দোয়া ৩৭ নিজ অভাবের কথা বিবেচনা করে আল্লাহকে ধন্যবাদ

2 weeks ago najafi 0

دُعَاؤُهُ فِي الشُّكْرِ
His
supplication in giving Thanks
1
O God, no one reaches a limit in thanking Thee
أللَّهُمَّ إنَّ أَحَداً لاَ يَبْلُغُ مِنْ شُكْرِكَ
غَايَةً
1
2
without acquiring that of Thy beneficence which
enjoins upon him thanksgiving,
إلاّ حَصَلَ عَلَيْهِ مِنْ إحْسَانِكَ مَا يُلْزِمُهُ
شُكْرَاً،
2
3
nor does anyone reach a degree in obeying Thee, even
if he strives,
وَلا يَبْلُغُ مَبْلَغاً مِنْ طَاعَتِكَ وَإن اجْتَهَدَ
3
4
without falling short of what Thou deservest because
of Thy bounty.
إلاَّ كَانَ مُقَصِّراً دُونَ اسْتِحْقَاقِكَ
بِفَضْلِكَ،
4
5
The most thankful of Thy servants has not the
capacity to thank Thee,
فَأَشْكَرُ عِبَادِكَ عَاجِزٌ عَنْ شُكْرِكَ
5
6
and the most worshipful of them falls short of
obeying Thee.
وَأَعْبَدُهُمْ مُقَصِّرٌ عَنْ طَاعَتِكَ،
6
7
To none of them is due Thy forgiveness through what
he himself deserves
لا يَجبُ لأِحَد أَنْ تَغْفِرَ لَهُ بِاسْتِحْقَاقِهِ،
7
8
or Thy good pleasure for his own merit.
وَلا أَنْ تَرْضَى عَنْهُ بِاسْتِيجَابِهِ،
8
9
When Thou forgivest someone, it is through Thy
graciousness,
فَمَنْ غَفَرْتَ لَهُ فَبِطَولِكَ،
9
10
and when Thou art pleased with someone, it is
through Thy bounty.
وَمَنْ رَضِيْتَ عَنْهُ فَبِفَضْلِكَ
10
11
Thou showest gratitude for the paltry for which
gratitude is shown to Thee and Thou rewardest the
small act in which Thou art obeyed,
تَشْكُرُ يَسِيرَ مَا شُكِرْتَهُ وَتُثِيبُ عَلَى
قَلِيلِ مَا تُطَاعُ فِيهِ
11
12
so that it seems as if Thy servants’ thanksgiving
for which Thou hast made incumbent their reward
حَتَّى كَأَنَّ شُكْـرَ عِبَادِكَ الَّذِيْ أَوْجَبْتَ
عَلَيْهِ ثَوَابَهُمْ
12
13
and made great their repayment
وَأَعْظَمْتَ عَنْهُ جَزَاءَهُمْ
13
14
is an affair from which they could have held back
without Thee,
أَمْرٌ مَلَكُوا اسْتِطَاعَةَ الامْتِنَاعِ مِنْهُ
دُونَكَ
14
15
and hence Thou wilt recompense them, and whose cause
is not in Thy hand, and hence Thou wilt repay them.
فَكَافَيْتَهُمْ أَوْ لَمْ يَكُنْ سَبَبُهُ بِيَدِكَ
فَجَازَيْتَهُمْ،
15
16
Nay, my God, Thou hadst power over their affair
before they had power to worship Thee,
بَـلْ مَلَكْتَ يَا إلهِي أَمْرَهُمْ قَبْلَ أَنْ
يَمْلِكُوا عِبَادَتَكَ،
16
17
and Thou hadst prepared their reward before they
began to obey Thee;
وَأَعْدَدْتَ ثَوَابَهُمْ قَبْلَ أَنْ يُفِيضُوا فِي
طَاعَتِكَ،
17
18
and that because Thy wont is bestowal of bounty,
وَذَلِكَ أَنَّ سُنَّتَكَ الأِفْضَالُ،
18
19
Thy custom beneficence, Thy way pardon.
وَعَادَتَكَ الإحْسَانُ، وَسَبِيلَكَ الْعَفْوُ،
19
20
So all creatures confess that Thou wrongest not him
whom Thou punishest
فَكُلُّ الْبَرِيِّةِ مًعْتَرِفَةٌ بِأَنَّكَ غَيْرُ
ظَالِم لِمَنْ عَاقَبْتَ،
20
21
and bear witness that Thou bestowest bounty upon him
whom Thou pardonest.
وَشَاهِدَةٌ بِأَنَّكَ مُتَفَضِّلٌ عَلَى مَنْ
عَافَيْتَ،
21
22
Each admits that he has fallen short of what Thou
meritest.
وَكُلٌّ مُقِرٌّ عَلَى نَفْسِهِ بِالتَّقْصِيْرِ
عَمَّا اسْتَوْجَبْتَ،
22
23
Had Satan not misled them from Thy obedience, no
disobeyer would have disobeyed Thee,
فَلَوْلا أَنَّ الشَّيْطَانَ يَخْتَدِعُهُمْ عَنْ
طَاعَتِكَ ما عَصاكَ عاصٍ
23
24
and had he not shown falsehood to them in the
likeness of truth
وَلَوْلا أَنَّهُ صَوَّرَ لَهُمُ البَاطِلَ فِي
مِثَالِ الْحَقِّ
24
25
no strayer would have gone astray from Thy path.
مَا ضَلَّ عَنْ طَرِيْقِكَ ضَالٌّ.
25
26
So glory be to Thee! How manifest is Thy generosity
فَسُبْحَانَكَ مَا أَبْيَنَ كَرَمَكَ
26
27
in dealing with him who obeys or disobeys Thee!
فِي مُعَامَلَةِ مَنْ أَطَاعَكَ أَوْ عَصَاكَ،
27
28
Thou showest gratitude to the obedient for that
which Thou undertakest for him,
تَشْكُرُ للْمُطِيْعِ مَا أَنْتَ تَوَلَّيْتَهُ لَهُ،
28
29
and Thou grantest a respite to the disobedient in
that within which Thou art able to hurry him.
وَتُمْلِي لِلْعَاصِي فِيْمَا تَمْلِكُ مُعَاجَلَتَهُ
فِيْهِ،
29
30
Thou givest to each of them that which is not his
due,
أَعْطَيْتَ كُلاًّ مِنْهُمَا مَا لَمْ يَجِبْ لَهُ،
30
31
and Thou bestowest bounty upon each in that wherein
his works fall short.
وَتَفَضَّلْتَ عَلَى كُلٍّ مِنْهُمَا بِمَا يَقْصُرُ
عَمَلُهُ عَنْهُ
31
32
Wert Thou to counterbalance for the obedient servant
that which Thou Thyself hadst undertaken,
وَلَوْ كَافَأْتَ الْمُطِيعَ عَلَى مَا أَنْتَ
تَوَلَّيْتَهُ
32
33
he would be on the point of losing Thy reward
لاَوْشَكَ أَنْ يَفْقِدَ ثَوَابَكَ،
33
34
and seeing the end of Thy favour,
وَأَنْ تَزُولَ عَنْهُ نِعْمَتُكَ
34
35
but through Thy generosity Thou hast repaid him
وَلكِنَّكَ بِكَرَمِكَ جَازَيْتَهُ
35
36
for a short, perishing term with a long, everlasting
term,
عَلَى الْمُدَّةِ الْقَصِيرَةِ الفَانِيَةِ
بِالْمُدَّةِ الطَّوِيلَةِ الْخَالِدَةِ،
36
37
and for a near, vanishing limit with an extended,
abiding limit.
وَعَلَى الْغَايَةِ الْقَرِيبَةِ الزَّائِلَةِ
بِالْغايَةِ الْمَدِيدَةِ الْبَاقِيَةِ،
37
38
Then Thou dost not visit him with a settling of
accounts for Thy provision
ثُمَّ لَمْ تَسُمْهُ الْقِصَاصَ فِيمَا أَكَلَ مِنْ
رِزْقِكَ
38
39
through which he gained strength to obey Thee,
الَّذِي يَقْوَى بِهِ عَلَى طَاعَتِكَ،
39
40
nor dost Thou force him to make reckonings for the
organs
وَلَـمْ تَحْمِلْهُ عَلَى الْمُنَاقَشَاتِ فِي الآلاتِ
40
41
he employed to find the means to Thy forgiveness.
الَّتِي تَسَبَّبَ بِاسْتِعْمَالِهَا إلَى
مَغْفِـرَتِكَ،
41
42
Wert Thou to do that to him,
وَلَـوْ فَعَلْتَ ذلِكَ بِهِ
42
43
it would take away everything for which he had
laboured
لَذَهَبَ بِجَمِيْعِ مَا كَدَحَ لَهُ
43
44
and all wherein he had exerted himself
وَجُمْلَةِ مَا سَعَى فِيهِ،
44
45
as repayment for the smallest of Thy benefits and
kindnesses,
جَزَاءً لِلصُّغْرى مِنْ أَيادِيْكَ وَمِنَنِكَ،
45
46
and he would remain hostage before Thee for Thy
other favours.
وَلَبَقِيَ رَهيناً بَيْنَ يَدَيْكَ بِسَائِرِ
نِعَمِكَ
46
47
So how can he deserve something of Thy reward?
Indeed, how?
فَمَتَى كَانَ يَسْتَحِقُّ شَيْئاً مِنْ ثَوَابِكَ ،
لا ، مَتَى؟.
47
48
This, my God, is the state of him who obeys Thee and
the path of him who worships Thee.
هَذَا يا إلهِي حَالُ مَنْ أَطَاعَكَ وَسَبِيلُ مَنْ
تَعَبَّدَ لَكَ،
48
49
But as for him who disobeys Thy command and goes
against Thy prohibition,
فَأَمَّا الْعَاصِيْ أَمْرَكَ وَالْمُوَاقِـعُ
نَهْيَكَ
49
50
Thou dost not hurry him to Thy vengeance, so that he
may seek to replace his state in disobeying Thee
فَلَمْ تُعَاجِلْهُ بِنَقِمَتِكَ لِكَيْ يَسْتَبْدِلَ
بِحَالِهِ فِي مَعْصِيَتِكَ
50
51
with the state of turning back to obey Thee,
حَالَ الاِنَابَـةِ إلَى طَـاعَتِـكَ،
51
52
though he deserved from the time he set out to
disobey Thee
وَلَقَـدْ كَـانَ يَسْتَحِقُّ فِي أَوَّلِ مَـا هَمَّ
بِعِصْيَانِكَ
52
53
every punishment which Thou hast prepared for all
Thy creatures.
كُلَّ مَا أَعْدَدْتَ لِجَمِيعِ خَلْقِكَ مِنْ
عُقُوبَتِكَ،
53
54
Through each chastisement which Thou hast kept back
from him
فَجَمِيعُ مَا أَخَّرْتَ عَنْهُ مِنْ الْعَذَابِ،
54
55
and each penalty of Thy vengeance and Thy punishment
which Thou hast delayed from him, Thou hast
refrained from Thy right
وَأَبْطَأتَ بِهِ عَلَيْهِ مِنْ سَطَوَاتِ النَّقِمَةِ
وَالْعِقَابِ تَرْكٌ مِنْ حَقِّكَ،
55
56
and shown good pleasure in place of what Thou hast
made obligatory.
وَرِضىً بِدُونِ وَاجِبِكَ،
56
57
So who is more generous, my God, than Thou?
فَمَنْ أكْرَمُ يَا إلهِي مِنْكَ
57
58
And who is more wretched than he who perishes in
spite of Thee? Indeed, who?
وَمَنْ أَشْقَى مِمَّنْ هَلَكَ عَلَيْـكَ، لا ، مَنْ؟
58
59
Thou art too blessed to be described by any but
beneficence
فَتَبَارَكْتَ أَنْ تُوصَفَ إلاّ بِالإحْسَانِ،
59
60
and too generous for any but justice to be feared
from Thee!
وَكَـرُمْتَ أَنْ يُخَافَ مِنْكَ إلاّ الْعَدْلُ،
60
61
There is no dread that Thou wilt be unjust toward
him who disobeys Thee,
لا يُخْشَى جَوْرُكَ عَلَى مَنْ عَصَاكَ،
61
62
nor any fear of Thy neglecting to reward him who
satisfies Thee.
وَلاَ يُخَافُ إغْفَالُكَ ثَوَابَ مَنْ أَرْضَاكَ.
62
63
So bless Muhammad and his Household, give me my
hope,
فَصَلِّ عَلَى مُحَمَّد وَآلِهِ وَهَبْ لِيْ أَمَلِي،
63
64
and increase me in that of Thy guidance
وَزِدْنِي مِنْ هُدَاكَ
64
65
through which I may be successful in my works!
مَا أَصِلُ بِهِ إلَى التَّوْفِيقِ فِي عَمَلِي،
65
66
Surely Thou art All-kind, Generous.
إنَّكَ مَنَّانٌ كَرِيمٌ.
66

পরম করুণাময় এবং অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি

নিজের অভাবের কথা বিবেচনা করে আল্লাহ্কে ধন্যবাদ জানিয়ে তাঁর একটি মুনাজাত।
হে প্রভু, আপনার বদান্যতা হতে তার সামনে প্রশংসা পুঞ্জিভ’ত হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত কেউ আপনাকে প্রশংসা জানিয়ে শেষ করতে পাবে না। যার অর্থ হচ্ছে তার আরও অনেক প্রশংসা প্রয়োজন।
কেউ আপনার এবাদতের এক সীমায় পৌঁছতে পারে না, এমনকি সে যদি তার সর্বাত্মক চেষ্টাও চালায়। কিন্তু আপনার মহানুভবতার দিকে তা অভাব হয়ে থাকবে। সেজন্য, আপনার ঐ বান্দাগণের মধ্যে সেই সবচেয়ে প্রশংসিত যে এ কথা অনুধাবন করে যে আপনার যথাযথ প্রশংসা কারা অসম্ভব। তাদের মধ্যে সবচেয়ে বড় এবাদতকারী হল সে যে আপনার কাছে প্রার্থনার অপর্যাপ্ত অনুধাবন করতে সক্ষম। আপনি যাদেরকে ক্ষমা করেছেন তাদের একজনকেও আপনি মেধার (তার) বলে ক্ষমা করেননি, অথবা কারও উপরই আপনি তার এবাদতের জন্য সন্তুষ্ট হননি।
সেজন্য, আপনি যখন কাউকে ক্ষমা করেন, তখন এটা আপনারই বদান্যতা। যখন কাকউকে কবুল করেন তখন এটা আপনারই দয়া। সামান্য ব্যাপারে আপিনি সন্তুষ্ট হয়ে প্রতিদান দিয়ে থাকেন এবং সামান্য আবেনও আপনি মেনে নিয়ে থাকেন। প্রশংসা করার বিনিময়ে আপনি প্রতিদান দেন এবং প্রার্থনা কবুল করে থাকেন। কিন্তু যে জন্য প্রশংসা করা হয় তাও আপনি দিয়ে থাকেন এবং আপনি তাদেরকে প্রতিদান দিয়ে থাকেন। অথবা এটা এমন দেখান যে আপনার হাতে হয়নি এবং আপনি তাদের আবেদন গ্রহণ করে থাকেন। উপরন্তু তারা মিনতি করার সমর্থ হওয়ার পূর্বেই তাদের কাজকর্মের উপর াাপনার ক্ষমতা বিদ্যমান এবং তারা আপনার এবাদত করার পূর্বেই তাদের প্রতিদান যোগান দিয়ে থাকেন।
এটাই আপনার রীতি যে আপনি দয়াময় এবং এটাই আপনার পদ্ধতি যে আপনি মাফ করেন। মূলত, সমগ্র সৃষ্টি এটা বুঝেছে যে, যাকে আপনি শাস্তি দেন তার প্রতি আপনি কোনো অবিচার করেন না ; এটা সাক্ষ্য দান করে যে, আপনার সত্তা তার প্রতি দয়াময় যাকে আপনি নিরাপত্তা দিয়ে থাকেন। প্রত্যেকেই তার নিজের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেয় যে সে আপনার ইচ্ছা পূরণ করতে ব্যর্থ, যদি শয়তান তাদেরকে আপনার অনুগত হওয়া থেকে বিপথগামী না করত কোনো পাপীই আপনাকে অমান্য করত না। যদি সে সঠিক হিসেবে ভুলকে প্রদর্শন না করত, কোনো বিপথগামী আত্মাই আপনার রাস্তা থেকে নর্দমায় পড়ে যেত না।
সেজন্য, আপনার পবিত্রতা বর্ণনা করছি। যারা আপনাকে মান্য করে আর যারা মান্য করে না তাদের ক্ষেত্রে আপনার করুনার কি অপূর্ব সাক্ষ্য। আপনি অনুগতদেরকে প্রতিদান দিয়ে থাকেন, মূলত যাতে আপনার কর্তৃত্বই বিদ্যমান।পাপীকে দীর্ঘ সময় দেন, যখন আপনি তাড়াতাড়ি শাস্তি দিতে পারেন।
আপনি তাদের প্রত্যেককে তাই দেন যা তারা প্রত্যাশা করে না এবং করুনা করে তাদের জন্য তাই বরাদ্দ করেন, তাদের কাজ-কর্ম দ্বারা যা অর্জন করা সম্ভব নয়।
আর আপনি অনুগতের প্রর্তনা কবুল করেন, যার উপর আপনার ক্ষমতা বিদ্যমান। মূলত সে আপনার পক্ষ থেকে প্রতিদান এবং করুণা হারানোর নিকটবর্তী ছিল।
কিন্তু আপনি করুণার দ্বারা ছোট ক্ষণস্থায়ী এবাদতের জন্য চিরস্থায়ী এবং দীর্ঘ সময় ব্যাপি সুখের ব্যবস্থা করেছেন, ক্ষণস্থায়ীর প্রতিদানে আপনি চিরস্থায়ী ব্যবস্থা করেছেন।
উপরন্তু সে যে আপনার রিযিক ভক্ষণ করেছে তার জন্য আপনার অনুগত হবার জন্য তাকে পাকড়াও করেননি, যা দ্বারা সে আপনার এবাদত করার জন্য শক্তি অর্জন করেছে এবং তার অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের সাথে বাদানুবাদ করে না। আপনার ক্ষমা প্রাপ্তির জন্য চেষ্টা করার দ্বারা সে তা ব্যবহার করে। এভাবে তার সাথে মোয়ামেলা করা হয়েছে। মূলত সে যে পরিশ্রম করেছে এবং সে যা অর্জন করেছে পুরোটাই আপনার নেয়ামতের এবং অনুগ্রহের কিয়দংশের বদলা। আর আপনার সমগ্র সাহায্য সহযোগিতার জন্য নিশ্চয় সে আপনার অনুগত থাকবে।
কিভাবে সে আপনার কোনো প্রতিদানের যোগ্য হতে পারে? কখনও পারবে না! কখনও না ং
হে প্রভু, এই হল তার অবস্থা ে আপনার কাছে মিনতি করে।
কিন্তু যে আপনার হুকুম অমান্য করে এবং আপনার নিষেধকৃত কাজ করে তাকে শাস্তি দিতে আপনি তাড়াহুড়া করেন না; এজন্য যে যাতে সে তার অসৎ দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করে এবং আপনার অনুগত হয়।
বিশেষত, আপনাকে অমান্য করে যা অর্জন করেছে তা হল যা আপনি আপনার সমগ্র সৃষ্টিকে শাস্তির যা কিছু দিয়েছেন। সেজন্য, আপনি যে তাকে শাস্তি দিতে বিলম্ব করেছেন এবং আপনার শাস্তি এবং আক্রমণ সরিয়ে নিয়েছেন, তা আপনার অধিকারের ব্যত্যয় ঘটিয়েছেন এবং আপনার সাথে যা মোয়ামেলা করা হয়নি তা গ্রহণ।
তাই আপনা হতে আর কে বেশি দয়াময়, হে প্রভু, আর তার চেয়ে বেশি দুর্ভাগ্য আর কে যে আপনার ইচ্ছার বিনুদ্ধে চলে? আর কেউ না !
তথাপি আপনি এতই মহান যে কোনো লঅভ ছাড়াই প্রশংসা পাবার উপযুক্ত, এতই বদান্য যে কোনো কিছুর বিচারের ক্ষেত্রে ভীতি হতে হয় না (অবিচারের আশঙ্কা নেই)। সে আপনার অবাধ্য তার উপরে আপনার বিনুদ্ধে দাঁড়াবার কেউ নেই, অথবা যে আপনাকে সন্তুষ্ট করেছে প্রতিদান দেয়ায় আপনার নারাজির কোনো ভয় নেই।
সেজন্য মিনতি করছি, হযরত মুহাম্মদ এবং তাঁর বংশধরদের উপর অনুগ্রহ করুন। আমার বাসনা কবুল করুন। আমার জন্য আপনার পথ নির্দেশের পরিমাণ বাড়িয়ে দেন যা দ্বারা আমি আমার কার্য সম্পাদন করে আপনার সাহায্য পেতে পারি।
বিশেষত, আপনার সত্তাই শ্রেষ্ঠ বদান্যশীল এবং বদান্যশীল।

Ref: হযরত ইমাম জয়নাল আবেদীন আল ছহীফাহ্ আল সাজ্জাদীয়াহ্
অনুবাদ মুহাম্মদ মাঈনউদ্দিন
অন্যধারা, ৩৮/২-ক বাংলাবাজার (৫ম তলা) ঢাকা-১১০০
প্রকাশকাল : সেপ্টেম্বর ২০০৮
বাংলা অনুবাদ: প্রকাশক ২০০৮