোহর ও আসরের নামাজের মধ্যবর্তী সময়ে (দুই রাকাত করে) ৪ রাকাত নামায আদায় করে এবং প্রতি রাকাতে সুরা ফাতিহার পর ৭ বার আয়াতুল কুরসী ও ৫ বার সুরা ইখলাস পাঠ করে,

অতঃপর ১০ বার পাঠ করতে হবে:

أَسْتَغْفِرُ اللهَ الَّذِى لا إِلَهَ إِلا هُوَ وَ أَسْأَلُهُ التَّوْبَةَ

যেদিন সে এ নামাজটি পড়বে সে দিন থেকে তার মৃত্যুর দিন অবধি মহান আল্লাহ তায়ালা তাকে প্রতিদিন ১ হাজার সওয়াব দান করবেন, যে সকল আয়াত সে তেলাওয়াত করেছে তার প্রতিটি আয়াতের পরিবর্তে বেহেশতে একটি করে লাল রুবি পাথরের শহর, প্রতিটি অক্ষরের জন্য বেহেশতে একটি করে শ্বেত পাথরের প্রাসাদ নির্মাণ করে দিবেন, হুরুল আইনের সাথে তার বিবাহ দিবেন এবং তার প্রতি সন্তুষ্ট থাকবেন।

5.      পবিত্র রজব মাসের প্রতিদিন এ দোয়া পাঠ করা উত্তম, দোয়াটি ইমাম জয়নুল আবেদীন  (আ.)ও পাঠ করতেন :

یَا مَنْ یَمْلِكُ حَوَائِجَ السَّائِلِینَ وَ یَعْلَمُ ضَمِیرَ الصَّامِتِینَ لِكُلِّ مَسْأَلَةٍ مِنْكَ سَمْعٌ حَاضِرٌ وَ جَوَابٌ عَتِیدٌ اللَّهُمَّ وَ مَوَاعِیدُكَ الصَّادِقَةُ وَ أَیَادِیكَ الْفَاضِلَةُ وَ رَحْمَتُكَ الْوَاسِعَةُ فَأَسْأَلُكَ أَنْ تُصَلِّىَ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِ مُحَمَّدٍ وَ أَنْ تَقضِىَ حَوَائِجِى لِلدُّنْیَا وَ الْآخِرَةِ إِنَّكَ عَلَى كُلِّ شَىْ‏ءٍ قَدِیرٌ.

6.      ইমাম সাদিক্ব (আ.) হতে নিম্নোক্ত দোয়াটি বর্ণিত হয়েছে:

خَابَ الْوَافِدُونَ عَلَى غَیْرِكَ وَ خَسِرَ الْمُتَعَرِّضُونَ إِلا لَكَ وَ ضَاعَ الْمُلِمُّونَ إِلا بِكَ وَ أَجْدَبَ الْمُنْتَجِعُونَ إِلا مَنِ انْتَجَعَ فَضْلَكَ بَابُكَ مَفْتُوحٌ لِلرَّاغِبِینَ وَ خَیْرُكَ مَبْذُولٌ لِلطَّالِبِینَ وَ فَضْلُكَ مُبَاحٌ لِلسَّائِلِینَ وَ نَیْلُكَ مُتَاحٌ لِلْآمِلِینَ وَ رِزْقُكَ مَبْسُوطٌ لِمَنْ عَصَاكَ وَ حِلْمُكَ مُعْتَرِضٌ لِمَنْ نَاوَاكَ عَادَتُكَ الْإِحْسَانُ إِلَى الْمُسِیئِینَ وَ سَبِیلُكَ الْإِبْقَاءُ عَلَى الْمُعْتَدِینَ اللَّهُمَّ فَاهْدِنِى هُدَى الْمُهْتَدِینَ وَ ارْزُقْنِى اجْتِهَادَ الْمُجْتَهِدِینَ وَلا تَجْعَلْنِى مِنَ الْغَافِلِینَ الْمُبْعَدِینَ وَ اغْفِرْ لِى یَوْمَ الدِّینِ .

7.      ইমাম সাদিক্ব (আ.) হতে এ দোয়াটিও বর্ণিত হয়েছে:

اللَّهُمَّ إِنِّى أَسْأَلُكَ صَبْرَ الشَّاكِرِینَ لَكَ وَ عَمَلَ الْخَائِفِینَ مِنْكَ وَ یَقِینَ الْعَابِدِینَ لَكَ اللَّهُمَّ أَنْتَ الْعَلِىُّ الْعَظِیمُ وَ أَنَا عَبْدُكَ الْبَائِسُ الْفَقِیرُ أَنْتَ الْغَنِىُّ الْحَمِیدُ وَ أَنَا الْعَبْدُ الذَّلِیلُ اللَّهُمَّ صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِهِ وَ امْنُنْ بِغِنَاكَ عَلَى فَقْرِى وَ بِحِلْمِكَ عَلَى جَهْلِى وَ بِقُوَّتِكَ عَلَى ضَعْفِى یَا قَوِىُّ یَا عَزِیزُ اللَّهُمَّ صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِهِ الْأَوْصِیَاءِ الْمَرْضِیِّینَ وَ اكْفِنِى مَا أَهَمَّنِى مِنْ أَمْرِ الدُّنْیَا وَ الْآخِرَةِ یَا أَرْحَمَ الرَّاحِمِینَ.

8.      হাদীসে বর্ণিত হয়েছে: যে ব্যক্তি রজব মাসের সকালে ৭০ বার ও রাতে ৭০ বার “আস্তাগফিরুল্লাহ্ ওয়া আতুবু ইলাইহি” পাঠ করে এবং যিক্‌র শেষ হওয়ার পর হাতদ্বয়কে উঁচু করে বলে : হে আল্লাহ তায়ালা! আমাকে ক্ষমা করে দাও এবং আমার তওবাকে তুমি কবুল করে নাও। সে যদি রজব মাসে মারা যায় তবে মহান আল্লাহ্ তার উপর সন্তুষ্ট থাকবেন এবং পবিত্র রজব মাসের বরকতে (জাহান্নামের) আগুন তাকে স্পর্শ করবে না।

9.      এ সে সর্বমোট এক হাজার বার “আস্তাগফিরুল্লাহা যুল জালালি ওয়াল ইকরামি মিন জামিয়ীয যুনুবি ওয়াল আসনাম” পাঠ করা অতিব গুরুত্বপূর্ণ, যেন পরম করুণাময় মহান আল্লাহ্ গুনাহসমূহকে ক্ষমা করে দেন।

10.  এ মাসে তিনদিন যথা: বৃহস্পতি, শুক্র ও শনিবার রোজা রাখা। হাদীসে  বর্ণিত হয়েছে, যে ব্যক্তি হারাম মাসসমুহের যে কোন একটিতে এ তিনদিন রোজা রাখে, মহান আল্লাহ্ তাকে ৯০০ বছরের ইবাদতের সমপরিমাণ সওয়াব দান করবেন।

11.   মহানবী (স.) হতে বর্ণিত হয়েছে যে,তিনি বলেছেন: যে ব্যক্তি রজব মাসের প্রত্যেক রাতে (দুই রাকাত করে) নামাজ পড়ে। মহান আল্লাহ তায়ালা  তার গুনাহসমূহকে ক্ষমা করে দেন, তার দোয়াকে কবুল করেন এবং তাকে ৬০টি উমরা হজের সমপরিমাণ সওয়াব দান করেন। নামাজটি পড়ার পদ্ধতি: প্রতি রাকাতে সুরা ফাতিহার পর ৩ বার সুরা কাফিরুন এবং ১ বার সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে। দ্বিতীয় রাকাতটিও অনুরূপভাবে পড়তে হবে। অতঃপর নামাজান্তে হাতদ্বয়কে উচু করে বলতে হবে:

لا اِلهَ اِلا اللّهُ وَحْدَهُ لا شَرِیکَ لَهُ لَهُ الْمُلْک وَ لَهُ الْحَمْدُ یحْیى وَیمیتُ وَهُوَ حَىُّ لا یمُوتُ بِیدِهِ الْخَیرُ وَهُوَ عَلى کلِّشَىْءٍ قَدیرٌ وَاِلَیهِ الْمَصیرُ وَلا حَوْلَ وَلا قُوَّةَ اِلاّ بِاللّهِ الْعَلِىِّ الْعَظیمِ اَللّهُمَّ صَلِّ عَلى مُحَمَّدٍ النَّبِىِّ الاُمِّىِّ وَ آلِهِ.

12.   কেউ যদি  রজব মাসের যে কোন রাতে দুই রাকাত নামাজ পড়ে –এ পদ্ধতিতে: প্রথম রাকাতে সুরা ফাতিহার পরে ১০০ বার সুরা ইখলাস পড়ে। তাহলে আল্লাহ তায়ালা  তাকে ১০০ বছরের রোজার সমপরিমাণ সওয়াব দান করবেন।

13.  কোন ব্যক্তি যদি রজব মাসের প্রত্যেক রাতে (দুই রাকাত করে) ১০ রাকাত নামায আদায় করে এ পদ্ধতিতে: প্রতি রাকাতে সুরা ফাতিহার পর ১ বার সুরা কাফিরুন এবং ৩ বার সুরা ইখলাস। তাহলে আল্লাহ তায়ালা  তার গুনাহ সমূহকে ক্ষমা করে দিবেন।

14.   আল্লামা মজলিসি (রহ.) হজরত আলী  (আ.) থেকে একটি হাদীস বর্ণনা করেছেন। তিনি বলেছেন: কোন ব্যাক্তি যদি রজব, শাবান এবং রমজান মাসে প্রত্যেক দিন ও এবং রাতে সুরা ফাতিহা, আয়াতুল কুরসী, কাফেরুন, ইখলাস, ফালাক ও নাস প্রত্যেকটি ৩ বার করে পাঠ করে এবং অতঃপর বলে:

سُبْحانَ اللّهِ وَالْحَمْدُ لِلّهِ وَلا اِلهَ اِلا اللّهُ وَاللّهُ اَکبَرُ وَلا حَوْلَ وَلا قُوَّةَ اِلاّ بِاللّهِ الْعَلِىِّ الْعَظیم

অতঃপর ৩ বার বলে:

اَللّهُمَّ صَلِّ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِ مُحَمَّدٍ

অতঃপর ৩ বার বলে:

اَللّهُمَّ اغْفِرْ لِلْمُؤ مِنینَ وَالْمُؤ مِناتِ

অতঃপর ৪০০ বার বলে:

اَسْتَغْفِرُ اللّهَ وَاَتُوبُ اِلَیهِ

তার গুনাহসমূহ যদি পাহাড়ের সমান, বৃষ্টির ফোটা ও গাছের পাতার ন্যায় অধিক হয় তাহলেও আল্লাহ তায়ালা  তার সকল গুনাহসমুহকে ক্ষমা করে দিবেন।

আল্লামা মাজলিসি (রহ.) বর্ণনা করেছেন যে, রজব মাসে ১০০০ বার (لا اِلهَ اِلا اللّهُ) পাঠ করা উত্তম।

 রজব মাসের বিশেষ দোয়াসমূহ

রজব মাসের এ বিশেষ দোয়াটি প্রত্যেকদিন পাঠ করা মুস্তাহাব। দোয়াটি নিন্মরূপ:

اَللّهُمَّ یا ذَاالْمِنَنِ السّابِغَةِ وَالاْلاءِ الْو ازِعَةِ والرَّحْمَةِ الْو اسِعَةِ وَالْقُدْرَةِ الْج امِعَةِ وَالنِّعَمِ الْجَسْیمَةِ وَالْمَواهِبِ الْعَظیمَةِ وَالاْیادِى الْجَمیلَةِ والْعَطایا الْجَزیلَةِ یا مَنْ لا ینْعَتُ بِتَمْثیلٍ وَلا یمَثَّلُ بِنَظیرٍ وَلا یغْلَبُ بِظَهیرٍ یا مَنْ خَلَقَ فَرَزَقَ وَاَلْهَمَ فَاَنْطَقَ وَابْتَدَعَ فَشَرَعَ وَعَلا فَارْتَفَعَ وَقَدَّرَ فَاَحْسَنَ وَصَوَّرَ فَاَتْقَنَ وَاحْتَجَّ فَاَبْلَغَ وَاَنْعَمَ فَاَسْبَغَ وَاَعْطى فَاَجْزَلَ وَمَنَحَ فَاَفْضَلَ یا مَنْ سَما فِى الْعِزِّ فَفاتَ نَواظِرَ الاْبْصارِ وَدَنا فِى الُّلطْفِ فَجازَ هَواجِسَ الاْفْکارِ یا مَنْ تَوَحَّدَ باِلْمُلک فَلا نِدَّ لَهُ فى مَلَکوتِ سُلْطانِهِ وَتفَرَّدَ بِالاْلاءِ وَالْکبرِی اءِ فَلا ضِدَّ لَهُ فى جَبَرُوتِ شَاْنِهِ یا مَنْ حارَتْ فى کبْرِیاءِ هَیبَتِهِ دَقایقُ لَطایفِ الاْوْهامِ وَانْحَسَرَتْ دُونَ اِدْراک عَظَمَتِهِ خَطایفُ اَبْصارِ الاْنامِ یا مَنْ عَنَتِ الْوُجُوهُ لِهَیبَتِهِ وَخَضَعَتِ الرِّقابُ لِعَظَمتِهِ وَوجِلَتِ الْقُلُوبُ مِنْ خیفَتِهِ اَسئَلُک بِهذِهِ الْمِدْحَةِ الَّتى لا تَنْبَغى اِلاّ لَک وَبِما وَاَیتَ بِهِ عَلى نَفْسِک لِداعیک مِنَ الْمُؤْمِنینَ وَبِما ضَمِنْتَ الاِجابَةَ فیهِ عَلى نَفْسِک لِلدّاعینَ یا اَسْمَعَ السّامِعینَ وَاَبْصَرَ النّاظِرینَ وَاَسْرَعَ الْحاسِبینَ یا ذَاالْقُوَّةِ الْمتینَ صَلِّ عَلى مُحَمَّدٍ خاتَمِ النَّبِیینَ وَعَلى اَهْلِ بَیتِهِ وَاقْسِمْ لى فى شَهْرِنا هذا خَیرَ ما قَسَمْتَ وَاحْتِمْ لى فى قَضائِک خَیرَ ما حَتَمْتَ وَاخْتِمْ لى بِالسَّعادَةِ فیمَنْ خَتَمْتَ وَاَحْینى ما اَحْییتَنى مَوْفُوراً وَاَمِتْنى مَسْرُوراً وَمَغْفُوراً وَتوَلَّ اَنْتَ نَجاتى مِنْ مُسائَلَةِ الْبَرْزَخِ وَادْرَاءْ عَنّى مُنْکراً وَنَکیراً وَاَرِ عَینى مُبَشِّراً وَبَشیراً وَاجْعَلْ لى اِلى رِضْوانِک وَجِنانِک مَصیراً وَعَیشاً قَریراً وَمُلْکاً کبیراً وَصَلِّ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِهِ کثیراً.

মোহাম্মাদ ইবনে উসমান (রহ.) হতে বর্ণিত দোয়া

রজব মাসের এ দোয়াটি ইমাম মাহদী (আ.) এর নায়েব মোহাম্মাদ ইবনে উসমান (রহ.)হতে বর্ণিত হয়েছে। ইমাম মাহদী (আ.)এর পক্ষ থেকে এ দোয়াটি তাঁর কাছে বার্তা স্বরূপ এসেছিল। দোয়াটি নিন্মরূপ:

اَللّهُمَّ اِنّى اَسئَلُک بِمَعانى جَمیعِ ما یدْعُوک بِهِ وُلاةُ اَمْرِک الْمَاْمُونُونَ عَلى سِرِّک الْمُسْتَبْشِرُونَ بِاَمْرِک الْواصِفُونَ لِقُدْرَتِک الْمُعْلِنُونَ لِعَظَمَتِک اَسئَلُک بِما نَطَقَ فیهِمْ مِنْ مَشِیتِک فَجَعَلْتَهُمْ مَعادِنَ لِکلِماتِک وَاَرْکاناً لِتَوْحیدِک وَآیاتِک وَمَقاماتِک الَّتى لاتَعْطیلَ لَها فى کلِّ مَکانٍ یعْرِفُک بِها مَنْ عَرَفَک لا فَرْقَ بَینَک وَبَینَها اِلاّ اَنَّهُمْ عِبادُک وَخَلْقُک فَتْقُها وَرَتْقُها بِیدِک بَدْؤُها مِنْک وَعَوْدُها اِلَیک اَعْضادٌ واَشْهادٌ ومُناةٌ واَذْوادٌ وَحَفَظَةٌ وَرُوّادٌ فَبِهمْ مَلاَتَ سَماَّئَک وَاَرْضَک حَتّى ظَهَرَ اَنْ لا اِلهَ إلاّ اَنْتَ فَبِذ لِک اَسْئَلُک وَبِمَواقِعِ الْعِزِّ مِنْ رَحْمَتِک وَبِمَقاماتِک وَعَلاماتِک اَنْ تُصَلِّىَ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِهِ واَنْ تَزیدَنى ایماناً وَتَثْبیتاً یاباطِناً فى ظُهُورِهِ وَظاهراً فى بُطُونِهِ وَمَکنُونِهِ یا مُفَرِّقاً بَینَ النُّورِ وَالدَّیجُورِ یا مَوْصُوفاً بِغَیرِ کنْهٍ وَمَعْرُوفاً بِغَیرِ شِبْهٍ حاَّدَّ کلِّ مَحْدُودٍ وَشاهِدَ کلِّ مَشْهُودٍ وَمُوجِدَ کلِّ مَوْجُودٍ وَمُحْصِىَ کلِّ مَعْدُودٍ وَفاقِدَ کلِّ مَفْقُودٍ لَیسَ دُونَک مِنْ مَعْبُودٍ اَهْلَ الْکبْرِیاَّءِ وَالْجُودِ یا مَنْ لا یکیفُ بِکیفٍ وَلا یؤَینُ بِاَینٍ یا مُحْتَجِباً عَنْ کلِّ عَینٍ یا دَیمُومُ یا قَیومُ وَعالِمَ کلِّ مَعْلُومٍ صَلِّ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِهِ وَعَلى عِبادِک الْمُنْتَجَبینَ وَبَشَرِک الْمُحْتَجِبینَ وَمَلاَّئِکتِک الْمُقَرَّبینَ وَالْبُهْمِ الصّاَّفّینَ الْحاَّفّینَ وَبارِک لَنا فى شَهْرِنا هذَا الْمُرَجَّبِ الْمُکرِّمِ وَما بَعْدَهُ مِنَ الاْشْهُرِ الْحُرُمِ وَاَسْبِغْ عَلَینا فیهِا النِّعَمَ وَاَجْزِلْ لَنافیهِ الْقِسَمَ وَاَبْرِرْ لَنافیهِ الْقَسَمَ بِاسْمِک الاْعْظَمِ الاْعْظَمِ الاْجَلِّ الاْکرَمِ الَّذى وَضَعْتَهُ عَلىَ النَّهارِ فَاَضاَّءَ وَعَلَى اللَّیلِ فَاَظْلَمَ وَاغْفِرْ لَنا ما تَعْلَمُ مِنّا وَما لا نَعْلَمُ وَاعْصِمْنا مِنَ الذُّنُوبِ خَیرَ الْعِصَمِ وَاکفِنا کوافِىَ قَدَرِک وَامْنُنْ عَلَینا بِحُسْنِ نَظَرِک وَلا تَکلْنا اِلى غَیرِک وَلا تَمْنَعْنا مِنْ خَیرِک وَبارِک لَنا فیما کتَبْتَهُ لَنا مِنْ اَعْمارِنا واَصْلِحْ لَنا خَبیئَةَ اَسْرارِنا واَعْطِنا مِنْک الاْمانَ وَاْستَعْمِلْنا بِحُسْنِ الاْ یمانِ وَبَلِّغْنا شَهْرَ الصِّیامِ وَما بَعْدَهُ مِنَ الاْیامِ وَالاْعْوامِ یا ذَا الْجَلالِ والاِکرام.

শাইখ আবুল কাসিম (রহ.)হতে বর্ণিত দোয়া

ইমাম মাহদী (আ.) এর নায়েব শাইখ আবুল কাসিম (রহ.) হতে রজব মাসের দোয়াটি বর্ণিত হয়েছে। দোয়াটি নিন্মরূপ:

اَللّهُمَّ اِنّى اَسئَلُک بِالْمَوْلُودَینِ فى رَجَبٍ مُحَمَّدِ بْنِ عَلی الثانى وَابْنِهِ عَلِىِّ بْنِ مُحَمَّدٍ الْمُنْتَجَبِ وَاَتَقَرَّبُ بِهِما اِلَیک خَیرَ الْقُرَبِ یا مَنْ اِلَیهِ الْمَعْرُوفُ طُلِبَ وَ فیما لَدَیهِ رُغِبَ اَسئَلُک سُؤالَ مُقْتَرِفٍ مُذْنِبٍ قَدْ اَوْبَقَتْهُ ذُنُوبُهُ وَاَوْثَقَتْهُ عُیوبُهُ فَطالَ عَلَى الْخَطایا دُؤُبُهُ وَمِنَ الرَّزایا خُطُوبُهُ یسْئَلُک التَّوْبَةَ وَحُسْنَ الاْوْبَةِ وَالنُّزُوعَ عَنِ الْحَوْبَةِ وَمِنَ النّارِ فَکاک رَقَبَتِهِ وَالْعَفْوَ عَمّا فى رِبْقَتِهِ فَاَنْتَ مَوْلاىَ اَعْظَمُ اَمَلِهِ وَثِقَتُهُ اَللّهُمَّ واَسئَلُک بِمَسائِلِک الشَّریفَةِ وَ وَسائِلِک الْمُنیفَةِ اَنْ تَتَغَمَّدَنى فى هذَا الشَّهْرِ بِرَحْمَةٍ مِنْک واسِعَةٍ وَنِعْمَةٍ وازِعَةٍ وَنَفْسٍ بِما رَزَقْتَها قانِعَةٍ اِلى نُزُولِ الحافِرَةِ وَمَحَلِّ الاْخِرَةِ وَما هِىَ اِلَیهِ صائِرَةٌ.

 যিয়ারত-এ রাজাবিয়া

উক্ত যিয়ারতটি আবুল কাসিম হুসাইন বিন রূহ (রহ.) ইমাম মাহদী (আ.)  বর্ণনা করেছেন। যিয়ারতটি নিন্মরূপ:

الْحَمْدُ لِلَّهِ الَّذِي أَشْهَدَنَا مَشْهَدَ أَوْلِيَائِهِ فِي رَجَبٍ وَ أَوْجَبَ عَلَيْنَا مِنْ حَقِّهِمْ مَا قَدْ وَجَبَ وَ صَلَّى اللَّهُ عَلَى مُحَمَّدٍ الْمُنْتَجَبِ وَ عَلَى أَوْصِيَائِهِ الْحُجُبِ اللَّهُمَّ فَكَمَا أَشْهَدْتَنَا مَشْهَدَهُمْ فَأَنْجِزْ لَنَا مَوْعِدَهُمْ وَ أَوْرِدْنَا مَوْرِدَهُمْ غَيْرَ مُحَلَّئِينَ عَنْ وِرْدٍ فِي دَارِ الْمُقَامَةِ وَ الْخُلْدِ وَ السَّلامُ عَلَيْكُمْ إِنِّي قَدْ قَصَدْتُكُمْ وَ اعْتَمَدْتُكُمْ بِمَسْأَلَتِي وَ حَاجَتِي وَ هِيَ فَكَاكُ رَقَبَتِي مِنَ النَّارِ وَ الْمَقَرُّ مَعَكُمْ فِي دَارِ الْقَرَارِ مَعَ شِيعَتِكُمُ الْأَبْرَارِ وَ السَّلامُ عَلَيْكُمْ بِمَا صَبَرْتُمْ فَنِعْمَ عُقْبَى الدَّارِ أَنَا سَائِلُكُمْ وَ آمِلُكُمْ فِيمَا إِلَيْكُمُ التَّفْوِيضُ وَ عَلَيْكُمُ التَّعْوِيضُ فَبِكُمْ يُجْبَرُ الْمَهِيضُ وَ يُشْفَى الْمَرِيضُ، وَ مَا تَزْدَادُ الْأَرْحَامُ وَ مَا تَغِيضُ إِنِّي بِسِرِّكُمْ مُؤْمِنٌ وَ لِقَوْلِكُمْ مُسَلِّمٌ وَ عَلَى اللَّهِ بِكُمْ مُقْسِمٌ فِي رَجْعِي بِحَوَائِجِي وَ قَضَائِهَا وَ إِمْضَائِهَا وَ إِنْجَاحِهَا وَ إِبْرَاحِهَا وَ بِشُئُونِي لَدَيْكُمْ وَ صَلاحِهَا وَ السَّلامُ عَلَيْكُمْ سَلامَ مُوَدِّعٍ وَ لَكُمْ حَوَائِجَهُ مُودِعٍ يَسْأَلُ اللَّهَ إِلَيْكُمُ الْمَرْجِعَ وَ سَعْيَهُ إِلَيْكُمْ غَيْرَ مُنْقَطِعٍ وَ أَنْ يَرْجِعَنِي مِنْ حَضْرَتِكُمْ خَيْرَ مَرْجِعٍ إِلَى جَنَابٍ مُمْرِعٍ وَ خَفْضِ عَيْشٍ مُوَسَّعٍ وَ دَعَةٍ وَ مَهَلٍ إِلَى حِينِ خَيْرِ الْأَجَلِ وَ خَيْرِ مَصِيرٍ وَ مَحَلٍّ فِي النَّعِيمِ الْأَزَلِ وَ الْعَيْشِ الْمُقْتَبَلِ وَ دَوَامِ الْأُكُلِ وَ شُرْبِ الرَّحِيقِ وَ السَّلْسَلِ وَ عَلٍّ وَ نَهَلٍ لا سَأَمَ مِنْهُ وَ لا مَلَلَ وَ رَحْمَةُ اللَّهِ وَ بَرَكَاتُهُ وَ تَحِيَّاتُهُ عَلَيْكُمْ حَتَّى الْعَوْدِ إِلَى حَضْرَتِكُمْ وَ الْفَوْزِ فِي كَرَّتِكُمْ وَ الْحَشْرِ فِي زُمْرَتِكُمْ وَ رَحْمَةُ اللَّهِ وَ بَرَكَاتُهُ عَلَيْكُمْ وَ صَلَوَاتُهُ وَ تَحِيَّاتُهُ وَ هُوَ حَسْبُنَا وَ نِعْمَ الْوَكِيلُ.

রজব মাসের আরো একটি বিশেষ দোয়া

সৈয়দ ইবনে তাউস (রহ.) হাদীসটি মোহাম্মাদ বিন যাকওয়ান ওরফে সাজ্জাদ (রহ.) হতে বর্ণনা করেছেন। তিনি এতই বেশী সেজদা করতেন এবং সেজদারত অবস্থায় ক্রন্দন করতেন যে, অবশেষে তিনি উক্ত কারণে অন্ধ হয়ে যান। তিনি ইমাম জাফর সাদিক্ব (আ.)কে বলেন: আমাকে এমন এক দোয়ার শিক্ষা দেন যেন আল্লাহ তায়ালা আমাকে এর প্রতিদান দান করেন। তখন ইমাম জাফর সাদিক্ব (আ.) তাকে বললেন: তুমি এ দোয়াটি রজব মাসে প্রত্যেক নামাজের পূর্বে, সকাল এবং সন্ধ্যায় পাঠ কর। দোয়াটি নিন্মরূপ:

یَا مَنْ اَرْجُوهُ لِکلِّ خَیرٍ وَآمَنُ سَخَطَهُ عِنْدَ کلِّ شَرٍّ یا مَنْ یعْطِى الْکثیرَ بِالْقَلیلِ یا مَنْ یعْطى مَنْ سَئَلَهُ یا مَنْ یعْطى مَنْ لَمْ یسْئَلْهُ وَمَنْ لَمْ یعْرِفْهُ تَحَنُّناً مِنْهُ وَرَحْمَةً اَعْطِنى بِمَسْئَلَتى اِیاک جَمیعَ خَیرِ الدُّنْیا وَجَمیعَ خَیرِ الاْخِرَةِ وَاصْرِفْ عَنّى بِمَسْئَلَتى اِیاک جَمیعَ شَرِّ الدُّنْیا وَشَرِّ الاْخِرَةِ فَاِنَّهُ غَیرُ مَنْقُوصٍ ما اَعْطَیتَ وَزِدْنى مِنْ فَضْلِک یا کریمُ

অতঃপর ইমাম (আ.) তাঁর তর্জনিকে ডানে বামে নাড়িয়ে নিন্মোক্ত দোয়ার অবশিষ্ট অংশটুকু পাঠ করলেন:

یا ذَاالْجَلالِ وَالْاِکرامِ یا ذَاالنَّعْماَّءِ وَالْجُودِ یا ذَاالْمَنِّ وَالطَّوْلِ حَرِّمْ شَیبَتى عَلَى النّارِ.

রজব মাসের বিশেষ ৬০ রাকাত নামাজ

রজব মাসে ৬০ রাকাত নামাজ বর্ণিত হয়েছে। প্রত্যেক রাতে দুই রাকাত নামাজ পড়তে হবে। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতিহার পরে ৩ বার সুরা কাফিরুন ও ১ বার সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে। দ্বিতীয় রাকাতটিও অনুরূপভাবে পাঠ করতে হবে। নামাজান্তে বলতে হবে:

لا اِلهَ اِلا اللّهُ وَحْدَهُ لا شَرى ک لَهُ لَهُ الْمُلْک وَ لَهُ الْحَمْدُ یحْیى وَیمیتُ وَهُوَ حَىُّ لا یمُوتُ بِیدِهِ الْخَیرُ وَهُوَ عَلى کلِّشَىْءٍ قَدیرٌ وَاِلَیهِ الْمَصیرُ وَلا حَوْلَ وَلا قُوَّةَ اِلاّ بِاللّهِ الْعَلِىِّ الْعَظیمِ اَللّهُمَّ صَلِّ عَلى مُحَمَّدٍ النَّبِىِّ الْاُمِّىِّ وَ آلِهِ.

অতঃপর হাতকে স্বীয় চেহারার উপরে বুলাতে হবে। কেউ যদি উক্ত আমলটি করে তাহলে আল্লাহ তায়ালা তার দোয়াকে কবুল করবেন এবং তাকে ৬০টি হজ এবং ৬০টি ওমরা হজের সমপরিমাণ সওয়াব দান করবেন।

রাসুল (সা.) হতে হাদীস বর্ণিত হয়েছে যে, তিনি বলেছেন: কোন ব্যাক্তি যদি রজব মাসের কোন এক রাতে দুই রাকাত নামাজ আদায় করে তাহলে আল্লাহ তায়ালা তাকে ১০০ বছরের রোজার সমপরিমাণ সওয়াব এবং বেহেশতে ১০০টি প্রাসাদ দান করবেন। নামাজটি পাঠের পদ্ধতি: প্রথম রাকাতে সুরা ফাতিহার পরে ৫০ বার সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে। দ্বিতীয় রাকাতটিও অনুরূপভাবে পড়তে হবে।

রজব মাসে আরো একটি নামাজ বর্ণিত হয়েছে কেউ যদি উক্ত নামাজটি পাঠ করে তাহলে আল্লাহ তায়ালা তার কৃত সকল গুনাহকে ক্ষমা করে দিবেন। নামাজটির প্রথম রাকাতে সুরা ফাতিহার পরে সুরা কাফিরুন ১ বার এবং সুরা ইখলাস ৩ বার পাঠ করতে হবে।

আল্লামা মাজলিসি (রহ.) যাদুল মাআদ নামক গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন যে, ইমাম আলী  (আ.) রাসুল (সা.) হতে হাদীসটি বর্ণনা করেছেন যে, কোন ব্যাক্তি যদি রজব, শাবান এবং রমজান মাসের দিন অথবা রাতে সুরা ফাতিহা, আয়াতুল কুরসী, কাফিরুন, ইখলাস, ফালাক্ব ও নাস প্রত্যেকটি ৩ বার করে পাঠ করে অতঃপর তিনবার বলতে হবে:

سُبْحانَ اللّهِ وَالْحَمْدُ لِلّهِ وَلا اِلهَ اِلا اللّهُ وَاللّهُ اَکبَرُ وَلا حَوْلَ وَلا قُوَّةَ اِلاّ بِاللّهِ الْعَلِىِّ الْعَظیمِ.

অতঃপর ৩ বার বলতে হবে:

 اَللّهُمَّ صَلِّ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِ مُحَمَّدٍ.

অতঃপর ৩ বার বলতে হবে:

اَللّهُمَّ اغْفِرْ لِلْمُؤ مِنینَ وَالْمُؤ مِناتِ.

অতঃপর ৪০০ বার বলতে হবে:

 اَسْتَغْفِرُ اللّهَ وَاَتُوبُ اِلَیهِ

কেউ যদি উক্ত আমলটি সম্পাদন করে, তাহলে তার গুনাহ যদি বৃষ্টির ফোটা, বৃক্ষের পাতা এবং সমুদ্রের ন্যায় বিশাল ও অগণিত হয় তাহলেও আল্লাহ তায়ালা তার সকল গুনাহকে ক্ষমা করে দিবেন।

লাইলাতুর রাগায়েব-এর আমল

রজব মাসের প্রথম শুক্রবারের রাতকে “লাইলাতুর রাগায়েব” বলা হয়। রাসুল (সা.) হতে উক্ত রাত সম্পর্কে একাধিক হাদীস বর্ণিত হয়েছে। উক্ত রাতে মাগরিব এবং এশার নামাজের মধ্যবর্তি সময়ে ১২ রাকাত নামাজ পড়তে হবে। প্রত্যেক রাকাতে সুরা ফাতিহার পরে ৩ বার সুরা ক্বদর এবং ১২ বার সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে। দ্বিতীয় রাকাতটিও অনুরূপভাবে পড়তে হবে। ১২ রাকাত নামাজ পড়া শেষ হলে ৭০ বার বলতে হবে:

اَللّهُمَّ صَلِّ عَلى مُحَمَّدٍ النَّبِىِّ الاُمِّىِّ وَعَلى آلِهِ.

অতঃপর সিজদায় গিয়ে ৭০ বার বলতে হবে:

سُبُّوحٌ قُدُّوسٌ رَبُّ الْمَلائِکةِ وَالرُّوحِ

অতঃপর সিজদা থেকে মাথা উঠানোর পর ৭০ বার বলতে হবে:

رَبِّ اغْفِرْ وَارْحَمْ وَتَجاوَزْ عَمّا تَعْلَمُ اِنَّک اَنْتَ الْعَلِىُّ الاَعْظَمُ

অতঃপর আবার সিজদায় গিয়ে ৭০ বার বলতে হবে:

سُبُّوحٌ قُدّوُسٌ رَبُّ الْمَلائِکةِ وَالرُّوحِ

অতঃপর দোয়া চাইতে হবে।

১লা রজব রাতের আমল

1.       রজব মাসের চাঁদ দেখার পর নিম্নোক্ত দোয়াটি পাঠ করা উত্তম:

اللَّهُمَّ أَهِلَّهُ عَلَیْنَا بِالْأَمْنِ وَ الْإِیمَانِ وَ السَّلامَةِ وَ الْإِسْلامِ رَبِّى وَ رَبُّكَ اللهُ عَزَّ وَ جَلَّ.

বর্ণিত হয়েছে, রজব মাসের চাঁদ দেখার পর আল্লাহর রাসুল (সা.) নিম্নোক্ত দোয়াটি পাঠ করতেন :

اللَّهُمَّ بَارِكْ لَنَا فِى رَجَبٍ وَ شَعْبَانَ وَ بَلِّغْنَا شَهْرَ رَمَضَانَ وَ أَعِنَّا عَلَى الصِّیَامِ وَ الْقِیَامِ وَ حِفْظِ اللِّسَانِ وَ غَضِّ الْبَصَرِ وَلا تَجْعَلْ حَظَّنَا مِنْهُ الْجُوعَ وَ الْعَطَشَ.

2.      গোসল করা

মহানবী (সা.) বলেছেন: যে ব্যক্তি রজব মাসকে অনুধাবন করে এবং এর প্রথম ও মাঝ এবং শেষের দিনগুলিতে গোসল করে তার সমস্ত গুনাহ এমনভাবে মুছে ফেলা হয়, যেমনভাবে সে মায়ের গর্ভ হতে জন্মলাভ করার পর নিঃস্পাপ ছিল।

3.      ইমাম হুসাইন(আ.) এর যিয়ারত পাঠ করা।

4.      মাগরিব ও এশার নামাজের পর ২০ রাকাত নামায আদায় করা। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতিহার পরে সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে। দ্বিতীয় রাকাতটিও অনুরূপভাবে পড়তে হবে। উক্ত নামাজের  মাধ্যমে সে নিজে, তার সম্পদ-সম্পত্তি এবং সন্তানাদি রক্ষিত থাকবে এবং সে কবরে আযাব থেকে মুক্তি পাবে।

5.      এশার নামাজের পর ২ রাকাত নামায আদায় করা। নিয়ম হল: প্রথম রাকাতে সুরা ফাতিহার পর ১ বার সুরা ইনশিরাহ (আ-লাম নাশরাহ) এবং সুরা ইখলাস ৩ বার পাঠ করতে হবে। দ্বিতীয় রাকাতে সুরা ফাতিহার পরে সুরা ইনশিরাহ, ইখলাস, ফালাক্ব এবং নাস পাঠ করতে হবে এবং সালামের মাধ্যমে নামায শেষ করার পর ৩০ বার “লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ” এবং ৩০ বার দরুদ শরীফ পাঠ করতে হবে। এ আমলের মাধ্যমে মহান আল্লাহ্ তার গুনাহসমূহকে এমনভাবে মুছে ফেলেন যেভাবে সে মায়ের গর্ভ হতে জন্মলাভ করার পর নিঃস্পাপ ছিল।

6.      আরো একটি নামাজ বর্ণিত হয়েছে। উক্ত নামাজটি ৩০ রাকাত। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতিহার পরে সুরা কাফেরুন ১ বার এবং সুরা ইখলাস ৩ বার পাঠ করতে হবে। দ্বিতীয় রাকাতটিও অনুরূপভাবে পড়তে হবে।

7.      এশার নামাজের পরে নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করা মুস্তাহাব। দোয়াটি নিন্মরূপ:

 اَللّهُمَّ اِنّى اَسْئَلُک بِاَنَّک مَلِک وَاَنَّک عَلى کلِّشَىْءٍ مُقْتَدِرٌ وَاَنَّک ما تَشاَّءُ مِنْ اءَمْرٍ یکونُ اَللّهُمَّ اِنّى اَتَوَجَّهُ اِلَیک بِنَبِیک مُحَمَّدٍ نَبِىِّ الرَّحْمَةِ صَلَّى اللّهُ عَلَیهِ وَآلِهِ یا مُحَمَّدُ یا رَسُولَ اللّهِ اِنّى اَتَوَجَّهُ بِک اِلَى اللّهِ رَبِّک وَرَبِّى لِینْجِحَ بِک طَلِبَتى اَللّهُمَّ بِنَبِیک مُحَمَّدٍ وَالاْئِمَّةِ مِنْ اَهْلِ بَیتِهِ صَلَّى اللّهُ عَلَیهِ وَعَلَیهِمْ اَنْجِحْ طَلِبَتى.

অতঃপর দোয়া করতে হবে।

8.      আলী ইবনে হাদীদ (রহ.) থেকে বর্ণিত হয়েছে যে, তিনি বলেছেন: ইমাম কাযিম (আ.) তাহাজ্জুদের নামাজের পরে সিজদারত অবস্থায় নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করতেন:

عَصَیتُک لا صُنْعَ لى وَلا لِغَیرى فى اِحْسانٍ اِلاّ بِک یا کائِنُ قَبْلَ کلِّ شَىْءٍ وَیا مُکوِّنَ کلِّشَىْءٍ اِنَّک عَلى کلِّشَىْءٍ قَدیرٌ اَللّهُمَّ اِنّى اَعُوذُ بِک مِنَ الْعَدیلَةِ عِنْدَ الْمَوْتِ وَمِنْ شَرِّ الْمَرْجِعِ فِى الْقُبُورِ وَمِنَ النَّدامَةِ یوْمَ الاْزِفَةِ فَاَسْئَلُک اَنْ تُصَلِّىَ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِ مُحَمَّدٍ وَاَنْ تَجْعَلَ عَیشى عیشَةً نَقِیةً وَمَیتَتى میتَةً سَوِیةً وَمُنْقَلَبى مُنْقَلَباً کریماً غَیرَ مُخْزٍ وَلا فاضِحٍ اَللّهُمَّ صَلِّ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِهِ الاْئِمَّةِ ینابیعِ الْحِکمَةِ وَاُولِى النِّعْمَةِ وَمَعادِنِ الْعِصْمَةِ وَاْعصِمْنى بِهِمْ مِنْ کلِّ سُوَّءٍ وَلا تَاْخُذْنى عَلى غِرَّةٍ وَلا عَلى غَفْلَةٍ وَلا تَجْعَلْ عَواقِبَ اَعْمالى حَسْرَةً وَارْضَ عَنّى فَاِنَّ مَغْفِرَتَک لِلظّالِمینَ وَاَنَا مِنَ الظّالِمینَ اَللّهُمَّ اغْفِرْ لى ما لا یضُرُّک واَعْطِنى ما لا ینْقُصُک فَاِنَّک الْوَسیعُ رَحْمَتُهُ الْبدَیعُ حِکمَتُهُ وَاَعْطِنِى السَّعَةَ وَالدَّعَةَ وَالاْمْنَ وَالصِّحَّةَ وَالْبُخُوعَ وَالْقُنُوعَ وَالشُّکرَ وَالْمُعافاةَ وَالتَّقْوى وَالصَّبْرَ وَالصِّدْقَ عَلَیک وَعَلى اَوْلِیاَّئِک وَالْیسْرَ وَالشُّکرَ وَاعْمُمْ بِذلِک یا رَبِّ اَهْلى وَ وَلَدى وَاِخْوانى فیک وَمَنْ اَحْبَبْتُ وَاَحَبَّنى وَوَلَدْتُ وَوَلَدَنى مِنَ الْمُسْلِمینَ وَالْمُؤْمِنینَ یا رَبَّ الْعالَمینَ.

ইবনে উশাইম বলেন: ৮ রাকাত তাহাজ্জুদের নামাজ পড়ার পরে এবং বেতর নামাজ পড়ার পূর্বে বসা অবস্থায় নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করতে হবে:

اَلْحَمْدُ لِلّهِ الَّذى لا تَنْفَدُ خَزاَّئِنُهُ وَلا یخافُ آمِنُهُ رَبِّ اِنِ ارْتَکبْتُ الْمَعاصِىَ فَذلِک ثِقَةٌ مِنّى بِکرَمِک اِنَّک تَقْبَلُ التَّوْبَةَ عَنْ عِبادِک وَتَعْفوُ عَنْ سَیئاتِهِمْ وَتَغْفِرُ الزَّلَلَ وَاِنَّک مُجیبٌ لِداعیک وَمِنْهُ قَریبٌ وَاَنَا تائِبٌ اِلَیک مِنَ الْخَطایا وَراغِبٌ اِلَیک فى تَوْفیرِ حَظّى مِنَ الْعَطایا یا خالِقَ الْبَرایا یا مُنْقِذى مِنْ کلِّ شَدیدَةٍ یا مُجیرى مِنْ کلِّ مَحْذُورٍ وَفِّرْ عَلَىَّ السُّرُورَ وَاکفِنى شَرَّ عَواقِبِ الْاُمُورِ فَاَنْتَ اللّهُ عَلى نَعْماَّئِک وَجَزیلِ عَطاَّئِک مَشْکورٌ وَلِکلِّ خَیرٍ مَذْخُورٌ.

১লা রজব দিনের আমল

1.       রোজা রাখা।

রেওয়ায়েতে বর্ণিত হয়েছে যে, হজরত নুহ (আ.) এ দিন নৌকায় আরোহন করেছিলেন এবং তিনি তাঁর সকল সঙ্গীদেরকে রোজা রাখার নির্দেশ দিয়েছিলেন। যে ব্যক্তি এ দিনে রোজা রাখবে এক বছর তাকে জাহান্নামের আগুন থেকে তাকে পরিত্রাণ দান করা হবে।

2.      গোসল করা।

3.      ইমাম হুসাইন (আ.) এর যিয়ারত পড়া। ইমাম জাফর সাদিক্ব (আ.) হতে বর্ণিত হয়েছে যে, তিনি বলেছেন: যে ব্যক্তি রজব মাসের প্রথম দিনে ইমাম হুসাইন (আ.) এর যিয়ারতের জন্য যাবে, মহান আল্লাহ তায়ালা  তার গুনাহসমূহকে ক্ষমা করে দিবেন।

4.      সালমান (রা.) এর বিশেষ মুস্তাহাব নামাজ পাঠ করা।

আইয়ামে বিয (১৩, ১৪, ১৫) তারিখের আমল

১৩ই রজবের আমল

রজব, শাবান এবং রমজান মাসের ১৩ তারিখকে “আইয়ামে বিয”  বলা হয়ে থাকে। উক্ত তারিখের রাতে ২ রাকাত নামাজ পড়তে হবে। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতিহার পরে সুরা ইয়াসীন, মুলক এবং ইখলাস পাঠ করতে হবে। দ্বিতীয় রাকাতটিও অনুরূপভাবে পড়তে হবে।

 ১৪ই  রজবের আমল

১৩ই রজব দিবাগত রাতে ৪ রাকাত নামাজ পড়তে হবে। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতিহার পরে সুরা ইয়াসীন, মুলক এবং ইখলাস পাঠ করতে হবে। দ্বিতীয় রাকাতটিও অনুরূপ পদ্ধতিতে পড়তে হবে।

১৫ই রজব রাতের আমল

১৪ই রজব দিবাগত রাতে ৬ রাকাত নামাজ পড়তে হবে। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতিহার পরে সুরা ইয়াসীন, মুলক এবং ইখলাস পাঠ করতে হবে। দ্বিতীয় রাকাতটিও অনুরূপ পদ্ধতিতে পড়তে হবে।

আমল-এ-উম্মে দাউদ

১৫ই রজব দিনে কেউ যদি “আমলে উম্মে দাউদ” সম্পাদন করতে চাই তাহলে তাকে ১৩, ১৪ এবং ১৫ তারিখে রোজা রাখতে হবে। যোহরের সময়ের পূর্বে গোসল করতে হবে। যোহর ও আসরের নামাজের পরে কারো সাথে কথা না বলে, কিবলামুখী অবস্থায় বসে সুরা ফাতিহা ১০০ বার, সুরা ইখলাস ১০০ বার, আয়াতুল কুরসী ১০ বার, সুরা আনআম, বণী ইসরাইল, কাহফ, লোকমান, ইয়াসীন, সাফফাত, হামীম সেজদা, শুরা, দোখান, ফাতহ, ওয়াকেয়া, মুলক ও ইনশিকাক থেকে নিয়ে কোরআনের শেষ সুরা পর্যন্ত পাঠ করতে হবে। অতঃপর বলতে হবে:

صَدَقَ اللهُ الْعَظیمُ الَّذى لا اِلهَ اِلاّ هُوَ الْحَىُّ الْقَیومُ ذُو الْجَلالِ وَالاِکرامِ الرَّحْمنُ الرَّحیمُ الْحَلیمُ الْکریمُ الَّذى لَیسَ کمِثْلِهِ شَىْءٌ وَهُوَ السَّمیعُ الْعَلیمُ الْبَصیرُ الْخَبیرُ شَهِدَ اللهُ اَنَّهُ لا اِلهَ اِلاّ هُوَ وَالْمَلائِکةُ وَاُولوُا الْعِلْمِ ق ائِماً بِالْقِسْطِ لا اِل- هَ اِلاّ هُوَ الْعَزیزُ الْحَکیمُ وَبَلَّغَتْ رُسُلُهُ الْکرامُ وَاَنَا عَلى ذلِک مِنَ الشّاهِدینَ اَللّهُمَّ لَک الْحَمْدُ وَلَک الْمَجْدُ وَلَک الْعِزُّ وَلَک الْفَخْرُ وَلَک الْقَهْرُ وَلَک النِّعْمَةُ وَلَک الْعَظَمَةُ وَلَک الرَّحْمَةُ وَلَک الْمَهابَةُ وَلَک السُّلْطانُ وَلَک الْبَهاءُ وَلَک الاِمْتِنانُ وَلَک التَّسْبیحُ وَلَک التَّقْدیسُ وَلَک التَّهْلیلُ وَلَک التَّکبیرُ وَلَک ما یرى وَلَک ما لا یرى وَلَک ما فَوْقَ السَّمواتِ الْعُلى وَ لَک ما تَحْتَ الثَّرى وَلَک الاْرَضُونَ السُّفْلى وَلَک الاْ خِرَةُ وَالاُولىَ وَلَک ما تَرْضى بِهِ مِنَ الثَّناءِ وَالْحَمْدِ وَالشُّکرِ وَ النَّعْماءِ اَللّهُمَّ صَلِّ عَلى جَبْرَئیلَ اَمینِک عَلى وَحْیک وَالْقَوِىِّ عَلى اَمْرِک وَالْمُطاعِ فى سَمواتِک وَمَحالِّ کراماتِک الْمُتَحَمِّلِ لِکلِماتِک النّاصِرِ لِاَنْبِیائِک الْمُدَمِّرِ لاِعْدائِک اَللّهُمَّ صَلِّ عَلى میکائیلَ مَلَک رَحْمَتِک وَالْمَخْلُوقِ لِرَاءْفَتِک وَالْمُسْتَغْفِرِ الْمُعینِ لاِهْلِ طاعَتِک اَللّهُمَّ صَلِّ عَلى اِسْرافیلَ حامِلِ عَرْشِک وَصاحِبِ الصُّورِ الْمُنْتَظِرِ لاِمْرِک الْوَجِلِ الْمُشْفِقِ مِنْ خیفَتِک اَللّهُمَّ صَلِّ عَلى حَمَلَةِ الْعَرْشِ الطّاهِرینَ وَعَلىَ السَّفَرَةِ الْکرامِ الْبَرَرَةِ الطَّیبینَ وَعَلى مَلائِکتِک  الْکرامِ الْکاتِبینَ وَ عَلى مَلائِکةِ الْجِنانِ وَخَزَنَةِ النّیر انِ وَمَلَک الْمَوْتِ وَالاْعْوانِ یا ذَاالْجَلالِ وَالاِکرامِ اَللّهُمَّ صَلِّ عَلى اَبینا آدَمَ بَدیعِ فِطْرَتِک الَّذى کرَّمْتَهُ بِسُجُودِ مَلائِکتِک وَاَبَحْتَهُ جَنَّتَک اَللّهُمَّ صَلِّ عَلى اُمِّنا حَوّاءَ الْمُطَهَّرَةِ مِنَ الرِّجْسِ الْمُصَفّاتِ مِنَ الدَّنَسِ الْمُفَضَّلَةِ مِنَ الاِنْسِ الْمُتَرَدِّدَةِ بَینَ مَحالِّ الْقُدُسِ اَللّهُمَّ صَلِّ عَلى هابیلَ وَشَیثٍ وَاِدْریسَ وَنُوحٍ وَهُودٍ وَصالِحٍ وَ اِبْراهیمَ وَاِسْماعیلَ وَاِسْحقَ وَیعْقُوبَ وَیوسُفَ وَالاْسْباطِ وَلُوطٍ وَشُعَیبٍ وَاَیوبَ وَمُوسى وَهارُونَ وَیوشَعَ وَمیشا وَالْخِضْرِ وَذِى الْقَرْنَینِ وَیونُسَ وَاِلْیاسَ وَالْیسَعَ وَذِى الْکفْلِ وَطالُوتَ وَداوُدَ وَسُلَیمانَ وَزَکرِیا وَشَعْیا وَیحْیى وَتُورَخَ وَمَتّى وَاِرْمِیا وَحَیقُوقَ وَدانِیالَ وَعُزَیرٍ وَعیسى وَشَمْعُونَ وَجِرْجیسَ وَالْحَوارِیینَ وَالاْتْباعِ وَخالِدٍ وَحَنْظَلَةَ وَلُقْمانَ اَللّهُمَّ صَلِّ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِ مُحَمَّدٍ وَارْحَمْ  مُحَمَّداً وَآلَ مُحَمَّدٍ وَبارِک عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِ مُحَمَّدٍ کما صَلَّیتَ وَرَحِمْتَ وَبارَکتَ عَلى اِبْرهیمَ وَآلِ اِبْرهیمَ اِنَّک حَمیدٌ مَجیدٌ اَللّهُمَّ صَلِّ عَلَى الاْوْصِیاءِ وَالسُّعَداءِ وَالشُّهَداءِ وَاَئِمَّةِ الْهُدى اَللّهُمَّ صَلِّ عَلَى الاْبْدالِ وَالاْوْتادِ وَالسُّیاحِ وَالْعُبّادِ وَالْمُخْلِصینَ وَالزُّهّادِ وَاَهْلِ الجِدِّ وَالاِجْتِهادِ وَاخْصُصْ مُحَمَّداً وَاَهْلَ بَیتِهِ بِاَفْضَلِ صَلَواتِک وَاَجْزَلِ کراماتِک وَبَلِّغْ رُوحَهُ وَ جَسَدَهُ مِنّى تَحِیةً وَسَلاماً وَزِدْهُ فَضْلاً وَشَرَفاً وَکرَماً حَتّى تُبَلِّغَهُ اَعْلى دَرَجاتِ اَهْلِ الشَّرَفِ مِنَ النَّبِیینَ وَالْمُرْسَلینَ وَالاْفاضِلِ الْمُقَرَّبینَ اَللّهُمَّ وَصَلِّ عَلى مَنْ سَمَّیتُ وَمَنْ لَمْ اُسَمِّ مِنْ مَلائِکتِک وَاَنْبِی ائِک وَرُسُلِک وَاَهْلِ طاعَتِک وَاَوْصِلْ صَلَواتى اِلَیهِمْ وَاِلى اَرْواحِهِمْ وَاجْعَلْهُمْ اِخْوانى فیک وَاَعْوانى عَلى دُعائِک اَللّهُمَّ اِنّى اَسْتَشْفِعُ بِک اِلَیک وَبِکرَمِک اِلى کرَمِک وَبِجُودِک اِلى جُودِک وَبِرَحْمَتِک اِلى رَحْمَتِک وَبِاَهْلِ طاعَتِک اِلَیک وَاَسئَلُک الّلهُمَّ بِکلِّ ما سَئَلَک بِهِ اَحَدٌ مِنْهُمْ مِنْ مَسْئَلَةٍ شَریفَةٍ غَیرِ مَرْدُودَةٍ وَبِما دَعَوْک بِهِ مِنْ دَعْوَةٍ مُجابَةٍ غَیرِ مُخَیبَةٍ یااللهُ یارَحْمنُ یا رَحیمُ یا حَلیمُ یا کریمُ یا عَظیمُ یا جَلیلُ یامُنیلُ یا جَمیلُ یا کفیلُ یا وَکیلُ یا مُقیلُ یا مُجیرُ یا خَبیرُ یا مُنیرُ یا مُبیرُ یا مَنیعُ یا مُدیلُ یا مُحیلُ یا کبیرُ یا قَدیرُ یا بَصیرُ یا شَکورُ یا بَرُّ یا طُهْرُ یا طاهِرُ یا قاهِرُ یا ظاهِرُ یا باطِنُ یا ساتِرُ یا مُحیطُ یا مُقْتَدِرُ یا حَفیظُ یا مُتَجَبِّرُ یا قَریبُ یا وَدُودُ یا حَمیدُ یا مَجیدُ یا مُبْدِئُ یا مُعیدُ یا شَهیدُ یا مُحْسِنُ یا مُجْمِلُ یا مُنْعِمُ یا مُفْضِلُ یا قابِضُ یا باسِطُ یا هادى یا مُرْسِلُ یا مُرْشِدُ یا مُسَدِّدُ یا مُعْطى یا مانِعُ یا دافِعُ یا رافِعُ یا باقى یا واقى یا خَلاّقُ یا وَهّابُ یا تَوّابُ یا فَتّاحُ یا نَفّاحُ یا مُرْتاحُ یا مَنْ بِیدِهِ کلُّ مِفْتاحٍ یا نَفّاعُ یا رَؤُفُ یا عَطُوفُ یا کافى یا شافى یا مُعافى یا مُکافى یا وَفِىُّ یا مُهَیمِنُ یا عَزیزُ یا جَبّارُ یا مُتَکبِّرُ یا سَلامُ یا مُؤْمِنُ یا اَحَدُ یا صَمَدُ یا نُورُ یا مُدَبِّرُ یا فَرْدُ یا وِتْرُ یا قُدُّوسُ یا ناصِرُ یا مُونِسُ یا باعِثُ یا وارِثُ یا عالِمُ یا حاکمُ یا بادى یا مُتَعالى یا مُصَوِّرُ یا مُسَلِّمُ یا مُتَحَبِّبُ یا قائِمُ یا دائِمُ یا عَلیمُ یا حَکیمُ یا جَوادُ یا بارِى ءُ یا بارُّ یا سارُّ یا عَدْلُ یا فاصِلُ یا دَیانُ یا حَنّانُ یا مَنّانُ یا سَمیعُ یا بَدیعُ یا خَفیرُ یا مُعینُ  [مُغَیرُ] یاناشِرُ یاغافِرُ یاقَدیمُ یامُسَهِّلُ یا مُیسِّرُ یا مُمیتُ یا مُحْیى یا نافِعُ یا رازِقُ یا مُقْتَدِرُ یا مُسَبِّبُ یا مُغیثُ یا مُغْنى یا مُقْنى یا خالِقُ یا راصِدُ یا واحِدُ یا حاضِرُ یا جابِرُ یا حافِظُ یا شَدیدُ یا غِیاثُ یا عائِدُ یا قابِضُ یا مَنْ عَلا فَاسْتَعْلى فَکانَ بِالْمَنْظَرِ الاْعْلى یا مَنْ قَرُبَ فَدَنا وَبَعُدَ فَنَاى وَعَلِمَ السِّرَّ وَاَخْفى یا مَنْ اِلَیهِ التَّدْبیرُ وَلَهُ الْمَقادیرُ وَیا مَنِ الْعَسیرُ عَلَیهِ [سَهْلٌ] یسیرٌ یا مَنْ هُوَ عَلى ما یشاءُ قَدیرٌ یا مُرْسِلَ الرِّیاحِ یا فالِقَ الاِصْباحِ یا باعِثَ الاْرْواحِ یا  ذَاالْجُودِ وَالسَّماحِ یا رادَّ ما قَدْ فاتَ یا ناشِرَ الاْمْواتِ یا جامِعَ الشَّتاتِ یا رازِقَ مَنْ یشاءُ [بِغَیرِ حِسابٍ وَیا] فاعِلَ ما یشاءُ کیفَ یشاءُ وَیا ذَاالْجَلالِ وَالاِکرامِ یا حَىُّ یا قَیومُ یا حَیاً حینَ لا حَىَّ یا حَىُّ یا مُحْیىَ الْمَوْتى یا حَىُّ لا اِلهَ اِلاّ اَنْتَ بَدیعُ السَّمواتِ وَالاَرْضِ یا اِلهى وَسَیدى صَلِّ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِ مُحَمَّدٍ وَارْحَمْ مُحَمَّداً وَ آلَ مُحَمَّدٍ وَ بارِک عَلى مُحَمَّدٍ وَ آلِ مُحَمَّدٍ کما صَلَّیتَ وَبارَکتَ وَرَحِمْتَ عَلى اِبْرهیمَ وَآلِ اِبْرهیمَ اِنَّک حَمیدٌ مَجیدٌ وَارْحَمْ ذُلىّ وَ فاقَتى وَفَقْرى وَانْفِرادى وَوَحْدَتى وَخُضُوعى بَینَ یدَیک وَاعْتِمادى عَلَیک وَتَضَرُّعى اِلَیک اَدْعُوک دُعاءَ الْخاضِعِ الذَّلیلِ الْخاشِعِالْخائِفِ الْمُشْفِقِ الْبائِسِ الْمَهینِ الْحَقیرِ الْجائِعِ الْفَقیرِ الْعائِذِ الْمُسْتَجیرِ الْمُقِرِّ بِذَنْبِهِ الْمُسْتَغْفِرِ مِنْهُ الْمُسْتَکینِ لِرَبِّهِ دُعاءَ مَنْ اَسْلَمَتْهُ ثِقَتُهُ وَرَفَضَتْهُ اَحِبَتُّهُ وَعَظُمَتْ فَجیعَتُهُ دُعاءَ حَرِقٍ حَزینٍ ضَعیفٍ مَهینٍ بائِسٍ مُسْتَکینٍ بِک مُسْتَجیرٍ اَللّهُمَّ وَاَسئَلُک بِاَنَّک مَلیک وَاَنَّک ما تَشاءُ مِنْ اَمْرٍ یکونُ وَاَنَّک عَلى ما تَشاءُ قَدیرٌ وَاَسئَلُک بِحُرْمَةِ هذَا الشَّهْرِ الْحَرامِ وَالْبَیتِ الْحَرامِ وَالْبَلَدِ الْحَرامِ وَالرُّکنِ وَالْمَقامِ وَالْمَشاعِرِالْعِظامِ وَبِحَقِّ نَبِیک مُحَمَّدٍعَلَیهِ وَ الِهِ السَّلامُ یا مَنْ وَهَبَ لاِدَمَ شَیثاً وَ لاِبْراهیمَ اِسْماعیلَ وَ اِسْحاقَ وَ یا مَنْ رَدَّ یوسُفَ عَلى یعْقوُبَ وَیا مَنْ کشَفَ بَعْدَ الْبَلاءِ ضُرَّ اَیوبَ یا رادَّ مُوسى عَلى اُمِّهِ وَ زائِدَ الْخِضْرِ فى عِلْمِهِ وَیا مَنْ وَهَبَ لِداوُدَ سُلَیمانَ وَلِزَکرِیا یحْیى وَلِمَرْیمَ عیسى یا حافِظَ بِنْتِ شُعَیبٍ وَیا کافِلَ وَلَدِ اُمِّ مُوسى اَسئَلُک اَنْ تُصَلِّىَ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِ مُحَمَّدٍ وَاَنْ تَغْفِرَ لِى ذُنُوبى کلَّها وَتُجیرَنى مِنْ عَذابِک وَتُوجِبَ لى رِضْوانَک وَاَمانَک وَاِحْسانَک وَغُفْرانَک وَجِنانَک وَاَسئَلُک اَنْ تَفُک عَنّى کلَّ حَلْقَةٍ بَینى وَبَینَ مَنْ یؤْذینى وَتَفْتَحَ لى کلَّ بابٍ وَتُلَینَ لى کلَّ صَعْبٍ وَتُسَهِّلَ لى کلَّ عَسَیرٍ وَتُخْرِسَ عَنّى کلَّ ناطِقٍ بِشَرٍّ وَتَکفَّ عَنّى کلَّ باغٍ وَتَکبِتَ عَنّى کلَّ عَدُوٍّ لى وَحاسِدٍ وَتَمْنَعَ مِنّى کلَّ ظالِمٍ وَتَکفِینى کلَّ عائِقٍ یحُولُ بَینى وَبَینَ حاجَتى وَیحاوِلُ اَنْ یفَرِّقَ بَینى وَبَینَ طاعَتِک وَیثَبِّطَنى عَنْ عِبادَتِک یا مَنْ اَلْجَمَ الْجِنَّ الْمُتَمَرِّدینَ وَقَهَرَ عُتاةَ الشَّیاطینِ وَاَذَلَّ رِقابَ الْمُتَجَبِّرینَ وَرَدَّ کیدَ الْمُتَسَلِّطین عَنِ الْمُسْتَضْعَفینَ اَسئَلُک بِقُدْرَتِک عَلى ما تَشاءُ وَتَسْهیلِک لِما تَشاءُ کیفَ تَشاءُ اَنْ تَجْعَلَ قَضاءَ حاجَتى فیما تَشاءُ.

অতঃপর প্রথমে ডান গাল এবং পরে বাম গালকে মাটির সাথে লাগিয়ে বলতে হবে:

اَللّهُمَّ لَک سَجَدْتُ وَبِک امَنْتُ فَارْحَمْ ذُلّى وَفاقَتى وَاجْتِهادى وَتَضَرُّعى وَمَسْکنَتى وَفَقْرى اِلَیک یا رَبِّ.

ইমাম জাফর সাদিক্ব (আ.) হতে বর্ণিত হয়েছে যে, তিনি বলেছেন: উক্ত রাতে ১২ রাকাত, নামাজ দুই রাকাত করে পড়তে হবে। নামাজান্তে সুরা ফাতিহা, ফালাক, নাস, ইখলাস, আয়াতুল কুরসী, প্রত্যেকটি ৪ বার করে পাঠ করতে হবে। অতঃপর ৪ বার বলতে হবে:

سُبْحانَ اللّهِ وَالْحَمْدُ لِلّهِ وَلا اِلهَ اِلا اللّهُ وَاللّهُ اَکبَرُ.

অতঃপর বলতে হবে:

اَللّهُ اَللّهُ رَبّى لا اُشْرِک بِهِ شَیئا وَ ما شاَّءَ اللّهُ لا قُوَّةَ اِلاّ بِاللّهِ الْعَلِىِّ الْعَظیمِ.

১৫ই রজব দিনের আমল

১৫ই রজব উত্তম একটি দিন। উক্ত দিনেও বিশেষ কিছু আমল বর্ণিত হয়েছে যেমন:

1.       গোসল করা।

2.      হজরত সালমান ফার্সি (রা.) এর বিশেষ নামাজ পড়া।

3.      ৪ রাকাত নামাজ পড়া এবং নামাজান্তে দোয়ার জন্য হাত তুলে পাঠ করতে হবে:

اَللّهُمَّ یا مُذِلَّ کلِّ جَبّارٍ وَیا مُعِزَّ الْمُؤْمِنینَ اَنْتَ کهْفى حینَ تُعْیینِى الْمَذاهِبُ وَاَنْتَ بارِئُ خَلْقى رَحْمَةً بى وَقَدْ کنْتَ عَنْ خَلْقى غَنِیاً وَلَوْ لا رَحْمَتُک لَکنْتُ مِنَ الْهالِکینَ وَاَنْتَ مُؤَیدى بِالنَّصْرِ عَلى اَعْداَّئى وَلَوْ لا نَصْرُک اِیاىَ لَکنْتُ مِنَ الْمَفْضُوحینَ یا مُرْسِلَ الرَّحْمَةِ مِنْ مَعادِنِها وَمُنْشِئَ الْبَرَکةِ مِنْ مَواضِعِها یا مَنْ خَصَّ نَفْسَهُ بِالشُّمُوخِ وَالرِّفْعَةِ فَاَوْلِیاَّؤُهُ بِعِزِّهِ یتَعَزَّزُونَ وَیا مَنْ وَضَعَتْ لَهُ الْمُلُوک نیرَ الْمَذَلَّةِ عَلى اَعْناقِهِمْ فَهُمْ مِنْ سَطَواتِهِ خاَّئِفُونَ اَسئَلُک بِکینُونِیتِک الَّتِى اشْتَقَقْتَها مِنْ کبْرِیاَّئِک وَاَسئَلُک بِکبْرِیاَّئِک الَّتِى اشْتَقَقْتَها مِنْ عِزَّتِک وَاَسئَلُک بِعِزَّتِک الَّتِى اسْتَوَیتَ بِها عَلى عَرْشِک فَخَلَقْتَ بِها جَمیعَ خَلْقِک فَهُمْ لَک مُذْعِنُونَ اَنْ تُصَلِّىَ عَلى مُحَمَّدٍ وَاَهْلِ بَیتِهِ

উক্ত দোয়াটি যদি কোন দুঃখী মানুষ পাঠ করে। তাহলে আল্লাহ তায়ালা তার সকল দুঃখ দূর্দশাকে দূর করে দিবেন।

4.      ইমাম হুসাইন (আ.)এর যিয়ারত পাঠ করা।

শাইখ মুফিদ (রহ.) হতে বর্ণিত হয়েছে যে, তিনি বলেছেন: কেউ যদি উক্ত তারিখে ইমাম হুসাইন (আ.) এর যিয়ারত করতে চাই, তাহলে ইমাম হুসাইন (আ.) এর মাজারের প্রবেশের পরে এবং কবরঘরে প্রবেশের পূর্বে ৩ বার বলতে হবে: (اَللّهُ اَکبَرُ) অতঃপর কবরের কাছে দাড়িয়ে বলতে হবে:

اَلسَّلامُ عَلَیکمْ یا آلَ اللهِ اَلسَّلامُ عَلَیکمْ یا صِفْوَةَ اللهِ اَلسَّلامُ عَلَیکمْ یا خِیرَةَ اللهِ مِنْ خَلْقِهِ اَلسَّلامُ عَلَیکمْ یا سادَةَ السّاداتِ اَلسَّلامُ عَلَیکمْ یا لُیوثَ الْغاباتِ اَلسَّلامُ عَلَیکمْ یا سُفُنَ النَّجاةِ اَلسَّلامُ عَلَیک یا اَبا عَبْدِ اللهِ الْحُسَینَ اَلسَّلامُ عَلَیک یا وارِثَ عِلْمِ الاَنْبِیاءِ وَرَحْمَةُ اللهِ وَبَرَکاتُهُ اَلسَّلامُ عَلَیک یا وارِثَ آدَمَ صِفْوَةِ اللهِ اَلسَّلامُ عَلَیک یا وارِثَ نُوحٍ نَبِىِّ اللهِ اَلسَّلامُ عَلَیک یا وارِثَ اِبْراهیمَ خَلیلِ اللهِ اَلسَّلامُ عَلَیک یا وارِثَ اِسْماعیلَ ذَبیحِ اللهِ اَلسَّلامُ عَلَیک یا وارِثَ مُوسى کلیمِ اللهِ اَلسَّلامُ عَلَیک یا وارِثَ عیسى رُوحِ اللهِ اَلسَّلامُ عَلَیک یا وارِثَ مُحَمَّدٍ حَبیبِ اللهِ اَلسَّلامُ عَلَیک یا بْنَ مُحَمَّدٍ الْمُصْطَفى اَلسَّلامُ عَلَیک یا بْنَ عَلِی الْمُرْتَضى اَلسَّلامُ عَلَیک یا بْنَ فاطِمَةَ الزَّهْرآءِ اَلسَّلامُ عَلَیک یا بْنَ خَدیجَةَ الْکبْرى اَلسَّلامُ عَلَیک یا شَهیدُ بْنَ الشَّهیدِ اَلسَّلامُ عَلَیک یا قَتیلُ بْنَ الْقَتیلِ اَلسَّلامُ عَلَیک یا وَلِىَّ اللهِ وَابْنَ وَلِیهِ اَلسَّلامُ عَلَیک یا حُجَّةَ اللهِ وَابْنَ حُجَّتِهِ عَلى خَلْقِهِ اَشْهَدُ اَنَّک قَدْ اَقَمْتَ الصَّلوةَ وَآتَیتَ الزَّکوةَ وَاَمَرْتَ بِالْمَعْرُوفِ وَنَهَیتَ عَنْ الْمُنْکرِ وَرُزِئْتَ بِوالِدَیک وَجاهَدْتَ عَدُوَّک وَاَشْهَدُ اَنَّک تَسْمَعُ الْکلامَ وَتَرُدُّ الْجَوابَ وَاَنَّک حَبیبُ اللهِ وَخَلیلُهُ وَنَجیبُهُ وَصَفِیهُ وَابْنُ صَفِیهِ یا مَوْلاىَ وَابْنَ مَوْلاىَ زُرْتُک مُشْتاقاً فَکنْ لى شَفیعاً اِلىَ اللهِ یا سَیدى وَاَسْتَشْفِعُ اِلَى اللهِ بِجَدِّک سَیدِ النَّبِیینَ وَبِابیک سَیدِ الْوَصِیینَ وَبِاُمِّک فاطِمَةَ سَیدَةِ نِساءِ الْعالَمینَ اَلا لَعَنَ اللهُ قاتِلیک وَلَعَنَ اللهُ ظالِمیک وَلَعَنَ اللهُ سالِبیک وَمُبْغِضیک مِنَ الاَوَّلینَ وَالاْ خِرینَ وَصَلَّى اللهُ عَلى سَیدِنا مُحَمِّدٍ وَآلِهِ الطَّیبینَ الطّاهِرینَ

অতঃপর কবরকে চুম্বনের পরে আলী  ইবনে হুসাইন (আ.) এর কবরের অংশের নিকটে দাঁড়িয়ে বলতে হবে:

اَلسَّلامُ عَلَیکَ یَا مَوْلاىَ وَابْنَ مَوْلاىَ لَعَنَ اللَّهُ قَاتِلیکَ وَلَعَنَ اللَّهُ ظالِمیکَ اِنّى اَتَقَرَّبُ اِلَى اللَّهِ بِزِیارَتِکمْ وَبِمَحَبَّتِکمْ وَاَبَرَءُ اِلَى اللَّهِ مِنْ اَعْدآئِکمْ وَالسَّلامُ عَلَیک یا مَوْلاىَ وَرَحْمَةُ اللَّهِ وَبَرَکاتُهُ  اَلسَّلامُ عَلَى الاَرْواحِ الْمُنیخَةِ بِقَبْرِ اَبى عَبْدِ اللَّهِ الْحُسَینِ عَلَیهِ السَّلامُ اَلسَّلامُ عَلَیکمْ یا طَاهِرینَ مِنَ الدَّنَسِ اَلسَّلامُ عَلَیکمْ یا مَهْدِیونَ اَلسَّلامُ عَلَیکمْ یَا اَبْرارَ اللَّهِ اَلسَّلامُ عَلَیکمْ وَعَلَى الْمَلاَّئِکةِ الْحآفّینَ بِقُبُورِکمْ اَجْمَعینَ جَمَعَنَا اللَّهُ وَاِیاکمْ فى مُسْتَقَرِّ رَحْمَتِهِ وَتَحْتِ عَرْشِهِ اِنَّهُ اَرْحَمُ الرَّاحِمینَ وَاَلسَّلامُ عَلَیکمْ وَرَحْمَةُ اللَّهِ وَبَرَکاتُهُ.

২৭ শে রজব রাতের আমল

২৭শে রজব তারিখের রাতটি অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি রাত; কেননা উক্ত তারিখে রাসুল (সা.) রেসালাত প্রাপ্ত হন। আর এ কারণেই উক্ত রাতে বিশেষ কিছু আমল রয়েছে যেমন:

1.       গোসল করা।

2.      ১২ রাকাত নামাজ পড়া। প্রত্যেক দুই রাকাত নামাজের শেষে বসা অবস্থায় সুরা ফাতিহা, ফালাক্ব, নাস, ইখলাস, কাফেরুন, ক্বদর ও আয়াতুল কুরসী প্রত্যেকটি ৭ বার করে পাঠ করতে হবে। অতঃপর নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করতে হবে:

اَلْحَمْدُ لِلّهِ الَّذى لَمْ یتَّخِذْ وَلَداً وَلَمْ یکنْ لَهُ شَریک فى الْمُلْک وَلَمْ یکنْ لَهُ وَلِىُّ مِن الذُّلِّ وَکبِّرْهُ تَکبیراً اَللّهُمَّ اِنّى اَسئَلُک بِمَعاقِدِ عِزِّک عَلَى اَرْکانِ عَرْشِک وَمُنْتَهَى الرَّحْمَةِ مِنْ کتابِک وَبِاسْمِک الاْعْظَمِ الاْعْظَمِ الاْعْظَمِ وَذِکرِک الاْعْلىَ الاْعْلىَ الاْعْلى وَبِکلِماتِک التّامّاتِ اَنْ تُصَلِّىَ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِهِ وَاَنْ تَفْعَلَ بى ما اَنْتَ اَهْلُهُ.

অতঃপর দোয়া করতে হবে।

3.      হজরত আলী (আ.) এর যিয়ারত পাঠ করা।

4.      শাইখ কাফআমি (রহ.) তার “বালাদুল আমীন” নামক গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন উক্ত রাতে নিন্মোক্ত দোয়াটি পড়া উত্তম:

اَللّهُمَّ اِنّى اَسئَلُک بِالتَّجَلِىِ الاْعْظَمِ فى هذِهِ اللَّیلَةِ مِنَ الشَّهْرِ الْمُعَظَّمِ وَالْمُرْسَلِ الْمُکرَّمِ اَنْ تُصَلِّىَ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِهِ وَاَنْ تَغْفِرَ لَنا ما اَنْتَ بِهِ مِنّا اَعْلَمُ یا مَنْ یعْلَمُ وَلا نَعْلَمُ اَللّهُمَّ بارِک لَنا فى لَیلَتِنا هذِهِ الَّتى بِشَرَفِ الرِّسالَةِ فَضَّلْتَها وَبِکرامَتِک اَجْلَلْتَها وَبِالْمَحَلِّ الشَّریفِ اَحْلَلْتَها اَللّهُمَّ فَاِنّا نَسْئَلُک بِالْمَبْعَثِ الشَّریفِ وَالسَّیدِ اللَّطیفِ وَالْعُنْصُرِ الْعَفیفِ اَنْ تُصَلِّىَ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِهِ وَ اَنْ تَجْعَلَ اَعْمالَنا فى هذِهِ اللَّیلَةِ وَفى سایرِ اللَّیالى مَقْبُولَةً وَذُنُوبَنا مَغْفُورَةً وَحَسَناتِنا مَشْکورَةً وَسَیئاتِنا مَسْتُورَةً وَقُلوُبَنا بِحُسْنِ الْقَوْلِ مَسْرُورَةً وَاَرْزاقَنا مِنْ لَدُنْک بِالْیسْرِ مَدْرُورَةً اَللّهُمَّ اِنَّک تَرى وَلا تُرى وَاَنْتَ بِالْمَنْظَرِ الاْعْلى وَاِنَّ اِلَیک الرُّجْعى وَالْمُنْتَهى وَاِنَّ لَک الْمَماتَ وَالْمَحْیا وَاِنَّ لَک الاْخِرَةَ وَالاُولى اَللّهُمَّ اِنّا نَعُوذُ بِک اَنْ نَذِلَّ وَنَخْزى وَاَنْ نَاءتِىَ ما عَنْهُ تَنْهى اَللّهُمَّ اِنّا نَسْئَلُک الْجَنَّةَ بِرَحْمَتِک وَنَسْتَعیذُ بِک مِنَ النّارِ فَاَعِذْنا مِنْها بِقُدْرَتِک وَنَسْئَلُک مِنَ الْحُورِ الْعینِ فَارْزُقْنا بِعِزَّتِک وَاجْعَلْ اَوْسَعَ اَرْزاقِنا عِنْدَ کبَرِ سِنِّنا وَاَحْسَنَ اَعْمالِنا عِنْدَ اقْتِرابِ اجالِنا وَاَطِلْ فى طاعَتِک وَما یقَرِّبُ اِلَیک وَیحْظى عِنْدَک وَیزْلِفُ لَدَیک اَعْمارَنا وَاَحْسِنْ فى جَمیعِ اَحْوالِنا وَاُمُورِنا مَعْرِفَتَنا وَلا تَکلْنا اِلى اَحَدٍ مِنْ خَلْقِک فَیمُنَّ عَلَینا وَتَفَضَّلْ عَلَینا بجَمیعِ حَوایجِنا لِلدُّنْیا وَالاْخِرَةِ وَابْدَاْ بِابائِنا وَاَبْنائِنا وَجَمیعِ اِخْوانِنَا الْمُؤْمِنینَ فى جَمیعِ ما سَئَلْناک لاِنْفُسِنا یا اَرْحَمَ الرّاحِمینَ اَللّهُمَّ اِنّا نَسْئَلُک بِاسْمِک الْعَظیمِ وَمُلْکک الْقَدیمِ اَنْ تُصَلِّىَ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِ مُحَمَّدٍ وَاَنْ تَغْفِرَ لَنَا الذَّنْبَ الْعَظیمَ اِنَّهُ لا یغْفِرُ الْعَظیمَ اِلا الْعَظیمُ اَللّهُمَّ وَهذا رَجَبٌ الْمُکرَّمُ الَّذى اَکرَمْتَنابِهِ اَوَّلُ اَشْهُرِ الْحُرُمِ اَکرَمْتَنا بِهِ مِنْ بَینِ الاُمَمِ فَلَک الْحَمْدُ یا ذَاالْجُودِ وَالْکرَمِ فَاَسْئَلُک بِهِ وَبِاسْمِک الاْعْظَمِ الاْعْظَمِ الاْعْظَمِ الاْجَلِّ الاْکرَمِ الَّذى خَلَقْتَهُ فَاسْتَقَرَّ فى ظِلِّک فَلا یخْرُجُ مِنْک اِلى غَیرِک اَنْ تُصَلِّىَ عَلى مُحَمَّدٍ وَاَهْلِ بَیتِهِ الطّاهِرینَ وَاَنْ تَجْعَلَنا مِنَ الْعامِلینَ فیهِ بِطاعَتِک وَالاْمِلینَ فیهِ لِشَفاعَتِک اَللّهُمَّ اهْدِنا اِلى سَواءِ السَّبیلِ وَاجْعَلْ مَقیلَنا عِنْدَک خَیرَ مَقیلٍ فى ظِلٍّ ظَلیلٍ وَمُلْک جَزیلٍ فَاِنَّک حَسْبُنا وَنِعْمَ الْوَکیلُ اَللّهُمَّ اقْلِبْنا مُفْلِحینَ مُنْجِحینَ غَیرَ مَغْضُوبٍ عَلَینا وَلا ضالّینَ بِرَحْمَتِک یا اَرْحَمَ الرّاحِمینَ اَللّهُمَّ اِنّى اَسئَلُک بِعَزائِمِ مَغْفِرَتِک وَبِواجِبِ رَحْمَتِک السَّلامَةَ مِنْ کلِّ اِثْمٍ وَالْغَنیمَةَ مِنْ کلِّ بِرٍّ وَالْفَوْزَ بِالْجَنَّةِ وَالنَّجاةَ مِنَ النّارِ اَللّهُمَّ دَعاک الدّاعُونَ وَدَعَوْتُک وَسَئَلَک السّائِلُونَ وَسَئَلْتُک وَطَلَبَ اِلَیک الطّالِبُونَ وَطَلَبْتُ اِلَیک اَللّهُمَّ اَنْتَ الثِّقَةُ وَالرَّجاءُ وَاِلَیک مُنْتَهَى الرَّغْبَةِ فِى الدُّعاءِ اَللّهُمَّ فَصَلِّ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِهِ وَاجْعَلِ الْیقینَ فى قَلْبى وَالنُّورَ فى بَصَرى وَالنَّصیحَةَ فى صَدْرى وَذِکرَک بِاللَّیلِ وَالنَّهارِ عَلى لِسانى وَرِزْقاً واسِعاً غَیرَ مَمْنُونٍ وَلا مَحْظُورٍ فَارْزُقْنى وَبارِک لى فیما رَزَقْتَنى وَاجْعَلْ غِناىَ فى نَفْسى وَرَغْبَتى فیما عِنْدَک بِرَحْمَتِک یا اَرْحَمَ الرّاحِمینَ

অতঃপর সেজদায় গিয়ে ১০০ বার বলতে হবে:

اَلْحَمْدُ لِلّهِ الَّذى هَدانا لِمَعْرِفَتِهِ وَخَصَّنا بِوِلایتِهِ وَوَفَّقَنا لِطاعَتِهِ شُکراً شُکراً

অতঃপর সেজদা থেকে উঠে বলতে হবে:

اَللّهُمَّ اِنّى قَصَدْتُک بِحاجَتى وَاعْتَمَدْتُ عَلَیک بِمَسْئَلَتى وَتَوَجَّهْتُ اِلَیک بِاَئِمَّتى وَسادَتى اَللّهُمَّ انْفَعْنا بِحُبِّهِمْ وَاَوْرِدْنا مَوْرِدَهُمْ وَارْزُقْنا مُرافَقَتَهُمْ وَاَدْخِلْنَا الْجَنَّةَ فى زُمْرَتِهِمْ بِرَحْمَتِک یا اَرْحَمَ الرّاحِمینَ.

২৭শে রজব দিনের আমল

২৭শে রজব যখন রাসুল (সা.) রেসালত প্রাপ্ত হন তখন হজরত জিব্রাইল (আ.) রাসুল (সা.)এর সমীপে আসেন এবং তাঁকে কিছু আমলের শিক্ষা দেন।  আমলসমূহ নিন্মরূপ:

1.       গোসল করা।

2.      রোজা রাখা। উক্ত দিনে রোজা রাখলে ৭০ বছরের রোজার সমপরিমাণ সওয়াব পাওয়া যায়।

3.      অধিক দুরুদ শরীফ পাঠ করা।

4.      রাসুল (সা.) ও ইমাম আলী  (আ.) এর যিয়ারত পাঠ করা।

5.      ১২ রাকাত নামাজ পড়া। নামাজান্তে সুরা ফাতিহা, ইখলাস, ফালাক্ব ও নাস প্রত্যেকটি ৪ বার করে পাঠ করতে হবে। অতঃপর বলতে হবে:

لا اِلهَ اِلا اللّهُ واللّهُ اَکبَرُ وَسُبْحانَ اللّهِ وَالْحَمْدُلِلّهِ وَلا حَوْلَ وَلا قُوَّةَ اِلاّبِاللّهِ الْعَلِىِّ الْعَظیمِ.

৪ বার বলতে হবে:

اللّهُ اللّهُ رَبِّى لا اُشْرِک بِهِ شَیئا.

৪ বার বলতে হবে:

لا اُشْرِک بِرَبِّى اَحَدا.

6.      আবুল কাশেম হুসাইন বিন রূহ (রহ.) হতে বর্ণিত হয়েছে যে, তিনি বলেছেন: উক্ত দিনে ১২ রাকাত নামাজ পড়া উত্তম। প্রত্যেক দুই রাকাত নামাজের শেষে বলতে হবে:

اَلْحَمْدُ لِلهِ  الَّذى لَمْ یتَّخِذْ وَلَداً وَلَمْ یکنْ لَهُ شَریک فى الْمُلْک وَلَمْ یکنْ لَهُ وَلِىُّ مِنَ الذُّلِّ وَکبِّرْهُ تَکبیراً یا عُدَّتى فى مُدَّتى یا صاحِبى فى شِدَّتى یا وَلیى فى نِعْمَتى یا غِیاثى فى رَغْبَتى یا نَجاحى فى حاجَتى یا حافِظى فى غَیبَتى یا کافِىَّ فى وَحْدَتى یا اُنْسى فى وَحْشَتى اَنْتَ السّاتِرُ عَوْرَتى فَلَک الْحَمْدُ واَنْتَ الْمُقیلُ عَثْرَتى فَلَک الْحَمْدُ وَاَنْتَ الْمُنْعِشُ صَرْعَتى فَلَک الْحَمْدُ صَلِّ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِ مُحَمَّدٍ وَاسْتُرْ عَوْرَتى وَآمِنْ رَوْعَتى وَاَقِلْنى عَثْرَتى وَاصْفَحْ عَنْ جُرْمى وَتَجاوَزْ عَنْ سَیئاتى فى اَصْحابِ الْجَنَّةِ وَعْدَ الصِّدْقِ الَّذى کانُوا یوَعَدُونَ.

১২ রাকাত নামাজ শেষ হয়ে গেলে সুরা ফাতিহা, ইখলাস, ফালাক্ব, নাস, কাফিরুন, ক্বদর ও  আয়াতুল কুরসী প্রত্যেকটি ৭ বার করে পাঠ করতে হবে। অতঃপর ৭ বার বলতে হবে:

لا اِلهَ اِلا اللّهُ واللّهُ اَکبَرُ وَسُبْحانَ اللّهِ وَلا حَوْلَ وَلا قُوَّةَ اِلاّ بِاللّهِ.

অতঃপর ৭ বার বলতে হবে:

اللّهُ اللّهُ رَبَّى لا اُشْرِک بِهِ شَیئا.

অতঃপর দোয়া করতে হবে।

7.      উক্ত দিনে নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করা মুস্তাহাব:

یا مَنْ اَمَرَ بِالْعَفْوِ وَالتَّجاوُزِ وَضَمَّنَ نَفْسَهُ الْعَفْوَ وَالتَّجاوُزَ یا مَنْ عَفى وَتَجاوَزَ اُعْفُ عَنّى وَتَجاوَزْ یا کریمُ اَللّهُمَّ وَقَدْ اَکدَى الطَّلَبُ وَاَعْیتِ الْحیلَةُ وَالْمَذْهَبُ وَدَرَسَتِ الاْمالُ وَانْقَطَعَ الرَّجاءُ اِلاّ مِنْک وَحْدَک لا شَریک لَک اَللّهُمَّ اِنّى اَجِدُ سُبُلَ الْمَطالِبِ اِلَیک مُشْرَعَةً وَمناهِلَ الرَّجاءِ لَدَیک مُتْرَعَةً واَبْوابَ الدُّعاءِ لِمَنْ دَعاک مُفتَّحَةً وَالاِسْتِعانَةَ لِمَنِ اسْتَعانَ بِک مُباحَةً وَاَعْلَمُ اَنَّک لِداعیک بِمَوْضِعِ اِجابَةٍ وَللصّارِخِ اِلَیک بِمَرْصَدِ اِغاثَةٍ وَاَنَّ فِى اللَّهْفِ اِلى جُودِک وَالضِّمانِ بِعِدَتِک عِوَضاً مِنْ مَنْعِ الْباخِلینَ وَمَنْدُوحَةً عَمّا فى اَیدِى الْمُسْتَاْثِرینَ وَاَنَّک لا تَحْتَجِبُ عَنْ خَلْقِک اِلاّ اَنْ تَحْجُبَهُمُ الاْعْمالُ دُونَک وَقَدْ عَلِمْتُ اَنَّ اَفْضَلَ زادِ الرّاحِلِ اِلَیک عَزْمُ اِرادَةٍ یخْتارُک بِها وَقَدْ ناجاک بِعَزْمِ الاِرادَةِ قَلْبى وَاَسْئَلُک بِکلِّ دَعْوَةٍ دَعاک بِها راجٍ بَلَّغْتَهُ اَمَلَهُ اَوْصارِخٌ اِلَیک اَغَثْتَ صَرْخَتَهُ اَوْ مَلْهُوفٌ مَکرُوبٌ فَرَّجْتَ کرْبَهُ اَوْ مُذْنِبٌ خاطِئٌ غَفَرْتَ لَهُ اَوْ مُعافىً اَتْمَمْتَ نِعْمَتَک عَلَیهِ اَوْ فَقیرٌ اَهْدَیتَ غِناک اِلَیهِ وَلِتِلْک الَّدعْوَةِ عَلَیک حَقُّ وَعِنْدَک مَنْزِلَةٌ اِلاّ صَلَّیتَ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِ مُحَمَّدٍ وَقَضَیتَ حَوائِجى حَوائِجَ الدُّنْیا وَالاْخِرَةِ وَهذا رَجَبٌ الْمُرَجَّبُ الْمُکرَّمُ الَّذى اَکرَمْتَنا بِهِ اَوَّلُ اَشْهُرِ الْحُرُمِ اَکرَمْتَنا بِهِ مِنْ بَینِ الاُمَمِ یا ذَاالْجُودِ وَالْکرَمِ فَنَسْئَلُک بِهِ وَبِاسْمِک الاْعْظَمِ الاْعْظَمِ الاْعْظَمِ الاْجَلِّ الاْکرَمِ الَّذى خَلَقْتَهُ فَاسْتَقَرَّ فى ظِلِّک فَلا یخْرُجُ مِنْک اِلى غَیرِک اَنْ تُصَلِّىَ عَلى مُحَمَّدٍ وَاَهْلِ بَیتِهِ الطّاهِرینَ وَتَجْعَلَنا مِنَ الْعامِلینَ فیهِ بِطاعَتِک وَالاْمِلینَ فیهِ بِشَفاعَتِک اَللّهُمَّ وَاهْدِنا اِلى سَواءِ السِّبیلِ وَاجْعَلْ مَقیلَنا عِنْدَک خَیرَ مَقیلٍ فى ظِلٍّ ظَلیلٍ فَاِنَّک حَسْبُنا وَنِعْمَ الوَکیلُ وَالسَّلامُ عَلى عِبادِهِ المُصْطَفَینَ وَصَلَواتُهُ عَلَیهِمْ اَجْمَعینَ اَللّهُمَّ وَبارِک لَنا فى یوْمِنا هَذَا الَّذى فَضَّلْتَهُ وَبِکرامَتِک جَلَّلْتَهُ وَبِالْمَنْزِلِ  [الْعَظیمِ] الاْعْلى اَنْزَلْتَهُ صَلِّ عَلى مَنْ فیهِ اِلى عِبادِک اَرْسَلْتَهُ وَبِالْمَحَلِّ الْکریمِ اَحْلَلْتَهُ اَللّهُمَّ صَلِّ عَلَیهِ صَلوةً دائِمَةً تَکونُ لَک شُکراً وَلَنا ذُخراً وَاجْعَلْ لَنا مِنْ اَمْرِنا یسراً وَاخْتِمْ لَنا بِالسَّعادَةِ اِلى مُنْتَهى آجالِنا وَقَدْ قَبِلْتَ الْیسیرَ مِنْ اَعْمالِنا وَبَلَّغْتَنا بِرَحْمَتِک اَفْضَلَ آمالِنا اِنَّک عَلى کلِّشَىءٍ قَدیرٌ وَصَلَّى اللهُ عَلى مُحَمَّدٍ وَآلِهِ وَسَلَّمَ.

রজব মাসের শেষ তারিখের আমলসমূহ

1.       গোসল করা।

2.      রোজা রাখা।

3.      সালমান ফার্সি (রা.) এর বিশেষ মুস্তাহাব নামাজ পড়া।

হজরত সালমান (রা.)সম্পর্কিত বিশেষ নফল নামাজটি ১০ রাকাত। যা দুই দুই রাকাত করে পড়তে হয়। নামাজটি পড়ার পদ্ধতি: প্রথম রাকাতে সুরা ফাতিহার পরে ৩ বার সুরা ইখলাস, ৩ বার সুরা কাফেরুন। দ্বিতীয় রাকাতটিও অনুরূপ পদ্ধতিতে পড়তে হবে। অতঃপর হাতদ্বয়কে উচু করে বলতে হবে:

لا إِلَهَ إِلا اللَّهُ وَحْدَهُ لا شَرِيكَ لَهُ لَهُ الْمُلْكُ وَ لَهُ الْحَمْدُ يُحْيِي وَ يُمِيتُ وَ هُوَ حَيٌّ لا يَمُوتُ بِيَدِهِ الْخَيْرُ وَ هُوَ عَلَى كُلِّ شَيْ‏ءٍ قَدِيرٌ.

অতঃপর বলতে হবে:

اللَّهُمَّ لا مَانِعَ لِمَا أَعْطَيْتَ وَ لا مُعْطِيَ لِمَا مَنَعْتَ وَ لا يَنْفَعُ ذَا الْجَدِّ مِنْكَ الْجَدُّ.

অতঃপর তার দুই হাতকে নিজের মুখের উপরে বুলাবে।

রজব মাসের ১৫ তারিখে উক্ত নামাজটি অনুরূপ পদ্ধতিতে পড়া উত্তম। নামাজান্তে বলতে হবে:

إِلَها وَاحِدا أَحَدا فَرْدا صَمَدا لَمْ يَتَّخِذْ صَاحِبَةً وَ لا وَلَدا.

রজব মাসের শেষ তারিখেও উক্ত নামাজটি পড়া উত্তম। নামাজান্তে বলতে হবে:

لا إِلَهَ إِلا اللَّهُ وَحْدَهُ لا شَرِيكَ لَهُ لَهُ الْمُلْكُ وَ لَهُ الْحَمْدُ يُحْيِي وَ يُمِيتُ وَ هُوَ حَيٌّ لا يَمُوتُ بِيَدِهِ الْخَيْرُ وَ هُوَ عَلَى كُلِّ شَيْ‏ءٍ قَدِيرٌوَ صَلَّى اللَّهُ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِهِ الطَّاهِرِينَ وَ لا حَوْلَ وَ لا قُوَّةَ إِلا بِاللَّهِ الْعَلِيِّ الْعَظِيمِ

এস, এ, এ
Ref: http://www.tvshia.com/bn/content/16190