৪ জন নবী জীবিত , ঈবলীশ জীবিত – শুধু উনি কি করে –

৪ জন নবী জীবিত , ঈবলীশ জীবিত – শুধু উনি কি করে —–

চারজন নবী এখনও জীবিত থাকতে পারেন , তাও আবার কয়েক হাজার বছর ধরে ,
এতে কোন সন্দেহ নেই ।

৪ জন নবী ইন্তেকাল না করে এখনও জীবিত আছেন ।
তম্মধ্যে ২ জন আসমানে ও ২জন জমিনে জীবিত আছেন ।

★ আসমানে যে ২জন নবী –

১) – হযরত ইদ্রিস (আঃ) – যাকে হযরত জিব্রাঈল (আঃ) মহান আল্লাহর আদেশে জান্নাত পরিভ্রমনে নিয়ে গেলে, জান্নাতের অপরুপ সৌন্দর্য ও মহান আল্লাহর অপুর্ব নিদর্শন
দেখে হযরত ইদ্রিস (আঃ) জান্নাত থেকে আজ অবধি আর বের হননি ।

২) – হযরত ঈসা (আঃ) – যাকে মহান আল্লাহ
আসমানে অক্ষত অবস্থায় উঠিয়ে নিয়েছেন , কিয়ামতের পূর্বে হযরত ঈসা (আঃ) আমাদের প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লামের উম্মত হিসেবে পৃথিবীতে আগমন করবেন ও ইমাম মাহদী (আঃ) এর পিছনে নামাজ আদায় করবেন এবং ইমামমুজ্জামান (আঃ) এর নেতৃত্বে বিপ্লবে অংশগ্রহন করবেন ।

★ জমীনে যে ২জন নবী –

৩) – হযরত খিজীর (আঃ) – তিনি জমিনের মধ্যে জলে আছেন ।

৪) – হযরত ইলিয়াস (আঃ) – যিনি জমিনের মধ্যে পাহাড়ে আছেন ।

এছাড়াও —
জনাব আযাযীল ওরফে ঈবলীশ আদম (আঃ) এর সৃষ্টির আরও বহু পূর্ব থেকে জন্ম নিয়ে বর্তমান পর্যন্ত এমনকি কেয়ামত পর্যন্ত বহাল তবিয়তে বেঁচে থাকবে , এতে কোন সন্দেহ নেই ।

প্রিয় পাঠক ,
অবাক হয়ে এবারে নীচের কথাগুলো মনযোগ সহকারে পড়ুন , প্লীজ ।
মানবজাতির সর্বনাশ করার জন্য লানতি ঈবলীশের দীর্ঘায়ু জীবন নিয়ে কোন মুসলমানের বিন্দুমাত্র সন্দেহ নাই । এমনকি ঈবলীশ কোথায় থাকে , কি খায় ইত্যাকার বিষয়াদি লইয়া কোন প্রশ্ন নাই ।

পক্ষান্তরে ,
ঈবলীশের এই সর্বনাশা ভয়ংকর চক্রান্ত থেকে মানবজাতিকে সুরক্ষা ও হেদায়েত করার জন্য মহান আল্লাহ কতৃক নির্বাচিত ও প্রেরিত সর্বশেষ বারতম ইমাম মাহদী (আঃ) কিভাবে ১২০০ বছরের অধিক বাঁচিয়া আছেন , ইহা লইয়া মুসলমানদের বৃহৎ একটি অংশ চিন্তা ও সন্দেহে পেরেশান হয়ে যান !

এত দীর্ঘায়ু জীবন আদৌ কি সম্ভব ?
উনি তাহলে কোথায় আছেন , কিভাবে অাছেন ?
ইত্যাদি নানা রকমের প্রশ্ন আর সন্দেহ মনে উকি ঝুকি মারে —

শেষ পর্যন্ত ফয়সালা এই রকম যে ,
উনি এখনও জন্ম নেন নাই , তবে অবশ্যই জন্ম নিবেন !

এই হল গাদীর এ খুম পরিত্যাগকারী মুসলমানগনের হাল হকিকত —
অর্থাৎ সমগ্র মানবজাতির চুড়ান্ত ক্ষতি ও ধ্বংস করার জন্য জীবিত ঈবলীশকে মেনে নিতে রাজী !
কিন্ত ঈবলীশের ক্ষতি থেকে রক্ষা করার জন্য ও হেদায়েতের জন্য জীবিত হুজ্জাত তথা আল্লাহ কতৃক প্রেরিত জীবিত সর্বশেষ বারতম ইমাম মাহদী (আঃ) কে মেনে নিতে অপারগ !!

হায়রে মুসলমান ,
তাহলে মহান আল্লাহ ওনার সমগ্র সৃষ্টিকুল বিনা হুজ্জাত বা বিনা প্রতিনিধি বা ইমামবিহীন অবস্থায় রাখিয়া দিলেন ?

বোধকরি আমার মত গর্দভ উম্মতের জন্য মহান আল্লাহ এই আয়াতটি অবর্তীন করেছেন —

” — তোমাদের কি হয়েছে , তোমরা কেমন বিচার করছ ? তবে কি তোমরা চিন্তা ভাবনা কর না — ” ?
সুরা – সাফফাত / ১৫৪ , ১৫৫ ।

সুপ্রিয় পাঠক ,
কিছুই বলিবার নাই ।
যদি সময় পান , দয়া করে একটু ভেবে দেখবেন ।

SKL