ঈয়াযীদ মোটেই দায়ী নন —- পর্ব – ০৬ —

— ঈয়াযীদ মোটেই দায়ী নন —-
পর্ব – ০৬ ।

ইদানীং অনেকেই বলে থাকেন যে , কারবালার মর্মান্তিক ঘটনার জন্য ঈয়াযীদ মোটেই দায়ী নন ।
বেশ ভাল কথা ।
কথা বলার স্বাধীনতা সকলের আছে , হোক সে কথাটা খাঁটি সত্য অথবা ডাঁহা মিথ্যা ।

প্রিয় পাঠক ,
সংগত কারনে এখানে শীয়াদের রেফারেন্স দেয়া যাচ্ছে না ।

আসুন দেখে নেই ,
সুন্নি ভাইদের বিখ্যাত ইতিহাসবিদগনের কিতাব কি বলে –

পর্ব – ০৬ —

আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস ঈয়াযীদ ইবনে মূয়াবীয়াকে ইমাম হোসেন (আঃ) কে হত্যার অভিযোগে অভিযুক্ত করেছেন ।

তৃতীয় ইমাম হোসেন (আঃ) এর শাহাদাতের পর আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস ঈয়াযীদকে লেখা এক পত্রে লিখেছেন –
” হে অবৈধ সন্তান ! তুমিই হলে সেই ব্যক্তি যে তার পাপিষ্ঠ ও কলুষ হাত দিয়ে হোসেন (আঃ) কে হত্যা করেছে ।
আমি কখনই এই কথাটি ভুলে যাইনি যে , তোমার হাত রক্তে রজ্ঞিত ।
তুমি ইমাম হোসেন (আঃ) সহ বনি হাশিমের এমন ব্যক্তিদের হত্যা করেছ , যাঁরা সকলেই উজ্জল , দীপ্তিমান আলো এবং অন্ধকারে নিপতিতদের জন্য পথপ্রর্দশক তারকাস্বরুপ ছিলেন ।

ইবনে আব্বাস একজন প্রসিদ্ব সাহাবী এবং মহানবী (সাঃ) এর চাচা হযরত আব্বাসের সন্তান ।
তিনি কারবালার ঘটনার সময় জীবিত ছিলেন এবং আশুরার দিনে তিনি দ্বিপ্রহরে স্বপ্ন দেখেন যে , মহানবী (সাঃ) দুঃখভারাক্রান্ত ও ক্রন্দনরত অবস্থায় কারবালার ময়দান থেকে ইমাম হোসেন (আঃ) এর রক্ত সংগ্রহ করছেন ।
স্বপ্নেই রাসুল (সাঃ) তাঁকে ইমাম হোসেন (আঃ) এর শাহাদাতের সংবাদ দেন ।
নিঃসন্দেহে তিনি ঈয়াযীদকে মিথ্যা অভিযোগে অভিযুক্ত করেন নি ।

সূত্র – তারিখে ইয়াকুবী , ২য় খন্ড , পৃ – ২৪৮ / ইবনে আসির , আল কামিল ফিত তারিখ , ৩য় খন্ড , পৃ – ৩১৮ / আহমাদ ইবনে হাম্বাল , ৪র্থ খন্ড , পৃ – ৫৯ / আল বিদায়া ওয়ান নিহায়া , ১১তম খন্ড , পৃ – ৫৭২ ও ৫৭৯ ।

ইনশা আল্লাহ , আসছে ,
পর্ব – ০৭ —

কারবালার প্রত্যক্ষ সাক্ষী হযরত যয়নাব বিনতে আলী (সাঃআঃ) ঈয়াযীদের সম্মুখেই তাকে ইমাম হোসেন (আঃ) এর হত্যাকারী বলেছেন ।

 

ইমাম হুসাইন (আঃ) এর হত্যায় ঈয়াযীদের ভূমিকা ,
সংকলনে – আবু যাহরা ,
প্রকাশনায় – আশেকানে আহলে বাইত , বাংলাদেশ ,
পৃষ্ঠা – ৮ থেকে সংকলিত ও সংগৃহীত ।

SKL