জগতের সর্বপ্রথম হত্যাকান্ড – হাবিল ।

জগতের সর্বপ্রথম হত্যাকান্ড – হাবিল ।

প্রচলিত ইসলামের ইতিহাসের একটি ভুল ধারনার অবসান —

আমাদের চারপাশে ইসলামে প্রচলিত একটি কাহিনী বলা হয় থাকে যে , হযরত আদম (আঃ) ও হযরত হাওয়া (আঃ) এর দুই পুত্র সন্তান হাবিল ও কাবিলের হত্যাকান্ডের মূল ঘটনা নাকি বিবাহ সম্পর্কিত বিষয় নিয়ে ।
অর্থাৎ কাবিলের দৃষ্টিতে , হাবিলের হবু স্ত্রী নাকি অধিক সুন্দরী ছিল কাবিলের হবু স্ত্রী থেকে । মূলত সে জন্যই হিংসাঃবশত হাবিলকে হত্যা করে কাবিল ।
এই হচ্ছে বাজারে প্রচারিত গাঁজাখুরী কেচ্ছা কাহিনী !

আসুন , দেখে নেয়া যাক , পবিত্র কোরআনে স্বয়ং আল্লাহ কি বলেন —

হাবিল ও কাবিল আপন দুই ভাই ।
হাবিল ও কাবিলের মধ্যে কাবিল ছিল বয়সে বড় ।
তাদের বাবা হযরত আদম (আঃ) আল্লাহর নির্দেশে হযরত হাবিলের যোগ্যতা ও সংযমের কারণে তাঁকেই নিজের প্রতিনিধি নিয়োগ করবেন বলে জানান ।
হযরত আদম (আঃ) হাবিলকে ‘ ইসমে আজম ‘ও শিক্ষা দিয়েছিলেন ।
বাবার এহেন সিদ্ধান্তের কথা শুনে কাবিল হিংসায় জ্বলে ওঠে এবং সে নিজেই প্রতিনিধি হওয়ার যোগ্য বলে ঘোষণা করে ।
এ অবস্থায় হযরত আদম (আঃ) মহান আল্লাহর নির্দেশে দুই ভাইয়ের বিবাদ মেটানোর জন্য বলেন , ‘ তোমরা দু’জনই আল্লাহর দরবারে মানত পেশ কর । যার মানত কবুল হবে সেই হবে আমার খলিফা বা উত্তররসূরী ।’

পশুপালক হাবিল একটি হৃষ্টপুষ্ট ছাগল বা ভেড়া , কিছু দুধ ও মাখন নিয়ে পাহাড়ে রেখে আসেন ।
কারন আল্লাহকে উদ্দেশ্য করে তো খারাপ বা নিন্মমানের কিছু দেয়া ঠিক নয় ।
আর কৃষিজীবী কাবিল ক্রুদ্ধ অবস্থায় গমের কিছু শুকনো ও খারাপ শিষ রেখে আসে ।

রীতি অনুযায়ী আকাশ হতে আগুন নেমে আসে এবং হাবিলের মানত ভস্মীভূত হয় যা ছিল তার মানত কবুল হওয়ার নিদর্শন ।
কিন্ত কাবিলের মানত একই ভাবে পড়েই থাকে ।

এ দৃশ্য দেখে কাবিল হিংসার আগুনে জ্বলতে থাকে ও শয়তানের কুমন্ত্রণায় ভাই হাবিলকে হত্যা করে ।
তাকে যে দাফন করতে হবে মাটির নীচে — সেই শিক্ষা দেয়ার জন্য আল্লাহ একটি কাক পাঠান যে অন্য একটি মৃত কাককে মাটিতে দাফন করেছিল ।

পবিত্র কোরআন অনুযায়ী , এই হল আপন দুই ভাই হত্যার মূল কারন ।

আরও ঘটনা শুনুন ।
কাবিলকে তখন হযরত আদম (আঃ) লানত দিয়েছিলেন । কাবিল তখন পাহাড়ের পাদদেশে তার দলবল নিয়ে লুকিয়ে থেকে তার রাজত্ব সৃষ্টি করেছিল ।
পিতা আদম (আঃ) এর মৃত্যুসংবাদ শুনে সে আনন্দিত হয় ।
পরবর্তীতে কাবিলের মৃত্যুর পরে তার অনুসারীরা তখন কাবিলকে রাঃআনহু বলেছিল ।
ঠিক একই ভাবে কাবিলের বংশধররা কাবিলেরই আরেক বংশধর , কুলাঙ্গার ঈয়াযীদকে বর্তমানে প্রকাশ্যে রাঃআনহু বলছে ।

পাঠক , পৃথিবীতে মানব সমাজে এটাই সর্বপ্রথম রাজনৈতিক হত্যাকান্ড ।
অবশ্যই এ হত্যাটি ছিল ক্ষমতার লোভে লালায়িত একজন মানুষের ।
পাশাপাশি হত্যাকারী কাবিল আল্লাহ কতৃক নির্বাচিত খলীফা বা ইমামকে মেনে নিতে পারে নি বলেই এ হত্যাকান্ডটি ঘটিয়েছে ।

এবারে দেখুন , ইতিহাসের একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ।
হাজার হাজার বছর পরে গাদীর এ খুমে ইতিহাসের একই ঘটনার হুবহু পুনরাবৃত্তি হয়েছে ।
শুধু চরিত্রগুলো ভিন্ন কিন্ত উদ্দেশ্য এক ।
আল্লাহ কতৃক নির্বাচিত খলীফা বা ইমামকে অস্বীকার ।

আল্লাহ ও তাঁর রাসুল (সাঃ) কতৃক নির্বাচিত মাওলা আলী তথা বার ইমামত পদ্বতি মেনে নিতে পারল না অনেকেই ।
এরপরের ইতিহাস তো জানা সকলের — সৃষ্টি হল বনু সকীফা ।
এই বনু সকীফা থেকে কারবালার মর্মান্তিক ঘটনা ।

একে একে আল্লাহ কতৃক নির্বাচিত ১১ জন পবিত্র ইমাম (আঃ) গনকে হত্যা করা হল ।
সব একই সূত্র্রে গাঁথা । আজও এই হত্যাগুলোর বিচার কেউ করল না ।
বিচার চাওয়া তো দূর কা বাত , এই পবিত্র মানুষগুলোর জন্য একটু কান্নাকাটি করলেও গালাগালি বা বিভিন্ন ফতোয়া শুনতে হয় ।

SKL