“নামায” কবুল হল কিনা ? – কিভাবে বুঝা যাবে !

“নামায” কবুল হল কিনা ?
– কিভাবে বুঝা যাবে !

মহান আল্লাহ কতৃক নির্বাচিত সমগ্র সৃষ্টিজগতের ষষ্ঠ ইমাম ,

ইমাম জাফর সাদিক (আঃ) এর কাছে এসে একজন জিজ্ঞেস করল যে ,
“হে রাসুল (সাঃ) এর সন্তান , হে মাওলা , আমি অধম বান্দা , মৃত্যুর পূর্বে আমি কি ভাবে বুঝব যে , আমার আদায়কৃত নামায কবুল হয়েছে কি না ” ?

তখন অন্যান্য সাহাবীরা রাগ করে বললেন , এটা কোন প্রশ্ন হল ? কিয়ামতের আগে এটা জানা কি সম্ভব ? এটা একমাত্র আল্লাহই জানেন ।

তখন ইমাম (আঃ) বললেন যে , বাধা দিও না , তাকে প্রশ্ন করতে দাও । জী হ্যা , মৃত্যুর পূর্বে অবশ্যই জানা সম্ভব , আপনার নামাজ কবুল হল কি না !

সকলেই অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করলেন , মাওলা , এটা কিভাবে সম্ভব হয় ?

ইমাম (আঃ) বলেন যে , যদি তুমি দেখতে পাও যে , নামায আদায় করার পর তোমার প্রতিদিনের গুনাহ এর পরিমান কমে এসেছে অর্থাৎ তুমি যে গুনাহ আগে নিদ্বির্ধায় করতে তা এখন করতে গেলে তোমার বিবেক তোমাকে বাধা ‍দিচ্ছে , তা হলে তুমি বুঝবে যে , তোমার নামাজ কবুল হয়েছে ।
অর্থাৎ গুনাহ করতে তোমার বিবেক যতটুকু বাধা দেয় তোমার নামায ততটুকুই কবুল হয়েছে ।
তোমরা কি পবিত্র কোরআনে পড় নি যে , নামাজ গুনাহ করতে বাধা দান করে ।

পাঠক ,
একমাত্র নবীজী (সাঃ) এর পবিত্র আহলে বায়েত (আঃ) তথা বার ইমাম (আঃ) গনের পক্ষেই সম্ভব —
” সালুনি – সালুনি ” – এই কথাটি বলা ।

SKL