উক্তি সমূহ ৪৫১ – ৪৭৫

৪২৬। কোন একজন আমিরুল মোমেনিনের সম্মুখে “আস্তাগাফিরুল্লাহ’ বলাতে তিনি বললেন, “তোমার মাতা পুত্র হারা হোক; তুমি কি জান ইস্তিগফার কী? উচ্চ মর্যাদাশীল ব্যক্তিদের জন্যই “ইস্তিগফার’ শব্দটি ৬টি খুঁটির উপর প্রতিষ্ঠিত। প্রথম, অতীত বিষয়ে অনুতাপ; দ্বিতীয়, সেদিকে আর প্রত্যাবর্তন না করার বিষয়ে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ; তৃতীয়, মানুষের সকল অধিকার পূরণ করা যাতে আল্লাহর কাছে পরিস্কার ভাবে যেতে পারে এবং কোন জবাবদিহি করতে না হয়; চতুর্থ, সকল দায়িত্ব পালন করা যাতে ন্যায় প্রতিষ্ঠিত হয়; পঞ্চম, হারাম রোজগার দ্বারা যে মাংস শরীরে হয়েছে। অনুতাপে তা গলিয়ে দেয়া যেন চামড়া হাড়ের সঙ্গে লেগে যায় এবং আবার নতুন মাংস গজায়; ষষ্ঠ, আল্লাহর আনুগত্যের বেদনা সহ্য করার জন্য দেহকে গড়ে তোলা। এ অবস্থায় তুমি “আস্তাগাফিরুল্লাহ্” বলতে পার।

৪২৭। ক্ষমাশীলতা জ্ঞাতি-গোষ্ঠীর মতো আত্মীয়।

৪২৮। আদম সন্তানগণ কতই না দুর্বল! তার মৃত্যু গুপ্ত, তার রোগ-ব্যাধি অজানা, তার আমল সংরক্ষিত, একটা মশার কামড়তাকে ব্যথা দেয়, শ্বাসরুদ্ধ হয়ে তার মৃত্যু হয় এবং ঘর্মািক্ত হলে তার শরীর থেকে দুর্গন্ধ বের হয়।

৪২৯। বর্ণিত আছে যে, একদিন আমিরুল মোমেনিন তার সহচরদের মাঝে বসেছিলেন। এমন সময় তাদের পাশ দিয়ে একজন সুন্দরী মহিলা যাচ্ছিলেন। সহচরীগণ ওই মহিলার দিকে তাকাতে শুরু করলো। আমিরুল মোমেনিন বললেন, “এ লোকগুলোর চক্ষু লোলুপ; তাদের লোলুপ হবার কারণ হলো
তাকানো। যদি কোন নারীর সৌন্দর্যে তোমরা আকর্ষিত হও তবে তোমাদের স্ত্রীর কাছে চলে যেয়ো, কারণ এ মহিলাও তোমাদের স্ত্রীর মতো।” একজন খারেজি একথা শুনে বললো “প্রচলিত মতবিরোধী এ লোকটিকে আল্লাহ নিধণ করুন। সে কতইনা যুক্তিবাদী।” এ কথা শুনামাত্র আমিরুল মোমেনিনের অনুচরগণ লোকটিকে হত্যা করতে উদ্ধত হলো। কিন্তু আমিরুল মোমেনিন বললেন, “তোমরা থামো। গালির বদলে তোমরা গালি দিতে পার। অন্যথায় অপরাধ ক্ষমা করে দেয়াই ভালো।”

৪৩০। তোমার জ্ঞান দ্বারা যদি ধ্বংসের পথ ও হেদায়েতের পথ পরখ করতে পার তবে তা তোমার জন্য যথেষ্ট ।

৪৩১। মানুষের কল্যাণ করে। কল্যাণকর কাজের কোন অংশকে ক্ষুদ্র মনে করো না কারণ এর ক্ষুদ্রাংশও অনেক বড়। কল্যাণকর কাজের বেলায় কখনো একথা বলো না যে “আমার অপেক্ষা অন্য ব্যক্তি এ কাজের জন্য অধিক উপযুক্ত।” যদি এরকম কথা বলো তবে মনে রেখো, আল্লাহর কসম, বাস্তবে তাই ঘটবে। সমাজে ভালো ও মন্দ উভয় ধরণের লোক আছে। তুমি যেটা ফেলে রাখবে অন্যরা সেটা করে ফেলবে ।

৪৩২। যে নিজের বাতেনকে সঠিক পথে রাখে আল্লাহ তার বাহ্যিক দিক সঠিক পথে রাখেন। যে দ্বিনের খেদমত করে আল্লাহ তার দুনিয়ার কর্মকাণ্ড সম্পাদন করে দেন। যে আল্লাহ ও তার নিজের মধ্যকার কর্মকান্ড সৎভাবে করে আল্লাহ ওই ব্যক্তির ও অন্য লোকদের মধ্যকার কর্মকাণ্ড কল্যাণকর করে দেন ।

৪৩৩। ধৈর্য দুর্বলতা ঢাকার এক প্রকার পর্দা এবং জ্ঞান তীক্ষ্ম তরবারি। সুতরাং তোমার স্বভাবের দুর্বলতা ধৈর্য দ্বারা ঢেকে রেখো এবং জ্ঞান দ্বারা কামনা-বাসনাকে হত্যা করো।

৪৩৪। আল্লাহর এমন কিছু বান্দা আছেন যাদেরকে আল্লাহ তার নেয়ামত দ্বারা অভিষিক্ত করে রেখেছেন যেন তারা অন্যদের উপকারে আসে। সুতরাং তিনি তাঁর নেয়ামত ততক্ষণ পর্যন্ত তাদের হাতে রাখেন যতক্ষণ পর্যন্ত তারা তা অন্যকে প্রদান করে। যখন তারা নেয়ামত অন্যকে প্রদানে অস্বীকৃতি জানায় তখন আল্লাহ তা তুলে নিয়ে যান এবং অন্যকে প্রদান করেন।

৪৩৫। সম্পদ আর স্বাস্থ্য নিয়ে গর্ব করার কিছু নেই। কারণ এখন যাকে স্বাস্থ্যবান দেখছো একটু পরেই সে রুগ্ন হয়ে পড়তে পারে এবং এখন যাকে ধন্যবান দেখছো একটু পরেই সে দুর্দশাগ্রস্ত হয়ে যেতে পারে ।

৪৩৬। যে ব্যক্তি অভাব-অভিযোগের বিষয় কোন মোমিনের কাছে বলে সে যেন তা আল্লাহর কাছে বললো। আর যদি কোন কাফেরের কাছে বলে তবে সে যেন আল্লাহর বিরুদ্ধে অভিযোগ করলো ।

৪৩৭। এক ঈদের দিনে আমিরুল মোমেনিন বলেছিলেন, সে ব্যক্তির জন্য ঈদ যার সিয়াম আল্লাহ গ্রহণ করেন এবং যার সালাতে তিনি সন্তুষ্ট। বস্তৃত যেদিন মানুষ কোন পাপ করে না সেদিনই তার জন্য ঈদ।

৪৩৮। বিচার দিনে সে ব্যক্তিই সর্বাপেক্ষা বেশি অনুতপ্ত হবে যে অন্যায় পথ অবলম্বন করে সম্পদ উপার্জন করেছে। সম্পদের উত্তরাধিকারী যদি মহিমান্বিত আল্লাহর পথে তা ব্যয় করে তবে সে (উত্তরাধিকারী) বেহেশতবাসী হবে; কিন্তু প্রথম উপার্জনকারী তার অপরাধের জন্য দোযখবাসী হবে।

৪৩৯। যে ব্যক্তির ভাগ্যে ধনসম্পদ না থাকা সত্ত্বেও তার জন্য প্রাণপণ প্রচেষ্টা চালায় সে ব্যক্তি জীবনে অকৃতকার্যতার গ্লানি নিয়ে বেঁচে থাকে। সে ব্যক্তি এ পৃথিবী থেকে দুঃখপূর্ণ অবস্থায় চলে যায়। আবার পরকালেও ধনী লোলুপতার ফল ভোগ করবে।

৪৪০। জীবিকা দুপ্রকারেরঃ অনুসন্ধাকারী ও যা অনুসন্ধান করা হয়েছে। সুতরাং যে এ দুনিয়ার প্রতি লালায়িত হয় মৃত্যু তাকে সন্ধান করে নেয় দুনিয়া থেকে মুখ ফেরানোর পূর্বেই। আর যে ব্যক্তি পরকালের প্রতি লালায়িত থাকে জাগতিক আরাম-আয়েশ তাকে ততক্ষণ পর্যন্ত চায় যতক্ষণ পর্যন্ত সে দুনিয়া থেকে জীবিকা গ্রহণ না করে।

৪৪১। আল্লাহ্ প্রেমিকগণ এ দুনিয়ার অন্তর্দিকে দৃকপাত করে। আর অন্যরা বহিঁদিকে দৃকপাত করে। আল্লাহ প্রেমিকগণ সুদূর প্রসারী লাভের দিকে ঝুকে পড়ে। আর অন্যরা আপাত লাভের জন্য ব্যস্ত থাকে। আল্লাহ প্রেমিকগণ সেসব জিনিসকে হত্যা করে যা তাদের হত্যা করবে বলে ভয় করে এবং এ পৃথিবীতে সেসব জিনিস ত্যাগ করে যা তাদের ত্যাগ করবে বলে মনে করে। অন্যদের ধন-সম্পদ স্তুপীকরণকে তারা অতি নগণ্য বিষয় বলে মনে করে। অন্যরা যেটা ভালোবাসে আল্লাহ প্রেমিকগণ সেটাকে শত্রু বলে মনে করে। আবার তারা যেটাকে ভালোবাসে অন্যরা তা ঘূণা করে। আল্লাহ প্রেমিকগণের মাধ্যমে কুরআনের শিক্ষা প্রসারিত হয় এবং কুরআনের মাধ্যমেই তারা জ্ঞান লাভ করে। তাদের সাথেই কুরআন থাকে এবং তারা কুরআনে প্রতিষ্ঠিত। তারা কোন অসম্ভব। আশা পোষণ করে না এবং যা ভয়ের কারণ সেটা ছাড়া অন্য কিছুকে ভয় করে না ।

৪৪২। মনে রেখো, আনন্দ চলে যাবে কিন্তু তার ফলাফল থেকে যাবে।

৪৪৩। কোন ব্যক্তিকে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ঘূণা করো।”
১। আশ-শরীফ আর-রাজী উল্লেখ করেছেন যে, কারো কারো মতে এ উক্তি রাসুলের (সঃ)। কিন্তু ইবনুল আরাবী লিখেছেন যে, খলিফা আল-মামুন বলেছেন “আলী যদি “উকবার তাকলিহি না বলতেন তবে আমি আকলিহি তাকবুর’ বলতাম।” উকবার তাকলিহি অর্থ কাউকে পরীক্ষা করে ঘূণা করো আর আকলিহি তাকবুর অর্থ পরীক্ষার জন্য কাউকে ঘৃণা করো।

৪৪৪। বিষয়টি এমন নয় যে, সর্বশক্তিমান আল্লাহ কারো জন্য শুকরিয়ার দ্বার খোলা রেখেছেন এবং নেয়ামত ও প্রাচুর্যের দ্বার বন্ধ করে দিয়েছেন; কারো জন্য সালাতের দ্বার খুলে দিয়েছেন। আর তা কবুলের দ্বার বন্ধ করে দিয়েছেন অথবা কারো জন্য তওবার দ্বার খুলে দিয়েছেন এবং তাকে ক্ষমা করার দ্বার বন্ধ করে দিয়েছেন।

৪৪৫। সম্মানজনক পদমর্যাদার জন্য সেই ব্যক্তি অধিক উপযোগী যে সম্ভ্রান্ত বংশোদ্ভূত।

৪৪৬। কোন এক ব্যক্তি আমিরুল মোমেনিনকে জিজ্ঞেস করেছিলেন, “ন্যায় বিচার ও উদারতা এ দুটির কোনটি অধিক ভালো।” উত্তরে তিনি বললেন যে, ন্যায় বিচার কোন বিষয়কে যথাযোগ্য স্থানে প্রতিষ্ঠিত করে; আর উদারতা সেসব বিষয়কে যথাযোগ্য দিক থেকে সরিয়ে নিতে পারে। ন্যায় বিচার হলো সার্বিক তত্ত্বাবধায়ক আর উদারতা হলো নির্দিষ্ট বিশেষ সুবিধা। ফলত ন্যায় বিচার উদারতা অপেক্ষা বড় ও বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত।

৪৪৭। মানুষ যা জানে না সেই বিষয়ের সে শত্রু।

৪৪৮। দরবেশি কুরআনের দুটি বক্তব্যের মধ্যে সীমাবদ্ধ। মহিমান্বিত আল্লাহ বলেন, “পাছে তোমরা যা পাও নি তার জন্য নিজে নিজে দুঃখ কর এবং তিনি তোমাদের যা দিয়েছেন সে জন্য অতি উল্লসিত হয়ে পড়” (কুআন ৫৭ ঃ ৩২)। যে ব্যক্তি হারানো বিষয়ে দুঃখ করে না এবং যা পায় তাতে বিদ্রোহ করে না সেই প্রকৃত দরবেশি অর্জন করেছে।

৪৪৯। নিদ্রা দিনের সংকল্পের কতই না ভঙ্গকারী।

৪৫০ । শাসন ক্ষমতা মানুষের প্রমাণ-ক্ষেত্র।

৪৫১ ৷ তোমাদের ওপর তোমাদের নিজেদের শহর অপেক্ষা অন্য কোন শহরের বেশি অধিকার নেই। সে শহর তোমার জন্য সর্বোত্তম যেটিতে তুমি বাস করা।

৪৫২। আমিরুল মোমেনিন মালিক আশতারের শাহাদাতের সংবাদ শুনে বললেন, “হায় মালিক! কতো বড়ো মানুষ ছিল মালিকা!! আল্লাহর কসম, যদি সে পর্বত হতো, তাহলে হতো এক মহাপর্বতমালা; সে যদি পাথর হতো তাহলে সে এতোটা কঠিন ও বিশাল হতো যে, কোন অশ্বারোহী তার ওপর ওঠতে পারতো না, কোন পাখী পারতো না তার ওপর দিয়ে উড়তে।”

৪৫৩। যা স্থায়ী হয় তার সামান্যও ওটার অনেকটা থেকে ভালো যা দুঃখ বয়ে আনে।

৪৫৪। যদি কোন ব্যক্তির অতি প্রাকৃত একটি গুণ প্রকাশ পায় তবে তার সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে তার অন্যান্য গুণাবলী দেখে নিয়ো ।

৪৫৫ । আমিরুল মোমেনিন গালিব ইবেন মাসাআহ (কবি ফারাজদাকের পিতা) এর সাথে কথোপকথন কালে বললেন, “আপনার বিপুল সংখ্যক উটের কী অবস্থা?” গালিব উত্তর দিলেন, হে আমিরুল মোমেনিন, দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে উটি নিঃশেষ হয়ে গেছে।” আমিরুল মোমেনিন বললেন, “উটগুলো হারানোর প্রশংসিত পথ সেটাই।”

৪৫৬। দ্বিনের আইন-কানুন না জেনে যে ব্যবসায় করে সে কুসীদ ব্যবসায়ে জড়িয়ে পড়ে।

৪৫৭ । ছোট-খাট বিপদাপদকে যে বড় কিছু মনে করে আল্লাহ তাকে বড় দুঃখ-কষ্টে ফেলেন।

৪৫৮। যে ব্যক্তি আত্মসম্মানের দিকে খেয়াল রাখে। তার কামনা-বাসনা তার কাছে হালকা হয়ে যায় ।

৪৫৯ । যখনই মানুষ হাসি-তামাশায় লিপ্ত হয় তখনই সে তার প্রজ্ঞা থেকে কিছুটা সরে পড়ে।

৪৬০ । যেব্যক্তি তোমার দিকে ঝুকে পড়েছে তার দিক থেকে মুখ ফেরানো তোমারই সুবিধার অংশ হারানো। অপর দিকে তুমি কারো প্রতি বুকে পড়লে সে তোমার দিক থেকে মুখ ফেরানো তোমার জন্য অবমাননাকর।

৪৬১ ৷ ধনসম্পদ ও দুঃখ-দুর্দশা আল্লাহর সম্মুখে উপস্থাপনার অন্তর্ভুক্ত হবে।

৪৬২। জুবায়রের দুরাচার পুত্র আবদুল্লাহ্ জন্মাবার পূর্ব পর্যন্ত জুবায়র আমাদের একজন ছিল।”
১। আবদুল্লাহ ইবনে জুবায়ের ইবনে আওয়ান (১/৬২২-৭৩/৬৯২) এর মাতা ছিল আসমা বিনতে আবু বকর (আয়শার বোন)। বয়ঃপ্রাপ্ত হবার পর হতেই আবদুল্লাহ বনি হাশিমের প্রতি বিদ্বেষ ভাবাপন্ন হয়ে ওঠে; বিশেষ করে, আমিরুল মোমেনিনের প্রতি তার চরম বিদ্বেষ ছিল। তার পিতা জুবায়রের মনোভাব আমিরুল মোমেনিনের বিরুদ্ধে নিতেও সে কুষ্ঠা বোধ করে নি। অথচ আমিরুল মোমেনিন ছিলেন জুবায়রের পিতার খালার ছেলে। এ জন্যই আমিরুল মোমেনিন বলেছিলেন,
জুবায়রের অসৎ ছেলে আবদুল্লাহ বড় হবার পূর্ব পর্যন্ত জুবায়রা আমাদের একজন ছিল। (বার’, ৩য় খণ্ড, পৃঃ ১৯০৬ আহীর, ৩য় খণ্ড, পৃঃ ১৬২-১৬৩; আসাকীর’, ৭ম খণ্ড, পৃঃ ৩৬৩। হাদীদ’, ২য় খণ্ড, পৃঃ ১৬৭, ৪র্থ খণ্ড, পৃঃ ৭৯, ২০তম খণ্ড, পৃঃ ১০৪)
জামাল যুদ্ধের ইন্ধন যোগানদানকারীদের মধ্যে আবদুল্লাহ ছিল অন্যতম। তার খালা আয়শা, তার পিতা জুবায়ের ও তার মায়ের চাচাত ভাই তালহা আমিরুল মোমেনিনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছিল। ইবনে আবিল হাদীদ লিখেছেনঃ আবদুল্লাহ তার পিতা জুবায়রকে জামাল যুদ্ধে অবতীর্ণ হবার জন্য বাধা করেছিল এবং বসরার দিকে সৈন্য পরিচালনা করেছিল । আবদুল্লাহর এ কাজ আয়শার মনঃপুত হয়েছিল। আয়শা তার বোনের ছেলে আবদুল্লাহকে অত্যক্ত ভালোবাসতেন। আবদুল্লাহ ছিল তার কাছে মায়ের একমাত্র পুত্রের মতো আদরের এবং আয়শার কাছে আবদুল্লাহ অপেক্ষা অধিক প্রিয় আর কেউ ছিল না। (ইসফাহানী”, পৃঃ ১৪২. হাদীদ’, ২০তম খণ্ড, পৃঃ ১২০; কাহীর’, ৮ম খণ্ড, পৃ:৩৩৬) { হিশাম, ইবনে উরওয়া বলেছেনঃ আবদুল্লাহর জন্য আয়শা যত দোয়া করতো সেরকম দোয়া আর কারো জন্য করতে আমি শুনি নি । জামাল যুদ্ধে আবদুল্লাহ নিহত হয় নি – এ খবর যে দিয়েছিল তাকে আয়শা দশ হাজার দিরহাম পুরস্কার দিয়েছিল এবং আল্লাহর শুকারিয়া আদায়ের জন্য সিজদা করেছিল (আসাকীরা, ৭ম খণ্ড, পৃঃ ৪০২, হাদীদ’, ২০ তম কণ্ড, পৃঃ ১১৯) আয়শার এ ভালোবাসাই তাঁর ওপর আবদুল্লাহর কর্তৃত্বের মূল কারণ। আবদুল্লাহ তার ইচ্ছমত আয়শাকে পরিচালনা করতো। যাহোক বনি হাশিমের প্রতি আবদুল্লাহর বিদ্বেষ এমন পর্যায়ে পৌছেছিল যা বিভিন্ন ঐতিহাসিক নিম্নোক্তভাবে বর্ণনা করেছেনঃ মক্কায় আবদুল্লাহর খেলাফত কালে চল্লিশ জুমাতে সে খোৎবা প্রদানকালে রাসুলের (সঃ) ওপর দরুদ পেশ করে নি। সে বলতো, “রাসুলের ওপর দরুদ পেশ করতে কোন কিছুই বাধা দেয় নি। শুধু বনি হাশিমের এ কয়টি লোক রাসুলের নাম নিলে গর্বিত হবে এজন্য আমি দরুদ পেশ করি না।” অন্য একটি বর্ণনায় রয়েছে যে, আবদুল্লাহ বলেছে, “রামকুলের আহলুল বাইত ছাড়া অন্য কিছু তাঁর প্রতি দরুদ প্রেরণে আমাকে প্রতিহত করে নি। কারণ রাসুলের নাম নিলেই এ লোকগুলি মাথা নাড়বে” (ইসফাহানী’, পৃঃ ৪৭৪; মাসুদী’, ৩য় খণ্ড, পৃঃ ৪১৩, ইয়াকুবী’, ২য় খণ্ড, পৃঃ ২৬১; রাব্বিহ”, ৪র্থ খণ্ড, পৃঃ ৪১৩; হাদীদ’, ৪র্থ খণ্ড, পৃঃ ৬২; ১৯তম খণ্ড, পৃঃ ৯১-৯২, ২০তম খণ্ড, পৃঃ ১২৭-১২৯)। আমি চল্লিশ বছর ধরে আহলুল বাইতের প্রতি আমার পুঞ্জীভূত ঘূণা গোপন করে রেখেছি (মাসুদী’, ৩য় খণ্ড, পৃঃ ৮০; হাদীদ’, ৪র্থ খণ্ড, পৃঃ ৬২, ২০ তম খণ্ড, পৃঃ ১৪৮) { আবুদল্লাহ আমিরুল মোমেনিনের প্রতি ঘোর বিদ্বেষ পোষণ করতো। সে তার প্রতি সম্মানহানীকর ও অবমাননাকর উক্তি করতো, তাঁকে গালি দিত এবং তাঁর প্রতি অভিশাপ দিত (ইয়াকুবী’, ২য় খণ্ড, পৃঃ ২৬১-২৬২; মাসুদী’, ৩য় খণ্ড, পৃঃ ৮০; হাদীদ’, ৪র্থ খণ্ড, পৃঃ ৬১-৬৩, ৭৯)। আবদুল্লাহ আমিরুল মোমেনিনের পুত্র মুহাম্মদ ইবনে হানাফিয়া, আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস ও হাসান ইবনে হাসান ইবনে আলী ইবনে আবি তালিবসহ হাশিম বংশের সত্তর জনকে বন্দি করে আরিমের শিবে (ছোট একটা পাহাড়ি উপত্যকা) আটক করে রাখে। তাদের সকলকে পুড়িয়ে দেয়ার উদ্দেশ্যে উক্ত উপত্যকার প্রবেশ দ্বারে সে অনেক কাঠ স্তুপীকৃত করেছিল। এ সময় মুখতার ইবনে আবি উবায়েদ আছছাকাকী মক্কায় চার হাজার সৈন্য প্রেরণ করেছিলেন। তারা মক্কায় পৌঁছেই আবদুল্লাহ ইবনে জুবায়রকে আক্রমণ করলো এবং অপ্রত্যাশিতভাবে বনি হাশিমের বন্দিগণকে আরিম-শিব থেকে উদ্ধার করলো । আবদুল্লাহ ইবনে জুবায়রের ভ্রাতা উরওয়া আবদুল্লাহর এহেন কাজের জন্য ওজর পেশ করলো যে, বনি হাশিম আবদুল্লাহর আনুগত্যের শপথ গ্রহণ করে নি বলেই সে এ কাজ করতেছিল। তার কাজটি মূলত উমর ইবনে খাত্তাবের অনুকরণ মাত্র। কারণ বনি হাশিম আবু বকরের বায়াত গ্রহণ করে নি বলে তাদেরকে ফাতিমার ঘরে একত্রিত করে পুড়িয়ে দেয়ার জন্য উমর অনেক কাঠ স্তুপীকৃত করেছিলেন (ইসফাহানী, পৃঃ ৪৭৪; হাদীদ’, ১৯তম খণ্ড, পৃঃ ৯১; ২০ তম খণ্ড, পৃঃ ১২৩-১২৬, ১৪৬-১৪৮; আসাকীরা, ৭ম খণ্ড, পৃঃ ৪০৮, রাব্বিহ”, ৪র্থ খণ্ড, পৃঃ ৪১৩; সাদ’, ৫ম খণ্ড, পৃঃ ৭৩-৮১; তাবারী *, ২য় খণ্ড, পৃঃ ৬৯৩-৬৯৫; আছীর, ৪র্থ খণ্ড, পৃঃ ২৪৯-২৫৪; খালদুন’*’, ৩য় খন্ড) এ বিষয়ে আবুল ফারাজ ইসফাহানী লিখেছেনঃ দিতো এবং এ কাজে সে যেকোন মন্দ পন্থা অবলম্বনেও কুণ্ঠা বোধ করতো না । সে মিম্বারে বসেও বনি হাশিমের কুৎসা রটনা করতো এবং তাদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ছড়াতো এ সময় বনি হাশিমের কোন একজন তার এসব কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে আপত্তি উত্থাপন করলো ফলে সে তার পথ পরিবর্তন করে ইবনে হানাফিয়াকে অ্যারিমের শিবে বন্দি করলো । তারপর সে মক্কায় বনি হাশিমের যেসব লোককে পেল তাদের বন্দি করে হানাফিয়ার সাথে অ্যারিমের শিবে রাখলো এবং তাদেরকে পুড়িয়ে হত্যা করার জন্য অনেক কাঠ সংগ্ৰহ করে আরিমের শিবে জমালো । এ খবর পেয়ে হানফিয়ার অনুচরগণ আবু আবদিল্লাহ আল জাদালীর নেতৃত্বে আবদুল্লাহ ইবনে জুবায়রের সাথে যুদ্ধ করার জন্য মক্কায় উপস্থিত হয়ে গেল । আল-জাদালীর উপস্থিতি টের পেয়েই আবদুল্লাহ ইবনে জুবায়ের পরিকল্পনা অনুযায়ী আগুন লাগিয়ে দিল। আল-জাদালী সরাসরি অ্যারিমের শিবে উপস্থিত হয়ে আগুন নিভিয়ে ফেললো এবং বন্দিদেরকে উদ্ধার করলো (ইসফাহানী’, পৃঃ ১৫)

৪৬৩। মানুষ কিসে দম্ভ করে যেখানে তার উৎপত্তি হলো বীর্য আর পরিণতি হলো লাশ এবং সে নিজেকে খাওয়াতে পারে না বা মৃত্যুকে ঠেকাতে পারে না।
৪৬৪ । কেউ একজন আমি করুল মোমেনিনকে জিজ্ঞেস করলেন, সব চাইতে বড় কবি কে? উত্তরে তিনি বললেন, কবিরা সকলে একই লাইনে তাদের চিন্তাভাবনা ব্যক্ত করে না। ফলে আমরা তাদের শ্রেষ্ঠত্ব নির্ণয় করতে সক্ষম হই না। তাসত্ত্বেও আল-মালিক আদ-দিল্লিল (পথভ্রষ্ট রাজা) অর্থাৎ ইমরিউল কায়েস শ্রেষ্ঠ ।
৪৬৫। এমন কোন মুক্ত লোক কি নেই, যে দুনিয়ার উচ্ছিষ্টকে যারা পছন্দ করে তাদের জন্য তা রেখে যায়। নিশ্চয়ই, তোমার জন্য একমাত্র মূল্য হলো বেহেশত। সুতরাং বেহেশত ছাড়া অন্য কিছুর জন্য নিজকে বিক্রি করো না ।
৪৬৬। দুধরনের লোভী ব্যক্তি কখনো তৃপ্ত হয় না। এদের একজন হলো জ্ঞান অন্বেষণকারী আর অপরজন হলো দুনিয়া অন্বেষণকারী।
৪৬৭। ইমান হলো—তুমি সত্যকে আঁকড়ে ধরবে। যদি তাতে তোমার ক্ষতিও হয় এবং মিথ্যাকে বর্জন করবে। যদি মিথ্যা দ্বারা তোমার লাভও হয় । তোমার কথা যেন কাজের চেয়ে বেশি না হয় এবং অন্যদের সম্পর্কে কথা বলতে আল্লাহকে ভয় করো।
৪৬৮। ভাগ্য আমাদের পূর্ব-স্থিরীকৃত বিষয়েরও নিয়ন্ত্রণকারী যতক্ষণ পর্যন্ত না চেষ্টা ধ্বংস সংঘটিত করে ।
৪৬৯। ক্ষমা আর ধৈর্য জমজ এবং দুটি উচ্চ স্তরের সাহসের ফল।
৪৭০ । সহায়হীনের অস্ত্র হলো গিবত করা।

৪৭১। অনেকেই কুকর্মে জড়িয়ে পড়ে এজন্য যে, তা সম্পর্কে তাকে ভালো ধারণা দেয়া হয়।
৪৭২। এ দুনিয়া তার নিজের জন্য সৃষ্টি করা হয় নি—অন্যের জন্য সৃষ্টি করা হয়েছে।
৪৭৩। বনি উমাইয়াদের নির্ধারিত সময় (মিরওয়াদ) আছে যার মধ্যেই তারা শেষ হয়ে যাবে। সময় আসবে যখন তাদের মধ্যে মতদ্বৈধতা দেখা দেবে এবং তখন হায়েনাও তাদেরকে আক্রমণ করে ক্ষমতাচ্যুত করবে।
১ । উমাইয়াদের পতন সম্পর্কে আমিরুল মোমেনিনের এ ভবিষ্যদ্বাণী অক্ষরে অক্ষরে সত্য বলে প্রমাণিত হয়েছে। মুয়াবিয়া ইবনে আবু সুফিয়ান উমাইয়া শাসন প্রতিষ্ঠা করেছিল এবং ১৩২ হিজরিতে মারওয়ান ইবনে মুহাম্মদ আল-হিমারের সময় ৯০ বৎসর ১১ মাস ১৩ দিন পর তার পরিসমাপ্তি ঘটে । উমাইয়া রাজত্ব ছিল স্বৈরাচার, অত্যাচার আর জুলুমের প্রতীক। উমাইয়া শাসকগণ ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য ইসলামকে কালিমালিপ্ত করেছে। তারা মক্কায় সৈন্য পাঠিয়ে কাবায় আগুন লাগিয়েছে, মদিনা তাদের পৈশাচিকতার শিকার হয়েছে এবং মুসলিমদের রক্তের স্রোত বয়ে গেছে। এ রক্তপাত অবশেষে ধ্বংসাত্মক বিদ্রোহে রূপ নিয়েছিল। এ সময় বনি আব্বাস “আল-খিলাফাহ আল-ইলাহিয়া” (আল্লাহর খেলাফত) নামক আন্দোলন শুরু করেছিল। তাদের আন্দোলনকে এগিয়ে নিয়ে যাবার জন্য তারা আবু মুসলিম আলখোরাসানী নামক একজন তুখোড় বক্তা ও নেতা পেয়েছিল। খোরাসানকে সদরদপ্তর করে আন্দোলন পরিচালিত হয় এবং উমাইয়াদেরকে ক্ষমতাচ্যুত করে আব্বাসিয়রা ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়।

৪৭৪। আনসারদের প্রশংসা করে আমিরুল মোমেনিন বলেছিলেনঃ আল্লাহর কসম, তারা তাদের উদারতা ও মধুর কথা দ্বারা ইসলামকে এমনভাবে লালন-পালন করেছে। যেমন করে একটা উষ্ট্র শাবককে লালন করা হয় ।

৪৭৫। চক্ষু হলো পিছনের ফিতা।